আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ফলেট প্যাপিলাইটিস জিহ্বার সমস্যা

প্রকাশিত : ২০ জানুয়ারী ২০১৫

মুখের ভেতরে বিভিন্ন স্থানের আলসার বা ঘায়ের মতো জিহ্বায় আলসার বা ঘা দেখা যায়। মুখের ভেতরে সবচেয়ে বেশি যে আলসার দেখা যায় তার নাম এ্যাপথাস আলসার। এ্যাপথাস আলসার সাধারণত এমনিতেই ভাল হয়ে যায়। তবে সমস্যা বেশি হলে ভিটামিন বি-২ ট্যাবলেট একটি করে তিনবার ১৫ দিন খাওয়া যেতে পারে। সঙ্গে পোভিডন আয়োডিন ১% মাউথওয়াশও ব্যবহার করা ভাল। তবে কোন রোগী বেশি দুশ্চিন্তা করলে বা কেউ যদি সারাক্ষণ মানসিক চাপে থাকে তবে সে ক্ষেত্রে এ্যাপথাস আলসার বারবার হতে পারে। এছাড়া রোগীর যক্ষ্মা হলেও মুখে ঘা দেখা যেতে পারে। এ ধরনের আলসারকে টিউবারকুলাস আলসার বলা হয়। জিহ্বার পেছনের দিকে একধরনের ঘা দেখা যায়। অনেক সময় ফোলাভাব লক্ষ্য করা যায়। তবে এই ফোলাভাব জিহ্বার পিছনের একপাশেও হতে পারে আবার উভয় পাশেও হতে পারে। সাধারণত যেসব রোগীর জিহ্বায় পেছনের দিকে একপাশে ফোলাভাব আছে কিন্তু অন্যপাশ স্বাভাবিক তাদের ক্ষেত্রে রোগীরা তো বটেই নবীন ডাক্তাররা পর্যন্ত মুখের ক্যান্সারের প্রাথমিক অবস্থা ভেবে ভুল করে থাকেন।

আসলে এই অবস্থাটির নাম ফলেট প্যাপিলাইটিস। জিহ্বার পেছনের অংশে ফলেট প্যাপিলা থাকে। ধূমপান, পান সেবন, এ্যালকোহল গ্রহণ অথবা নেশাজাতীয় যে কোন দ্রব্য সেবনে ফলেট প্যাপিলার প্রদাহ হলে জিহ্বার পেছনে এই অংশে আলসারের মতো লালচে ভাব দেখা যায় এবং সামান্য ফুলে যেতে পারে। ফলেট প্যাপিলাইটিসের ক্ষেত্রে আক্রান্ত স্থানে স্থানীয়ভাবে প্রয়োগকারী মলম ১৫ দিন ব্যবহার করা যেতে পারে।

সঙ্গে সঙ্গে স্টেরয়েড ইনহেলার প্রতিদিন এক পাফ পরিমাণ সকালে এবং রাতে মুখে সীমাবদ্ধ রেখে ব্যবহার করা যেতে পারে। এছাড়া সব ধরনের নেশাজাতীয় দ্রব্য বর্জন করতে হবে। আশা করা যায় এভাবে চিকিৎসা নিলে রোগী সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠবে। তবে এর পরও সুস্থতা না এলে অবশ্যই বায়োপসি করা উচিত। সর্বোপরি যে কোন রোগীর উচিত নিজে ওষুধ না খেয়ে অভিজ্ঞ ডেন্টাল সার্জনের পরামর্শ নেয়া।

প্রকাশিত : ২০ জানুয়ারী ২০১৫

২০/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: