মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

ভারতকেও হারাল অস্ট্রেলিয়া

প্রকাশিত : ১৯ জানুয়ারী ২০১৫
  • ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজে টানা দ্বিতীয় জয় (৪ উইকেটে) অসিদের, বিফলে রোহিত শর্মার সেঞ্চুরি (১৩৮)

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ব্যর্থতার পাল্লা ভারি হয়েই চলেছে ভারতের। টেস্ট হারের পর এবার ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজে নিজেদের প্রথম ম্যাচে স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার কাছে ৪ উইকেটে হারল বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। মেলবোর্নে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচে নির্ধারিত পঞ্চাশ ওভারে ৮ উইকেটে ২৬৭ রানের ফাইটিং স্কোর গড়ে মহেন্দ্র সিং ধোনির দল। জবাবে ৬ উইকেট হারিয়ে ১ ওভার বাকি থাকতেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় অসিরা। বিফলে যায় রোহিত শর্মার ১৩৮ রানের দুরন্ত সেঞ্চুরির ইনিংস। অসাধারণ বোলিং নৈপুণ্যে ৬ উইকেট শিকার করে ম্যাচসেরা বিজয়ী দলের পেসার মিচেল স্টার্ক। এনিয়ে টানা দুই জয়ে কার্লটন মিড সিরিজের ফাইনালের পথে অনেকটাই এগিয়ে গেল জর্জ বেইলির অস্ট্রেলিয়া। উদ্বোধনী ম্যাচে অপর দল ইংল্যান্ডকে ৩ উইকেট হারায় তারা।

স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া হট ফেবারিট, ভারত বর্তমান চ্যাম্পিয়ন। বিশ্বকাপ সামনে রেখে তাই ত্রিদেশীয় সিরিজে ভারত-অস্ট্রেলিয়া দ্বৈরথকে দেখা হচ্ছে ‘আগুন লড়াই’ হিসেবে। মেলবোর্নে দুই সেয়ানা শক্তির লড়াইয়ে উত্তাপ ছিল যথেষ্টই। ২৬৮ রানের জয়ের লক্ষ্যে বড় কোন ইনিংস পায়নি অস্ট্রেলিয়া। ব্যাট হাতে অসিদের জয়ে অবদান সবারই। যেখানে নেতৃত্ব দিয়েছেন এ্যারন ফিঞ্চ। মাত্র ৪ রানের জন্য সেঞ্চুরি পাননি। অস্ট্রেলিয়া ওপেনার আউট হয়েছেন ৯৬ রান করে। ১২৭ বলের ইনিংসে ছিল ৫টি চার ও ২টি ছক্কার মার। এছাড়া শেন ওয়াটসনের ৩৯ বলে ৪১, স্টিভেন স্মিথের ৫২ বলে ৪৭ রানের ইনিংস দুটি দারুণ কার্যকর ভূমিকা রাখে। মার কাটারি ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ২২ বলে ২৪ ও পাঁচ নম্বরে নামা টি২০ তারকা গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ২৩ বলে ২০ রান করে দলকে জয়ের কাছাকাছি নিয়ে যান।

তবে ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান হিসেবে ম্যাক্সওয়েল যখন সাজঘরে ফেরেন ৩.৩ ওভারে তখনও ২০ রান প্রয়োজন বেইলিদের। দারুণ চাপ জয় করে এক ওভার আগেই দলকে জয় এনে দেন শেষ জুটি ব্র্যাড হ্যাডিন ও জেমস ফাকনারা। অভিজ্ঞ হ্যাডিন ১১ বলে ১৩ ও ৯ বলে ৯ রান নিয়ে অপাজিত থাকেন ফাকনার। ভারতের হয়ে উমেশ যাদব নেন ২ উইকেট। তার আগে ভারতের ব্যাটিং ছিল কেবলই রোহিত শর্মাময়। ওয়ানডের ইতিহাসে দুটি ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানো একমাত্র ক্রিকেটার এদিনও ব্যাট চালান স্বভাবসুলভ স্টাইলে। ১৩৯ বলে ৯ চার ও ৪ ছক্কায় ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে আউট হন ১৩৮ রানে। ২০০৭-০৮ মৌসুমে শচীন টেন্ডুলকরের পর অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে কোন ভারতীয় ওপেনারের প্রথম সেঞ্চুরি এটি, মেলবোর্নে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ। এক পর্যায়ে ৩৫ ওভারে মাত্র ৩ উইকেট হারিয়ে ১৮৫ রান তুলে নেয় বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। মনে হচ্ছিল অসিদের রানের বন্যায় ভাসিয়ে দেবে ধোনির দল।

কিন্তু মিচেল স্টার্কের অসাধারণ বোলিংয়ের মুখে পৌনে তিন শ’ও করতে পারেননি ভারত। শেষ ১৫ ওভারে আরও ৫ উইকেট হারিয়ে অতিথিরা করতে পারে মোটে ৮২, শেষ ৫ ওভারে ৩০ রান! রোহিত ছাড়া উল্লেখযোগ্য রান সুরেশ রায়নার। ৬৩ বলে ৬ চারের সাহায্যে ৫১ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। অধিনায়ক ধোনির ব্যাট থেকে আসে ১৯, ১৪ রানে অপরাজিত থাকেন অশ্বিন। এছাড়া বলার মতো স্কোর নেই। ২৬৭/৮Ñ মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ভারতের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ। তবে ইনফর্ম অস্ট্রেলীয় ব্যাটসম্যানদের বিপক্ষে জয়ের জন্য এ রান মোটেই যথেষ্ট ছিল না। ঘুড়িয়ে বললে যথেষ্ট হতে দেননি স্টার্ক! ১০ ওভারে ৪৩ রান দিয়ে ৬ উইকেট, স্টার্কের ক্যারিয়ারসেরা বোলিং। ঘরের মাটিতে ভারতের বিপক্ষে কোন অস্ট্রেলিয়ান বোলারেরও এটি সেরা নৈপুণ্য!

প্রকাশিত : ১৯ জানুয়ারী ২০১৫

১৯/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: