মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

ফ্যাশনেবল ব্লেজার

প্রকাশিত : ১৬ জানুয়ারী ২০১৫
  • তৌফিক অপু

এই শীতে হিমেল হাওয়া কাঁপন ধরায় পুরো শরীরে। শীত থেকে বাঁচতে গরম কাপড় কেনারও হিড়িক পড়েছে। দোকানিরাও ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন শীতের পোশাক বিক্রিতে। দিন দিন বাড়ছে ক্রেতার সমাগম। গ্লোবালাইজেশনের যুগে পরিবর্তনের হাওয়া লেগেছে স্থান-কাল-পাত্রে। সে হাওয়া দোল দিয়ে গেছে শীতের পোশাকেও। একটা সময় ছিল শীত নিবারণের জন্য শুধু গরম কাপড়কেই প্রাধান্য দেয়া হতো। সেটা দেখতে কেমন সেটা মুখ্য ছিল না। সে অবস্থারই পরিবর্তন ঘটেছে। শীতের পোশাক এখন শীত নিবারণের জন্যই নয়, তা এখন রূপ নিয়েছে ফ্যাশনে। রীতিমতো চোখ ধাঁধানো শীতের পোশাক এখন শোভা পাচ্ছে বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে। তেমনি একটি ফ্যাশনেবল ড্রেস হচ্ছে ব্লেজার। তরুণ-তরুণী থেকে শুরু করে সব বয়সীদের শীতের মধ্যে পছন্দের শীর্ষে থাকে ব্লেজার। রেডিমেড কিংবা বানানো যেভাবেই হোক না কেন এই শীতে ব্লেজার যেন চাই-চাই। ফ্যাশন হাউসগুলোতেও শীতের কথা মাথায় রেখে তাদের কামরা সাজিয়েছে একেবারে নতুন ডিজাইন ও বৈচিত্র্যময় ব্লেজার দিয়ে, যা খুব সহজেই ক্রেতাকে আকৃষ্ট করে। বিভিন্ন কাপড়ের সমন্বয়ে তৈরি যা খুবই ফ্যাশনেবল এবং শীতও দূর হবে। বিভিন্ন রঙ, ডিজাইনে এবং সাইজে প্রস্তুত করা হয়েছে ব্লেজার। একটি থেকে আরেকটির ভিন্নতা লক্ষণীয়। ল্যান্ডমার্ক শোরুমে বিক্রয় প্রতিনিধি মামুন বলেন, এই শীতে তরুণদের কথা চিন্তা করে আমাদের ফ্যাশন হাউস বাজারে এনেছে ব্লেজার কাম জ্যাকেট, যা খুবই আকর্ষণীয় এবং ফ্যাশনেবল। ছেলেমেয়ে উভয়রই জন্য তৈরি এই ব্লেজার চীন এবং থাইল্যান্ড থেকে আমদানি করা হয়েছে। বিভিন্ন রঙে আচ্ছাদিত এই ব্লেজার শীত নিবারণ ছাড়াও যে কোন ধরনের অনুষ্ঠানে ব্যবহার উপযোগী। নিজেকে আকর্ষণীয় করে তুলতে এসব ব্লেজারের যেন জুড়ি নেই। ডে-ওয়ান সিনের সেলস ম্যানেজার ওয়াহিদ বলেন, সাধারণত দুই ধরনের ব্লেজার এখন বাজারে প্রচলিত। এদের মধ্যে কলার বা শার্ট ব্লেজার অন্যটি অফিসিয়াল ব্লেজার। অর্থাৎ এক ধরনের ব্লেজার জিন্স, গ্যাভার্ডিন, টি-শার্ট, পলো শার্টের সঙ্গে অনায়াসেই পরা যায়। এই সব ব্লেজারের লুকটা থাকে রাফ এ্যান্ড টাফ। সাধারণত স্টুডেন্টরা এ ধরনের ব্লেজার বেশি পছন্দ করে থাকে। ক্যাম্পাসে কিংবা বন্ধুদের আড্ডায় নিজেকে অন্যান্যভাবে উপস্থাপন করা যাবে ব্লেজারের মাধ্যমে। কটন এবং সিনথেটিকের ব্লেজারই এখন মার্কেটে বেশি। দামও হাতের নাগালে। বসুন্ধরা সিটিতে ব্লেজার মিলবে ২৫০০ টাকা থেকে ৬,৫০০ টাকা, রাপা প্লাজায় ২,১০০ টাকা ৫,০০০ টাকা ও চন্দ্রিমায় ১৫০০ টাকা থেকে ৪০০০ টাকা। নিয়মিত অফিস যাঁরা করে থাকেন তাদের জন্যও ফ্যাশন হাউসগুলো চমৎকার ব্লেজার সাজিয়ে রেখেছে। এ্যাশ, ব্ল্যাক, হোয়াইট, অফহোয়াইট এবং ব্লু কালারের ব্লেজারের সংখ্যাই বেশি। আকর্ষণীয় এসব ব্লেজার অফিসিয়াল পরিবেশে দারুণভাবে মানানসই। দুই বোতাম, তিন এবং চার বোতামের ব্লেজার রয়েছে বাজারে। পছন্দসই যে কোন ব্লেজারটি নিজের করে নেয়ার অপেক্ষায়। অফিসিয়াল ব্লেজারগুলোর দাম পড়বে ২,৩০০ টাকা থেকে ৮,০০০ টাকা পর্যন্ত। এ ছাড়া নিজের মাপ অনুযায়ী বানিয়ে নিতে পারেন যে কোন টেইলার্স থেকে। এক্ষেত্রে, সানমুন, রেড এ্যান্ড রিবন, এবিএম টেইলার্স ও টপটেন অন্যতম। বানাতে গেলে খরচ একটু বেশি পড়লেও নিজের মনমতো ব্লেজার পরার আনন্দ উপভোগ করা যায়। ছেলেদের ব্লেজারের তুলনায় মেয়েদের ব্লেজার একটু আলাদা থাকে। মেয়েদের ব্লেজার কোমরের দিকে একটু চাপা হয়। ছেলেদের ব্লেজার নিচে দুটো পকেট ছাড়াও একটি বুক পকেট থাকে। কিন্তু মেয়েদের ব্লেজারে কোন বুক পকেট তাকে না। শুধু নিচে দুটো পকেট থাকে। মেয়েদের ব্লেজার পাওয়া যাবে ১৮০০ টাকা থেকে ৫০০০ টাকায়। তারুণ্যের উদ্দীপনার কথা মাথায় রেখে ফ্যাশন হাউসগুলো নিত্যনতুন ডিজাইনের ব্লেজারের সমাহার ঘটিয়েছে। ফ্যাশনে যোগ হয়েছে এক নতুন মাত্রা।

মডেল: প্রতীক ও লায়লা

প্রকাশিত : ১৬ জানুয়ারী ২০১৫

১৬/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: