মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

অশুভ শক্তিকে প্রতিহত করতে আমাদের সেনাবাহিনী প্রস্তুত

প্রকাশিত : ১৬ জানুয়ারী ২০১৫
অশুভ শক্তিকে প্রতিহত করতে আমাদের সেনাবাহিনী প্রস্তুত
  • রাজবাড়ীতে শীতকালীন মহড়ার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

ফিরোজ মান্না/আহসান হাবিব, রাজবাড়ী থেকে ॥ গড়াই নদীর তীরে যুদ্ধটা ছিল লাল ও নীল দেশের মধ্যে। নীল দেশ (বাংলাদেশ) অর্থনৈতিক সামাজিক রাজনৈতিক সাংস্কৃতিক দিক দিয়ে অনেক বেশি অগ্রগামী হয়ে উঠছে। এই অগ্রযাত্রাকে লাল দেশ কোনভাবেই মেনে নিতে পারছিল না। ক্রমেই দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কের টানাপোড়েন দেখা দেয়। হঠাৎ একদিন নীল দেশের চার পাশে লাল দেশ সৈন্য মোতায়েন করে। এতে নীল দেশের সৈন্যরা লাল দেশের সৈন্যদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। নীল দেশ আকাশ স্থল জলে লাল দেশের সৈন্যদের উপর আক্রমণ চালায়।

ঘটনাটি সত্যি না হলেও বৃহস্পতিবার রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার নারুয়া ইউনিয়নে সোনাকান্দায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর শীতকালীন প্রশিক্ষণের শেষ দিনে এমনই এক যুদ্ধের দৃশ্য টানা ৪৫ মিনিট ধরে চালানো হয়। ৫৫ পদাতিক ডিভিশন ৮ হাজারেরও বেশি সেনা সদস্য নিয়ে এই মহড়া শুরু করে গত ২১ ডিসেম্বর। চলে টানা ২৪ দিন। শেষ দিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি থেকে মহড়ার সমাপ্তি ঘটান।

মুখোমুখি দুই পক্ষ। মাঝখানে নদী। আকাশে উড়ছে মিগ-২৯। জল ও স্থলে অত্যাধুনিক ট্যাংক। মুহুর্মুহু গুলি। এরই মাঝে আহত সেনা সদস্যদের চিৎকার। পানির বাঁধা পেরিয়ে শত্রুর দখল করা জায়গা পুনর্দখল নিতেই এ যুদ্ধ। ৮ হাজার সৈন্যের অস্ত্রের ঝনঝনানি। রাজবাড়ীর প্রত্যন্ত অঞ্চল বালিয়াকান্দিতে সেনাবাহিনীর ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের তত্ত্বাবধানে সংঘটিত হয় রক্তপাতহীন ভয়ঙ্কর গোলাগুলি। মিগ-২৯, এমআই-১৭ ও বেল-২০৬ বিমানের গোলাবর্ষণে মুহুর্মুহু কেঁপে উঠছিল যুদ্ধস্থান। সেনাবাহিনীর পোশাক পরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে শেষ হয় অনুশীলন দূর্জয় বাংলার। ২১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়ে টানা ২৬ দিন পর বৃহস্পতিবার শেষ হয় সেনাবাহিনীর এ শীতকালীন মহড়া। এ অনুশীলন সমাপনী দেখাতে ঢাকা থেকে নেয়া হয় প্রায় ৮০ জন সংবাদকর্মীকে। সেনাবাহিনীর কোন মহড়ায় বিপুলসংখ্যক সাংবাদিকের উপস্থিতি এটাই প্রথম। এদিকে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব) তারিক আহমেদ সিদ্দিক, সেনাবাহিনীপ্রধান জেনারেল ইকবাল করিম ভুঁইয়া, নৌবাহিনীপ্রধান ভাইস এডমিরাল মুহাম্মদ ফরিদ হাবিব, বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার মার্শাল মোহাম্মদ ইনামুল বারীসহ উচ্চপদস্থ সামরিক, বেসামরিক ও বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক। বিএনপির জোটের ডাকা টানা অবরোধ ও হরতালের কারণে অনুষ্ঠান ঘিরে গড়ে তোলা হয় কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনি। শুধু রাজধানী থেকে নেয়া হয় ৩০ সদস্যের একটি গোয়েন্দা দল। সেনাবাহিনীর নিরাপত্তায় অন্য অতিথিদের নেয়া হয় অনুষ্ঠানস্থলে।

এদিকে অনুশীলন মহড়া শেষে যশোর অঞ্চলের তিন হাজার সেনাবাহিনী সদস্যের দরবারে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এতে সেনা সদস্যদের পক্ষ থেকে কোন বক্তব্য দেয়া হয়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রায় ১০ মিনিট তাদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, এই মহড়া ৫৫ পদাতিক ডিভিশন তথা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পেশাদারিত্বের উজ্জ্বল স্বাক্ষর বহন করছে। আমি নিশ্চিত, দেশের অখ-তা রক্ষায় যে কোন অশুভ শক্তিকে দৃঢ়ভাবে প্রতিহত করতে আমাদের সেনাবাহিনী সম্পূর্ণভাবে প্রস্তুত রয়েছে। সেনাবাহিনী পেশাগত কর্মকা-ের পাশাপাশি দেশ ও জাতির প্রয়োজনে অর্পিত দায়িত্ব পালন করে আসছে। গত নির্বাচনের সময় আমাদের দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব নিরপেক্ষ ও দক্ষতার সঙ্গে পালন করে গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখতে সহযোগিতা করেছে। তিনি বলেন, প্রতিরক্ষা বাহিনী জয়ী হতে পারে যদি তারা মানুষের বিশ্বাস ও আস্থা অর্জন করতে পারে। আমাদের রাজনীতিবিদদের জন্য এটা যেমন প্রয়োজন একইভাবে সাধারণ মানুষের উন্নয়নের জন্যও প্রয়োজন। তিনি বলেন, একটি আধুনিক ও চৌকস সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তুলতে আমাদের সরকার বদ্ধপরিকর। এজন্য ১৯৭৮ সালে জাতির পিতা প্রণীত প্রতিরক্ষা নীতির আলোকে ফোর্সেস গোল ২০৩০ প্রণয়ন করেছি। এটা পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। তিনি বলেন, এরই মধ্যে সিলেটে ১৭ পদাতিক ডিভিশন এবং রামুতে ১০ পদাতিক ডিভিশন প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। রাজবাড়ী এবং পটুয়াখালীর লেবুখালিতে সেনানিবাস স্থাপনের কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে। পদ্মা সেতুর নির্মাণ ও নিরাপত্তার জন্য একটি কম্পোজিট ব্রিগেড প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, সামরিক বাহিনীর জন্য অত্যাধুনিক সরঞ্জামাদি যেমন- এমপি গান, এটিজি ডব্লিউ, উইপেন লোকেটিং রাডার, এমবিআরএল, এআরভি এবং এমবিটি ২০০০ ট্যাংক সংগ্রহ করা হয়েছে। সেনা সদস্যদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার অংশ হিসেবে সেনাবাহিনীকেও ডিজিটালাইজড করা হচ্ছে। সেনাবাহিনীর প্রতিটি স্তরে ইন্টারনেট সুবিধা দেয়া হয়েছে। ২০১২ সালে আর্মি ইনফরমেশন টেকনোলজি সাপোর্ট অর্গানাইজেশন প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। একইভাবে বিমান বাহিনী এবং নৌবাহিনীর আধুনিকায়নের জন্য বিভিন্ন কর্মসূচী বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। সেনাবাহিনীর জন্য নেয়া বিভিন্ন কর্মসূচী তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এবার দায়িত্ব নেয়ার পর সেনা সদস্যদের রসদ বৃদ্ধি করে বিমান বাহিনী এবং নৌবাহিনীর সমান করেছি। এছাড়া অস্থায়ী কর্তব্য পালনের জন্য জেসিও ও অন্যান্য পদবীর সৈনিকদের দৈনিক ভাতা, ইন এইড টু সিভিল পাওয়ার এ দায়িত্ব পালনের দৈনিক ভাতা এবং এলপিআর এর সময়কাল ৪ থেকে ৬ মাস বৃদ্ধি করার প্রস্তাব অনুমোদন করেছি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি জেনে খুশি হয়েছি যে পূর্বের মতো এবারের প্রশিক্ষণেও আনসার এবং বিএনসিসি ক্যাডেটদের সম্পৃক্ত করা হয়েছে। আধা-সামরিক বাহিনী ও জনগণের অংশগ্রহণের মাধ্যমে মাতৃভূমি রক্ষার এ কৌশল আমাদের সেনাবাহিনীর রণকৌশলকে ভিন্ন ও প্রশংসনীয় মাত্রা যুক্ত করেছে বলে মনে করি।

অনুশীলন শুরু হওয়ার আগে বক্তব্য রাখেন ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং ও যশোর এরিয়ার এরিয়া কমান্ডার মেজর জেনারেল এস এম মতিউর রহমান। সেনাবাহিনী জানিয়েছে, এ্যসল্ট রিভার ক্রসিং অনুশীলন ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের সার্বিক পরিকল্পনা ও প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়। এতে এ্যসল্ট ব্রিগেডের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিল ১০৫ পদাতিক ব্রিগেড। এর অধীনস্থ ১৭ বাংলাদেশ ইনফ্যান্ট্রি রেজিমেন্ট, ২২ বাংলাদেশ ইনফ্যান্ট্রি এবং ২৫ ইস্ট বেঙ্গল এ্যসল্ট ব্যাটালিয়ন হিসেবে গড়াই নদী অতিক্রম করে। অনুশীলনের সার্বিক পারাপার কার্যক্রম পরিচালনায় নিয়োজিত ছিল ৮ ইঞ্জিনিয়ার ব্যাটালিয়ন। এছাড়াও ১২ ল্যান্সারের একটি স্কোয়াড্রন এবং ১৯ ইস্ট বেঙ্গল অনুশীলনে অংশ নেয়। এছাড়া ২৬ ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারি প্রত্যক্ষ ফায়ার সহায়তা এবং ২১ এয়ার ডিফেন্স রেজিমেন্ট আর্টিলারি আকাশ প্রতিরক্ষা দেয়। একই সঙ্গে প্যারা কমান্ডো ব্যাটালিয়নের চৌকস কমান্ডো দল, আর্মি এভিয়েশন গ্রুপের হেলিকপ্টার এবং বিমান বাহিনীর অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান অনুশীলনে অংশ নেয়।

চোখ ধাঁধানো এই মহড়া চলাকালে আশপাশের গ্রামের মানুষদের ঘর থেকে বের হতে নিষেধ করা হয়েছিল। লাল দেশ আর নীল দেশের মধ্যে যুদ্ধ শেষে গ্রামবাসীদের বিকেলে ঘর থেকে বাইরে বের হওয়ার অনুমতি দেয়া হয়।

প্রকাশিত : ১৬ জানুয়ারী ২০১৫

১৬/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: