মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

এক সপ্তাহের মধ্যেই সব ঠিক হয়ে যাবে ॥ অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত : ১৬ জানুয়ারী ২০১৫

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি (বিএনপি-জামায়াতের সহিংসতা) আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ঠিক হয়ে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, গত একটি বছর বেশ ভাল গেছে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতি যে দীর্ঘায়িত হবে সেটা আমি বুঝতে পারিনি। তবে আাগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে বলে আমি আশাবাদী। তবে এটা আমার ব্যক্তিগত আশাবাদ।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) রাষ্ট্রদূত পিয়েরে মায়াউডনের সঙ্গে সাক্ষাত প্রদান শেষে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, রাজনৈতিক যে কোন ধরনের কর্মকা- অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলে। দেশের অর্থনীতির জন্য এগুলো নারকীয় (হ্যালিশ)। বিএনপির কর্মকা-কে স্টুপিড এ্যাকটিভিটি মন্তব্য করে তিনি বলেন, চলমান পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে সরকারের করণীয় কিছু থাকতে পারে। তবে আমি এ বিষয়ে কিছু জানি না। তিনি বলেন, দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ইইউ। তবে আমি বলেছি যে, এ পরিস্থিতিতে আমরাও কিছুটা উদ্বিগ্ন।

ব্যবসায়ীরা হরতাল-অবরোধ বন্ধে আইনগত পদক্ষেপ নেয়ার কথা বলছেন এবং এ বিষয়ে আইন প্রণয়নের কথা বলছেন সাংবাদিকদের এ কথার জবাবে তিনি বলেন, এটি একটি ভাল প্রস্তাব। চাইলে তাঁরা আদালতে যেতে পারেন। এটা একটা চাপ হবে। আমি তাঁদের সমর্থন দেব।

ইইউ রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে অন্যান্য বিষয় নিয়ে আলোচনা প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, অন্যান্য বিষয়ে তাঁরা ভাল কথা বলেছেন। তবে একটি খারাপ খবর তাঁরা দিয়েছেন। সেটা হচ্ছে ইইউ’র অর্থায়নে পরিচালিত ‘স্ট্রেংদেনিং পাবলিক ম্যানেজমেন্ট প্রোগ্রাম’ (এসপিএমপি) তাঁরা আর অব্যাহত রাখতে চান না। এটা চলতি অর্থবছর শেষ হয়ে যাবে। তিনি বলেন, বাজেট রিফর্ম প্রোগ্রাম এসপিএনপিতে ফান্ড দেবে না ইইউ। যা আমাদের জন্য দুঃসংবাদ। এ প্রকল্পটি অনেক ভাল। যা ১৯৯৪ সালে শুরু হয়। এর মাধ্যমে বাজেট প্রণয়ন ও ব্যয়ের কর্মপরিকল্পনা আধুনিকায়নের কাজ করা হয়। প্রকল্পটি চালু রাখতে অন্য দাতা সংস্থার সঙ্গে আলোচনা করা হবে বলে জানান তিনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, এছাড়া বাজেট প্রণয়ন ও ব্যয় সংক্রান্ত এটা একটি সংস্কার কর্মসূচী। এ ধরনের সংস্কার কর্মসূচী দীর্ঘমেয়াদে অব্যাহত থাকা উচিত। আগামী ২০১৫-১৬ অর্থবছর থেকে এ কর্মসূচীতে ইইউ অর্থায়ন না করলেও বাজেটে যাতে বরাদ্দ রাখা যায় সেটা বিবেচনায় রাখবে সরকার। তিনি বলেন, এ কর্মসূচীর ফলে উপজেলা পর্যায় থেকে সারাদেশে প্রতিদিন বাজেটের কত টাকা খরচ হচ্ছে তা অর্থ মন্ত্রণালয়ে বসেই জানা যাচ্ছে। তাই এই কর্মসূচী চালু রাখা প্রয়োজন।

প্রকাশিত : ১৬ জানুয়ারী ২০১৫

১৬/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: