আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বিরূপ আবহাওয়ায়ও পিঁয়াজের ফলন বেড়েছে

প্রকাশিত : ১৬ জানুয়ারী ২০১৫

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাইবান্ধা, ১৩ জানুয়ারি ॥ জেলার সুন্দরগঞ্জ, সাঘাটা, ফুলছড়ি ও সদর উপজেলার তিস্তা, বহ্মপুত্র ও যমুনা নদীর তীরবর্তী চরাঞ্চলগুলোতে এবার বিরূপ আবহাওয়া সত্ত্বেও ছিটা পিঁয়াজের বাম্পার ফলন হয়েছে। বাজারে নতুন পিঁয়াজের চাহিদা থাকায় চরাঞ্চলের কৃষকরা বর্তমানে ছিটা পিঁয়াজ বাজারে বিক্রি করে যথেষ্ট লাভবান হচ্ছেন। তদুপরি বাজারে পিঁয়াজের সঙ্কট নিরসনেও আগাম ছিটা পিঁয়াজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ বছর চরাঞ্চলসহ জেলায় প্রায় ৫শ’ হেক্টর জমিতে ছিটা পিঁয়াজের চাষাবাদ করা হয়েছে। যেগুলো এখন উঠতে শুরু করেছে। তবে জমিতে বপনকৃত পিঁয়াজের আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত হয়েছে ১ হাজার ৬শ’ হেক্টর জমিতে। এ পর্যন্ত ১ হাজার ২শ’ হেক্টর জমিতে বপনকৃত পিঁয়াজ চাষ করা হয়েছে। জানুয়ারি মাস নাগাদ এই পিঁয়াজ লাগানোর কাজ চলবে এবং বপনকৃত পিঁয়াজ জমি থেকে উত্তোলন করা যাবে এপ্রিল-মে মাসে।

তবে জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার চরাঞ্চলে এবার ছিটানো পিঁয়াজের ব্যাপক আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে লাঠশালার, খোর্দ্দার, নিজামখাঁর, চর চরিতাবাড়ি, বেলকা নবাবগঞ্জের, রিয়াজ মিয়ার, হাট-হাজারির, উজান বোচাগাড়ির, ভাটি বুড়াইল, চর বিরহিম, হরিপুর, বাদামের চর, কালাই সোতা, ফকিড়েরটারি, কোরানি, ভোড়ের পাখিসহ বিভিন্ন চরে ছিটা পিঁয়াজের চাষাবাদ হয়েছে অপেক্ষাকৃত বেশি। উল্লেখ্য, বর্তমানে বাজারে প্রতিকেজি ছিটা পিঁয়াজ পাতাসহ বিক্রি হচ্ছে ৩০ হতে ৪০ টাকা এবং পাতা ছাড়া প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ হতে ৬৫ টাকা মূল্যে।

শিক্ষা ও স্বরাষ্ট্র সচিব আইজিপিসহ সাত কর্মকর্তাকে শোকজ

চরফ্যাশনে কলেজে তালা

নিজস্ব সংবাদদাতা, চরফ্যাশন, ভোলা, ১৫ জানুয়ারি ॥ ভোলার চরফ্যাশনের দুলারহাট কলেজে সন্ত্রাসী কর্তৃক তালা ঝুলিয়ে একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়ার ঘটনায় প্রশাসন কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় অভিযোগে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর, পুলিশের আইজিপি, ভোলা জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, চরফ্যাশন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও থানার অফিসার ইনচার্জকে শোকজ করেছে হাইকোর্ট।

তাদের কলেজের তালা খুলে দিয়ে একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনার ব্যবস্থা গ্রহণসহ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন তা পত্র পাওয়ার চার সপ্তাহের মধ্যে জবাব দেয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

গত ১৫ ডিসেম্বর বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি মোঃ জাহাঙ্গির হোসেনের হাইকোর্ট বেঞ্চে দুলারহাট কলেজের অধ্যক্ষ একেএম শাহে আলম খোকনের দায়ের করা রিট পিটিশনের ভিত্তিতে ওই আদেশ দেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের শোকজের কপি হাতে পেয়ে বুধবার কলেজ অধ্যক্ষ চরফ্যাশন থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)কে এর সত্যায়িত কপি দেন। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার সময় থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কলেজ পরিদর্শনে যান। ওসি কলেজ পরিদর্শনে যাওয়ার সংবাদ পেয়ে সন্ত্রাসীরা কলেজের মূল ফটকে ঝুলিয়ে দেয়া তালা খুলে নিয়ে যায়।

প্রকাশিত : ১৬ জানুয়ারী ২০১৫

১৬/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: