মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

শ্রেষ্ঠত্বের মঞ্চে চূড়ান্ত সব দল ॥ ক্রিকেট বিশ্বকাপ-২০১৫

প্রকাশিত : ১৪ জানুয়ারী ২০১৫
  • মোঃ নুরুজ্জামান

সাদা চোখে দেখলে স্বল্পদৈর্ঘীয় ক্রিকেটের সেরা অস্ট্রেলিয়া-ভারত। সর্বশেষ আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ দুটি দল, এরপর দক্ষিণ আফ্রিকা। আলোচনা যখন ওয়ানডে ও বিশ্বকাপ নিয়ে তখন র‌্যাঙ্কিং-পরিসংখ্যানই সব নয়। তবে কাতালীয় হলেও বর্তমান র‌্যাঙ্কিং-শ্রেষ্ঠত্বের সঙ্গে স্বাগতিক হওয়ায় এবারের আয়োজনে হট-ফেবারিট হিসেবে নামবে অসিরা। ভারত বর্তমান চ্যাম্পিয়ন, ‘চির চোকার’ দক্ষিণ আফ্রিকার নাম বরাবরই ফেবারিটের তালিকায়। ক্রিকেট গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা, যেখানে পঞ্চাশ ওভারেরর ধুন্ধুমার ওয়ানডে আরও বেশি অনিশ্চয়তায় ভরা। পনের সদস্যের চূড়ান্ত স্কোয়াড বেছে নেয়ার পর দলগুলোর শক্তি-সামর্থ্য সম্ভাবনা নিয়ে বইছে আলোচনা-সমালোচনার ঝড়। যুবরাজ সিং, ডোয়াইন ব্রাভো, এ্যালিস্টার কুকের মতো বাদপড়া তারকা ক্রিকেটারের সঙ্গে সেই আলোচনায় থাকছে নবীন আর চমকজাগানো সব নাম। ফেবারিটের তালিকায় আছে টি২০-এর বর্তমান চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কা। টি২০ বিশ্বকাপের আগে এশিয়ার বিশ্বকাপ খ্যাত এশিয়া কাপের শিরোপাও ঘরে তোলে এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের দল। বছরজুড়ে দলটির সার্বিক নৈপূণ্য অবশ্য মিশ্র। অধিনায়কের সঙ্গে ফর্মে আছেন দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মাহেলা জয়াবর্ধনে ও কুমার সাঙ্গাকারা। তবে প্রশ্ন থাকছে বোলিংয়ের পুরোধা লাসিথ মালিঙ্গাকে নিয়ে। ইনজুরি-অপারেশনের পর এখনও শতভাগ ফিট নন তিনি। সুস্থ হলেও আগের রিদমে ফিরতে পারবেন কি-না, সেই সংশয় থাকবে। আরেকটি বিশ্বকাপ সামনে রেখে আলোচনায় এগিয়ে ভারত। চূড়ান্ত দূরে থাকা প্রাথমিক দলেও জায়গা হয়নি গত বিশ্বকাপ জয়ের নায়ক যুবরাজ সিং ও অপর দুই তারকা গৌতম গাম্ভীর আর বিরেন্দর শেবাগের! ইনজুরি-অনিশ্চয়তায় অলরাউন্ডার রবিন্দ্র জাদেজা, কন্ডিশনও দলটির প্রতিকূলে। তবে ক্যাপ্টেন কূল মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে যেকোন কিছুই করার ক্ষমতা রাখে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। যেখানে আকর্ষণের কেন্দ্রে থাকবেন ফর্মের তুঙ্গে থাকা বিরাট কোহলি।

উপমহাদেশের অপর পরাশক্তি পাকিস্তান এবার বেশ বেসামাল অবস্থায় বিশ্বকাপ খেলতে যাচ্ছে। অধিনায়ক মিসবাহ-উল হক ও বর্ষীয়ান ইউনুস খানের ওয়ানডে স্ট্যামিনা নিয়ে প্রশ্ন আছে। অবৈধ বোলিং এ্যাকশনের জন্য দলে নেই তুখোড় স্পিনার সাঈদ আজমল। ঠিক একই কারণে থেকেও বোলিং করতে পারবেন না মোহাম্মদ হাফিজ। বড় ভরসা হবেন অললাউন্ডার শহীদ আফ্রিদি। যদিও ১৯৯২ সালে ইমরান খানের নেতৃত্বে হিসেবের বাইরে থেকেই বিশ্বজয় করেছিল পাকিস্তান। সুতরাং দলটি নিয়ে আগাম মন্তব্য সত্যি কঠিন!

অস্ট্রেলিয়া

মাইকেল ক্লার্ক (অধিনায়ক), জর্জ বেইলি (সহ-অধিনায়ক), ডেভিড ওয়ার্নার, এ্যারন ফিঞ্চ, শেন ওয়াটসন, স্টিভেন স্মিথ, ব্র্যাড হ্যাডিন (উইকেটরক্ষক), গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, মিচেল মার্শ, জেমস ফাকনার, মিচেল জনসন, মিচেল স্টার্ক, জোশ হ্যাজলউড, প্যাট কামিন্স, জাভিয়ের ডোহার্টি।

ভারত

মহেন্দ্র সিং ধোনি (অধিনায়ক, উইকেটরক্ষক), বিরাট কোহলি (সহ-অধিনায়ক), শিখর ধাওয়ান, রোহিত শর্মা, অজিঙ্কা রাহানে, সুরেশ রায়না, আমবাতি রাইডু, রবিন্দ্র জাদেজা, রবিচন্দ্রন আশ্বিন, অকশার প্যাটেল, ইশান্ত শর্মা, মোহাম্মদ শামি ও উমেশ যাদব।

দক্ষিণ আফ্রিকা

এবি ডি ভিলিয়ার্স (অধিনায়ক), হাশিম আমলা, কাইল এ্যাবোট, ফারহান বেহারডিয়েন, কুইন্টন ডি কক (উইকেটরক্ষক), জেপি ডুমিনি, ফাফ ডু প্লেসিস, ইমরান তাহির, ডেভিড মিলার, মরনে মরকেল, ওয়েন পারনেল, এ্যারন ফাঙ্গিসো, ভারনন ফিল্যান্ডার, রিলি রোজাউ ও ডেল স্টেইন।

শ্রীলঙ্কা

এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস (অধিনায়ক), লাহিরু থিরিমান্নে (সহ-অধিনায়ক), তিলকারতেœ দিলশান, কুমার সাঙ্গাকারা (উইকেটরক্ষক), মাহেলা জয়াবর্ধনে, দিনেশ চান্দিমাল, দিমুথ করুণারতেœ, জীবন মেন্ডিস, থিসারা পেরেরা, সুরাঙ্গা লাকমল, লাসিথ মালিঙ্গা, ধাম্মিকা প্রসাদ, নুয়ান কুলাসেকারা, রঙ্গনা হেরাথ ও সচিত্র সেনানায়েকে।

ইংল্যান্ড

ইয়ন মরগান (অধিনায়ক), মঈন আলী, জেমস এ্যান্ডারসন, গ্যারি ব্যালান্স, ইয়ান বেল, রবি বোপারা, স্টুয়ার্ট ব্রড, জস বাটলার, স্টিভেন ফিন, এ্যালেক্স হেলস, ক্রিস জর্ডান, জো রুট, জেমস টেইলর, জেমস ট্রেডওয়েল ও ক্রিস ওকস।

নিউজিল্যান্ড

ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম (অধিনায়ক), কেন উইলিয়ামসন (সহ-অধিনায়ক), ট্রেন্ট বোল্ট, গ্র্যান্ট ইলিয়ট, টম লাথাম, মার্টিন গাপটিল, মিচেল ম্যাকলেনাঘান, নাথান ম্যাককুলাম, কাইল মিলস, এ্যাডাম মিলনে, ড্যানিয়েল ভেট্টরি, কোরি এ্যান্ডারসন, টিম সাউদি, লুক রনকি (উইকেটরক্ষক) ও রস টেইলর।

পাকিস্তান দল

মিসবাহ-উল হক (অধিনায়ক), আহমেদ শেহজাদ, মোহাম্মদ হাফিজ, সরফরাজ আহমেদ (উইকেটরক্ষক), ইউনুস খান, হারিস সোহাইল, উমর আকমল, শোয়েব মাকসুদ, শহীদ আফ্রিদি, ইয়াসির শাহ, মোহাম্মদ ইরফান, জুনায়েদ খান, এহসান আদিল, সোহেল খান ও ওয়াহাব রিয়াজ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ

জেসন হোল্ডার (অধিনায়ক), মারলন স্যামুয়েলস, সুলায়মান বেন, ড্যারেন ব্রাভো, জোনাথন কার্টার, শেলডন কটরেল, ক্রিস গেইল, সুনিল নারাইন, দিনেশ রামদিন (উইকেটরক্ষক), কেমার রোচ, আন্দ্রে রাসেল, ড্যারেন সামি, লেন্ডল সিমন্স, ডোয়াইন স্মিথ, জেরমো টেইলর

বাংলাদেশ

মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), মুশফিকুর রহীম (উইকেটরক্ষক), মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, তামিম ইকবাল, নাসির হোসেন, মুমিনুল হক, এনামুল হক বিজয়, তাসকিন আহমেদ, আরাফাত সানি, সাব্বির রহমান, সৌম্য সরকার, রুবেল হোসেন, তাইজুল ইসলাম ও আল-আমিন হোসেন।

জিম্বাবুইয়ে

লটন চিগম্বুরা (অধিনায়ক), সিকান্দার রাজা, রেগিস চাকাবভা, তেন্দাই চাতারা, চামু চিভাভা, ক্রেইগ অরভিন, তাফাদজোয়া কামুঙ্গোজি, হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, স্টুয়ার্ট মাতসিকানেরি, সলোমন মিরে, তাওয়ান্দা মুপারিওয়া, তিনাশে পানিয়াঙ্গারা, ব্রেন্ডন টেইলর, প্রসপার উৎসেয়া, শিন উইলিয়ামস।

আফগানিস্তান

মোহাম্মদ নবি (অধিনায়ক), নওরোজ মঙ্গল, আশঘর স্ট্যানিকজাই, সামিউল্লাহ শেনওয়ারি, আফসার জাজাই (উইকেটরক্ষক), নজিবুল্লাহ জাদরান, নাসির জামাল, মিরওয়াইজ আশরাফ, গুলবাদিন নবি, হামিদ হাসান, শাপুর জাদরান, দৌলত জাদরান, আফতাব আলম, জাভেদ আহমেদি, উসমান গনি।

স্কটল্যান্ড

প্রেস্টন মমসেন (অধিনায়ক), কাইল কোয়েতজার, রিচি ব্যারিংটন, ফ্রেডেরিক কোলম্যান, ম্যাথু ক্রস (উইকেটরক্ষক), জশ ডেভি, এ্যালাসডায়ার ইভান্স, হামিশ গার্ডিনার, মাজিদ হক, মাইকেল লেস্ক, ম্যাট ম্যাচান, ক্যালাম ম্যাকলিওড, সাফিয়ান শরিফ, রবার্ট টেলর, ইয়ান ওয়ার্ডল।

আয়ারল্যান্ড

উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড (অধিনায়ক), এ্যান্ড্রু ব্যালবির্নি, পিটার চেজ, এ্যালেক্স কুশক, এ্যান্ড্রু ম্যাক বার্নি, টিম মুরতাঘ, জর্জ ডকরেল, এড জয়েস, জন মুনি, কেভিন ও’ব্রেইন, নেইল ও’ব্রেইন (উইকেটরক্ষক), পল স্টারলিং, স্টুয়ার্ট থম্পসন, গ্যারি উইলিসন, ক্রেইগ ইয়াং।

আরব আমিরাত

মোহাম্মদ তৌকির (অধিনায়ক), খুররম খান (সহ-অধিনায়ক), স্বপ্নীল পাতিল, সাকলায়েন হায়দার, আমজাদ জাভেদ, শায়মান আনোয়ার, আমজাদ আলী, নাসির আজিজ, রোহান মোস্তফা, মানজুলা গুরুজি, এ্যান্ড্রি বেরেঙ্গার, ফাহাদ আল হাশমি, মোহাম্মদ নাভিদ, কামরান শেহজাদ ও কৃষ্ণ কারাতে।

প্রকাশিত : ১৪ জানুয়ারী ২০১৫

১৪/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: