আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

চট্টগ্রামে দুর্বৃত্তের চাপাতির কোপে নার্সিং কলেজের শিক্ষিকা খুন

প্রকাশিত : ১১ জানুয়ারী ২০১৫
  • পুলিশ বলছে হত্যাকাণ্ড রহস্যজনক

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ শনিবার সকালে বন্দরনগরী চট্টগ্রামে মুখোশধারী অজ্ঞাতানামা একদল দুর্বৃত্ত চাপাতি দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করেছে চট্টগ্রাম সরকারী নার্সিং কলেজের সিনিয়র শিক্ষিকা অঞ্জলি রানী দেবীকে (৫৮)। এ ঘটনার প্রতিবাদে নার্সিং কলেজের ছাত্রছাত্রীরা বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে। হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় এনে শাস্তির বিধান নিশ্চিত করার জন্য ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে। অন্যথায় বৃহত্তর কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে বলে হুঁশিয়ারি প্রদান করেছে।

সকাল পৌনে ৯টায় পাঁচলাইশ থানাধীন চকবাজার তেলিপট্টি লেনে ওঁৎপেতে থাকা দুর্বৃত্তরা এ হামলা চালায়। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, তেলিপট্টি লেনের একটি বাসায় থাকতেন অঞ্জলি রানী। সকাল সাড়ে ৮টায় তিনি বাসা থেকে বের হয়ে হেঁটে গলির মুখে রিকশা নেয়ার জন্য যাচ্ছিলেন। গলির মুখে পৌঁছার আগেই পূর্ব থেকে ওঁৎপেতে থাকা লাল ও কালো রঙের জ্যাকেট ও মুখোশ পরিহিত ৪ দুর্বৃত্ত তার ওপর হামলে পড়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। তার মাথায় ও ঘাড়ে এলোপাতাড়ি কোপানো হয়। চাপাতির কোপে অঞ্জলির মাথার চুলও পড়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এরপর দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। তার সঙ্গে ব্যাগ ও মোবাইল ফোন ছিল। দুর্বৃত্তরা এসব কিছুই নেয়নি। রক্তাক্ত ও মুমূর্ষু অবস্থায় অঞ্জলিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে বেলা ১২টার দিকে ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

অঞ্জলি দেবীর স্বামী রাজেন্দ্র লাল চৌধুরী একজন ডাক্তার। তার বাড়ি চট্টগ্রাম হাটহাজারীর ফতেয়াবাদে। আর অঞ্জলির বাড়ি রংপুরে। তাদের দুই কন্যা রয়েছে। জ্যেষ্ঠ কন্যা ঢাকা মেডিক্যাল এবং ছোট কন্যা চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রী। স্বামী রাজেন্দ্র লাল ফতেয়াবাদ প্রাইভেট প্র্যাকটিস করেন। ঘটনার পর পুলিশকে তিনি জানিয়েছেন, এলাকায় কারও সঙ্গে তাদের বিরোধ নেই। কি কারণে তার স্ত্রীকে এভাবে নৃসংশভাবে হত্যা করা হলো তার কোন কারণ জানা নেই।

পুলিশ সূত্রে জানানো হয়েছে, ঘটনাটি যেমন নৃসংশ তেমনি রহস্যজনকও। পুলিশ ঘটনার নেপথ্যে আপাতত তিনটি বিষয় খতিয়ে দেখছে। পুলিশ জানতে পেরেছে রাজেন্দ্র লালের আরও একটি স্ত্রী রয়েছে। তিনি চট্টগ্রামের অন্যত্র থাকেন। তবে একথা রাজেন্দ্র লাল এখনও স্বীকার করেননি। পারিবারিক ওই কারণে এ ঘটনা ঘটেছে কিনা তা দেখা হচ্ছে। পাশাপাশি কিছুদিন আগে চট্টগ্রাম নার্সিং কলেজে সদ্য বিদায়ী প্রিন্সিপালের বিরুদ্ধে ছাত্রছাত্রীরা বিক্ষোভ করেছিল। এ সময় নার্সিং হোস্টেলে পুলিশী অভিযানও চলে। ওই প্রিন্সিপালের অবসরগ্রহণের পর এখন নতুন প্রিন্সিপাল দায়িত্ব নিয়েছেন। তিনিও আগামী কয়েকমাসের মধ্যে অবসরে যাচ্ছেন। এর পরবর্তীতে সিরিয়াল অনুযায়ী অঞ্জলি রানীর এ দায়িত্ব পাওয়ার কথা। তিনি এ কলেজে একাধারে গত ২৩ বছর ধরে শিক্ষকতায় নিয়োজিত ছিলেন। তার হত্যাকা-ের সঙ্গে এ বিষয়টি জড়িয়ে রয়েছে কিনা তাও দেখা হচ্ছে। পাশাপাশি তার দুই কন্যার কাউকে নিয়ে কারও কোন বিরোধ ছিল কিনা সে বিষয়টিও দেখা হবে।

নার্সিং কলেজ সূত্রে জানানো হয়েছে, অঞ্জলি রানী নিরীহ প্রকৃতির ছিলেন। এরপরও স্বামী রাজেন্দ্র লাল পুলিশকে বলেছেন, কিছুদিন আগে এ কলেজে ছাত্রছাত্রীদের যে ক্লাস বর্জন, মিছিল মিটিং, প্রিন্সিপালের পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভের ঘটনা ঘটে ওই প্রক্রিয়ায় অঞ্জলির ভূমিকা কি ছিল এবং সে ব্যাপারে তিনি হত্যাকা-ের শিকার হলেন কিনা তাও খতিয়ে দেখতে অনুরোধ করেছেন। পাঁচলাইশ থানা পুলিশ জানিয়েছে, তারা কিছুটা বিস্মিত হয়েছেন অঞ্জলির মৃত্যুর পর স্বামী রাজেন্দ্র লাল স্ত্রীর মরদেহ নগরীর অভয়মিত্র শ্মশানে দাহ করার আগ্রহ ব্যক্ত করেন। কিন্তু পরবর্তীতে পারিবারিক চাপের মুখে ফতেয়াবাদে নিয়ে যেতে রাজি হন। এছাড়া স্ত্রীর পোস্টমর্টেম কাজেও তিনি অনীহা প্রকাশ করেন। পুলিশ যখন তাকে জানায় যে, অঞ্জলি একজন সরকারী চাকুরে ছিলেন ভবিষ্যতে তার পেনশনসহ অন্যান্য কাজে পোস্টমর্টেম রিপোর্টের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। তখন স্বামী এতে রাজি হন। এসব বিষয় পুলিশকে কিছুটা চিন্তিত করেছে। বিকেলে নিহত অঞ্জলির পোস্টমর্টেম সম্পন্ন হয়েছে। রাতের মধ্যে তাকে স্বামীর বাড়ি ফতেয়াবাদে নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি চলছিল।

প্রকাশিত : ১১ জানুয়ারী ২০১৫

১১/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: