হালকা কুয়াশা, তাপমাত্রা ১৮.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ভাল প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দিন

প্রকাশিত : ১১ জানুয়ারী ২০১৫
  • অগ্রণী ব্যাংকের সম্মেলনে ড. জায়েদ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ঝুঁকিপূর্ণ খাতে নয়, বরং ভাল ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দিতে ব্যাংকারদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. জায়েদ বখত। শনিবার সকালে রাজধানীর হোটেল পূর্বাণী ইন্টারন্যাশনালে অগ্রণী ব্যাংকের অঞ্চল প্রধান এবং কর্পোরেট শাখা প্রধানদের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি জানান, ডিপোজিট, রেমিটেন্স, মুনাফাসহ সব সূচকে এগিয়ে থাকা অগ্রণী ব্যাংক আগামীতে দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যাংকে পরিণত হবে।

অনুষ্ঠানে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিইও সৈয়দ আব্দুল হামিদের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন পরিচালক এ্যাডঃ বলরাম পোদ্দার, শামীম আহসান, মোঃ আলতাফ হোসাইন মোল্লা, এবিএম কামারুল ইসলাম, কেএমএন মানঞ্জুরুল হক লাবলু, ইঞ্জিঃ মোঃ আব্দুস সবুর, আরস্ত খান, অধ্যাপক ড. মোঃ আব্দুর রউফ সরদার। ড. জায়েদ বখত বলেন, ব্যাংক ঋণের ক্ষেত্রে প্রভাবশালী মহলের প্রভাব বিস্তার থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। ভাল উদ্যোক্তা ও প্রতিষ্ঠান খুঁজে বের করতে হবে। একই সঙ্গে পরিচালনা পর্ষদকে প্রভাবমুক্ত থাকতে হবে। ব্যাংকে মনিটরিং ব্যবস্থা আরও জোরদার করা হবে জানিয়ে অগ্রণী ব্যাংক চেয়ারম্যান বলেন, ডিপোজিট, এ্যাডভান্স, প্রোফিট সব ক্ষেত্রে ভাল করছে। অগ্রণী ব্যাংক আগামীতে এক নম্বর ব্যাংকের অবস্থান যাবে। তবে সবার আগে শ্রেণীকৃত ঋণ কমিয়ে আনতে ব্যাংকারদের আহ্বান জানান তিনি।

ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ আব্দুল হামিদ বলেন, ২০০৯ সালে যেখানে সম্পদ ছিল ১৮ হাজার কোটি টাকা সেখানে এখন সম্পদ বেড়ে হয়েছে প্রায় ৪৮ হাজার কোটি টাকা। সেইসঙ্গে আমাদের ব্যাংকের মূলধনের পর্যাপ্ততাও অনেক বেড়েছে। এর বৃদ্ধির হার এখন ১০.৮৮ শতাংশ। রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সব ব্যাংকের মধ্যে অগ্রণী ব্যাংকের মূলধনের ব্যাপ্তিটাই সবচেয়ে বেশি। তিনি বলেন, বিদায়ী ২০১৪ সালে ব্যাংকের কর পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ১১৪৯ কোটি টাকা। আগের বছর যা ছিল ১০৬০ কোটি টাকা। ২০১৪ সাল শেষে ব্যাংক আমানত দাঁড়িয়েছে ৪৪ হাজার কোটি টাকা। ২০১৩ সালে ছিল ৩৪ হাজার ৮৬৮ কোটি টাকা। তিনি আরও বলেন, ৩০৯টি শাখায় অটোমেটেড ক্লিয়ারিং হাউজের (বিএসিএইচ) সুবিধা রয়েছে। ২০১৫ সালের মধ্যে ব্যাংকের সকল শাখায় এই সুবিধা চালু করা হবে।

তিনি বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশীরা অগ্রণী ব্যাংকের ৯০৩ শাখার মাধ্যমে অনলাইনে রেমিটেন্স পাঠাচ্ছেন। রেমিটেন্স আহরণের দিক থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা অগ্রণী ব্যাংক ভবিষ্যতে প্রথম স্থান অর্জন করবে বলে জানান এমডি। ব্যাংকটির খেলাপি ঋণ প্রসঙ্গে ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, আগের তুলনায় খেলাপি ঋণের পরিস্থিতির বেশ উন্নতি হয়েছে।

প্রকাশিত : ১১ জানুয়ারী ২০১৫

১১/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: