কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলাহীনতায় বাকৃবির শিক্ষার্থীরা সেশনজটের কবলে

প্রকাশিত : ১০ জানুয়ারী ২০১৫

বাকৃবি সংবাদদাতা ॥ সেমিস্টার পদ্ধতিতে পাঠদান চালু হওয়ার পর প্রায় এক যুগে এবারই প্রথম সেশনজটে পড়েছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) প্রায় পঁাঁচ হাজার শিক্ষার্থী। শিক্ষাকার্যক্রমে গত বছরের রাজনৈতিক অস্থিরতার কোন প্রভাব না পড়লেও শুধুমাত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলতাহীনতার অভাবেই সেশনজটে পড়ে গভীর ক্ষোভ প্রকাশ করেছে শিক্ষার্থীরা। এদিকে প্রথমবারের মতো সেশনজটে পড়ে দীর্ঘ বার বছর ধরে শূন্য সেশনজট থাকার সুনামও হারিয়েছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার কৃষি শিক্ষার সর্বোচ্চ এই বিশ্ববিদ্যালয়টি।

শিক্ষার্থীরা জানান, ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের পর দেশের রাজনীতিতে চরম অস্থিরতার মাঝে ছিটেফোঁটাও লাগে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাকার্যক্রমে। ক্লাস-পরীক্ষা অব্যাহত রেখেও বছর শেষে সেমিস্টার শেষ করতে না পারাটাকে স্বাভাবিকভাবে দেখছেন না কেউই। শুধু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উদাসীনতা এবং তাকে পুঁজি করে ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠনের বেপরোয়া কার্যক্রমের কারণেই সেমিস্টার পদ্ধতি চালু হওয়ার এক যুগ পরে সেশনজটের সৃষ্টি হচ্ছে।

সেমিস্টার পদ্ধতিতে পাঠদান চালু হওয়ার পর থেকে দেখা যায়, ২০০২ সালে প্রথম সেমিস্টার পদ্ধতি চালু করার এক যুগে ২০০৭ সালে সেনা সদস্যদের হাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় সারাদেশে শিক্ষার্থীদের তীব্র আন্দোলনের মুখে ২০ দিন এবং ২০১৩ সালের ১৯ জানুয়ারি টেন্ডারবাজি ও নিয়োগ বাণিজ্যকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের গত কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যকার সংঘর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশের এলাকার শিশু রাব্বি নিহত হলে ওই এলাকাবাসীর তোপের মুখে পড়ে মাত্র ৩৮ দিন বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকে। শুধু এ বছরই, ১ এপ্রিল ছাত্রলীগের বেশ কয়েক নেতাকর্মীর পিটুনিতে মৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী ও একই সংগঠনের নেতা সায়াদ ইবনে মোমতাজ সাদের হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে ২৩ দিন এবং মে মাসে ছাত্রলীগের এক নেতার বিরোদ্ধে এক শিক্ষককে মানহানির করার অভিযোগে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে ৭ দিন ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ থাকে। পরবর্তীতে শিক্ষার্থীদেও যে কোন আন্দোলন ঠেকাতে ছুটিকে দীর্ঘায়িত করে বিশ্ববিদ্যালয় আরও ৩৫ দিনের ছুটি ঘোষণা করে প্রশাসন। ফলে সেশনজটহীন এ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমবারের মতো চার বছরে ¯œাতক কোর্স শেষ করতে সাড়ে চার বছর লেগে যাচ্ছে। এদিকে অতিরিক্ত সেমিস্টার ফি প্রত্যাহারের দাবিতে আন্দোলন করেও কোন ফল না পাওয়া ২য় বর্ষের শিক্ষার্থীদের অবস্থা আরও করুণ। এখনও ক্লাস টেস্ট পরীক্ষাই শুরু করতে পারেনি তারা।

ইতোমধ্যে শিক্ষার্থীরা সেশনজটে পড়েছেন বলে জানিয়েছেন ডিন কাউন্সিলের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মেজবাউদ্দিন আহমেদ। এ বিষয়ে প্রশাসনের দুর্বলতার কথা অস্বীকার করে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ রফিকুল হক বলেন, ‘জট কমিয়ে আনতে এবার শিক্ষার্থীদের শীতকালীন অবকাশ পর্যন্ত দেয়া হয়নি। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পূর্ণ সহযোগিতা থাকলে জট থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।’

প্রকাশিত : ১০ জানুয়ারী ২০১৫

১০/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: