কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

পঙ্ক্তিমালা

প্রকাশিত : ৯ জানুয়ারী ২০১৫

বিপ্লবী

আলমগীর রেজা চৌধুরী

যুদ্ধংদেহী পরিবেশ তেড়ে এসে ঘুম ভেঙ্গে দিয়ে যায় প্রতিদিন

আমি মুয়াজ্জিনের আযান শুনিনি, দেখিনি ভোরের সুষমাম-িত দৃশ্যাবলী।

চোখে রগড় কাটতে দৃশ্যমান সামরিক কনভয় ছুটে যায়-

শঙ্কিত মুখ, ভয়ার্ত জীবন থেকে যে কেউ পালাতে পারে অনায়াসে

শুধু কিছু কিছু মানুষ পারে না। ভালোবাসার মোহন স্বপ্নছায়া

থেকে একজন ফরাসি দ্রুত অশ্ব ছুটিয়ে রণক্ষেত্রে মুখোমুখি হয়,

একজন নেরুদা কবিতায় মানুষের মুক্তির জন্যে অন্ধ সেলে প্রতীক্ষা করে,

একজন বরকত গুলিবিদ্ধ হয়; তার দু’চোখে বাংলাদেশ কথা বলে ওঠে।

তেমনি করে পলাতক বিপ্লবী প্রতিদিন শাণিত সময়ের অপেক্ষা করে।

দৃশ্যান্তর

চন্দনকৃষ্ণ পাল

সমুদ্রে ম্লান করে তুমুল পাহাড়

গাঙচিল শিষ ছুড়ে রোদ্র শরীরে

ছায়া ছায়া ঝাউবিথী অলস পুঞ্জ চোখে

পুচ্ছ নাচায়,

শুকনো মাছের গন্ধে উৎসবে মাতে মৎস্যজীবী।

নুনের ভালোবাসা তুমুল ছিটায় শ্বেত ঢেউ

কনিষ্ঠ ঝিনুক শিশু জিভে তুলে টুকরো সিলিকন

মুক্তোর ভবিষ্যত নিশ্চিত হয়।

এক চোখে বাতিঘর সমুদ্রে খোঁজে ছায়াপথ

কান্নার নুন মেশে সমুদ্র জলে।

রোদ্দুর রোদ্দুর

স্বীকৃতি প্রসাদ বড়ুয়া

এক সকালবেলা রোদ্দুর রোদ্দুর সময়ে

তুমি যখন অলস তন্দ্রাবিলাসিতায় মগ্ন

আমার আশ্চর্য চায়ের কাপে মেঘের বিজ্ঞাপন

কলিংবেলের আড়ালে প্রাত্যহিক হকার

কাদের যেন গল্প বলে যায় প্রতিনিয়ত

যে সব গল্প ঘরে ফিরে না কোনদিন

তাদের চৌকাঠে রেখে দৌড় আর দৌড়

আমি যেন অকালে জন্মেছি এক স্বপ্নবাজ।

নাটাই

মাসুদ পথিক

ছোটকালে তো কতো রকম

অভ্যাস থাকে মানুষের।

অভ্যাস বদলায়, মানুষও।

ব্যথার ধরন, সেও বেঁকে চলে যেতে পারে

মেঘ তাড়ানো নৈঃশব্দ্যের মাঠে।

হয়তো এইসব সুবর্ণঅতীত পেতে পারো

ভিন্ন কোনো হাবে।

ঘুড়িটাও উড়ে যায় অবশেষ

কেবল নাটাই থাকে হাতে।

সুতো কাটার পরও

নাটাই হাতে নিয়েই কেউ কেউ ভাবে

রঙিন ঘুড়ি তো আমার হাতেই।

আকাক্সক্ষামেঘ

কবির য়াহমদ

অন্তত লুকিয়ে রেখো ক্ষতচিহ্ন, বিস্মৃতির দাগ

মৃতদের কঙ্কালের মতো অসাড় হয়ে বসে থেকো ঠায়

পথ, পথ, অগণন পথ- সব লিখা থাকুক দিনপঞ্জিকায়।

জানো-

ইতিহাসের কাছে অনাবাদি কিছু নাই

অকর্ষিত জমিতে নিত্য খেলে উড়ুক্কু বাতাস

কাশমেঘ নিয়ত আসে- চুমু খেয়ে দিয়ে যায়-

গল্পের ভেতর আরেক গল্প সম্মোহিত বিকেলের আলো

অদ্যাবধি লিখিয়েছে যারা নিজেদের নাম মৃতদের দলে

তারা সব প্রাজ্ঞজন, অগ্রবর্তী দল-

কে জানে কত আছে সাথে নেয় শিলাখ , বুকের জমিনে?

হে অগ্রজ সুহৃদ আমার

তোমার শিলাখ এপিটাফের জন্যে নয়

শিলা ছুড়ো নদীর এপাড়ে, বৃষ্টি সমেত

তোমার নিক্ষিপ্ত শিলায় বৃষ্টি নামুক, বন্যা আসুক

এই অবেলায়!

প্রকাশিত : ৯ জানুয়ারী ২০১৫

০৯/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: