আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ঝলক

প্রকাশিত : ৯ জানুয়ারী ২০১৫

মল থেকে জল

মানুষের মল দেখলে গা ঘিন ঘিন করে, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু যে মল দেখে আপনি নাকচাপা দিচ্ছেন, সেই মলই আপনার পানীয় জলের চাহিদা মেটাবে। বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি মাইক্রোসফটের কর্ণধার বিল গেটস স্বয়ং সেই জলের স্বাদ চেখে দেখেছেন। মানুষের মল থেকে তৈরি সেই পানীয় জল খেয়ে তৃপ্তও তিনি। ধনকুবের বিল গেটসের সেই জল খাওয়ার ভিডিও সাড়া ফেলেছে গোটা বিশ্বে। বর্তমান অর্থনীতিতে শৌচাগারের গুরুত্ব সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করতেই এই উদ্যোগ বলে জানিয়েছেন তিনি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিয়াটলের উপকণ্ঠে তৈরি করা হয়েছে এক অভিনব কারখানা। সেই কারখানায় উচ্চ প্রযুক্তির মাধ্যমে মানুষের মল থেকে তৈরি হচ্ছে পানীয় জল।

শুধু জলই নয়, মানুষের মলের গ্যাসকে কাজে লাগিয়ে বিদ্যুত উৎপাদনেরও ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ওই কারখানার ইঞ্জিনিয়াররা জানিয়েছেন, ১ লাখ মানুষের মল থেকে ৮৬ হাজার লিটার পানীয় জল ও ২৫০ কিলোওয়াট বিদ্যুত উৎপাদন হতে পারে। এই প্রযুক্তিতে খরচও খুব বেশি নয়।

কারাবন্দীদের যৌন অধিকার

কারাগারে বদ্ধজীবন কাটাতে হয় বন্দীদের। বাইরের দুনিয়ার সব সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত তাঁরা। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে একান্ত সময় কাটানোর কথা ভাবতে পারেন না কারাবন্দীরা। এই দম বন্ধ করা বন্দীদশায় একটু সুখের ছোঁয়া পেতে যাচ্ছেন ভারতের কারাবন্দীরা। সম্প্রতি কারাবন্দীদের অধিকার প্রসঙ্গে এক ঐতিহাসিক রায় দিয়েছে ভারতের হাইকোর্ট। পাতিয়ালা জেলের এক কয়েদী-দম্পতির দায়ের করা মামলার শুনানিতে হাইকোর্ট বলেছেন, যে কোন বন্দীর ‘প্রজননের অধিকার’ জীবন এবং ব্যক্তিগত স্বাতন্ত্র্যের অধিকারের আওতাধীন। সংবিধানের ২১ ধারায় এ ধরনের অধিকারের উল্লেখ রয়েছে। এ প্রসঙ্গে বিচারপতি সূর্যকান্ত বলেন, ‘বন্দী অবস্থায় প্রজননের অধিকারের নিয়ম রাজ্যের নির্ধারিত নীতি অনুযায়ী নির্ধারিত হবে।’ দায়েরকৃত মামলায় উল্লেখ করা হয়, আসামি তার বাবা-মায়ের একমাত্র পুত্র সন্তান। অতত্রব তাদের প্রজননের অধিকার দেয়া হোক। উল্লেখ্য, বেশ কয়েকটি দেশে প্রজননের জন্য বন্দীদের বাইরে যাওয়ার বা কৃত্রিম প্রজননের অধিকার রয়েছে।

ধর্ম বাঁচাতে চার সন্তান!

ফের বিতর্কিত মন্তব্যের কারণে আলোচনায় ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সংসদ সদস্য সাক্ষী মহারাজ। এবার হিন্দু নারীদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন তিনি। ক্ষমতাসীন দলের এই আইনপ্রণেতা অন্তত চার সন্তান নেয়ার জন্য হিন্দু নারীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। সম্প্রতি মিরাটে সান্ত সম্মাজ্ঞাম মহোৎসব উপলক্ষে আয়োজিত এক ধর্মীয় সভায় তিনি বলেন, ভারতের বর্তমান পরিস্থিতিতে হিন্দু ধর্মকে বাঁচাতে প্রত্যেক হিন্দু নারীর অন্তত চারটি করে সন্তান থাকা উচিত। পরিবার বড় করা এখন হিন্দুদের একটি কর্তব্য হিসেবে দেখা উচিত। মহারাজের এ বক্তব্য নিয়ে শুরু হয়েছে তুমুল বিতর্ক। বিরোধীদলীয় নেতারা প্রধানমন্ত্রী মোদির কাছে এ বক্তব্যের ব্যাখ্যা দাবি করেছেন। এর আগে ভারতের জাতির জনক মহাত্মা গান্ধীর ঘাতক নাথুরাম গডসকে দেশপ্রেমিক দাবি করে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েন সাক্ষী মহারাজ। পরে অবশ্য ওই মন্তব্যের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন তিনি।

‘পিকে’র জন্য সিবিআই

এতদিন ছিল ধর্ম নিয়ে টানাটানি। এবার তার সঙ্গ নিল সেন্সর বোর্ডের এক সদস্যের বিতর্কিত উক্তি। বিতর্ক যেন পিছু ছাড়ছে না আমির খান অভিনীত চলচ্চিত্র ‘পিকে’র। সম্প্রতি সেন্সর বোর্ডের সদস্য সতীশ কল্যাণকর দাবি করেছেন, পিকের কিছু দৃশ্য বাদ দেয়ার কথা জানিয়েছিলেন তিনি? যদিও তাঁর কথায় কর্ণপাত করা হয়নি? আর এ সবের মধ্যেই সেন্ট্রাল বোর্ড অব ফিল্ম সার্টিফিকেশনের কাছে কিভাবে ‘পিকে’ ছাড়পত্র পেল তা নিয়ে সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছেন শঙ্করাচার্য স্বরূপানন্দন সরস্বতী। সেন্সর বোর্ডের কয়েকজন সদস্য সম্প্রতি জ্যোতেশ্বরে স্বরূপানন্দন সরস্বতীর আশ্রমে যান। আর সেখান থেকেই এই জটিলতার সূত্রপাত। পিকে নিয়ে সরস্বতীর সিবিআই-এর মাধ্যমে তদন্তের দাবিকে অনেকেই বলছেন মশা মারতে কামান দাগার ব্যবস্থা!

এক টাকায় এক লিটার পেট্রোল

প্রতি লিটার পেট্রোলের দাম মাত্র এক টাকা! বিষয়টি আজব বলে মনে হলেও গুজব নয়। ঘটনাটি ঘটছে লাতিন আমেরিকার দেশ ভেনিজুয়েলায়। ১৯৯৮ সালে ভেনিজুয়েলায় প্রতিলিটার পেট্রোলের দাম নির্ধারণ করা হয় এক টাকা। বর্তমানেও একই দামে সেখানে পেট্রোল বিক্রি হচ্ছে। ভেনিজুয়েলা ছাড়া অন্য কোন পেট্রোল রফতানিকারী দেশে তেলের দাম কিন্তু লিটার প্রতি এক টাকা নয়। সৌদি আরবে প্রতিলিটার পেট্রোলের দাম ৭ টাকা, তুর্কমেনিস্তানে ১২ টাকা, সংযুক্ত আরব আমিরাতে ২৪ টাকা।

এটা অবশ্য বাংলাদেশের টাকা নয়। সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর মুদ্রাকে এখানে টাকা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

পুরুষদের স্তন ক্যান্সার

পুরুষদের স্তন ক্যান্সার? কি, অবাক হচ্ছেন? শুধু মহিলাদের নয়, স্তন ক্যান্সারের প্রবণতা বাড়ছে পুরুষদেরও। এ সম্পর্কে কলকাতার ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ গৌতম মুখোপাধ্যয় বলেন, মহিলাদের ব্রেস্ট টিস্যু অত্যন্ত ঘন ও পরিমাণে বেশি হওয়ায় টিউমারটি পাঁজরের পেশী বা চামড়ার সংস্পর্শে আসতে সময় নেয়। কিন্তু পুরুষদের স্তন কোষ অত ঘন না হওয়ায়, সেখানে কোন টিউমারের জন্ম হলে তা খুব দ্রুত পাঁজরের পেশী এবং চামড়ায় ছড়িয়ে পড়ে। তবে স্তনে কোন মাংসল পি-ের জন্ম হলেই যে তা ব্রেস্ট টিউমার, তা নয়। এটা গাইনোকোম্যাস্টিয়াও হতে পারে। বয়ঃসন্ধিকালে পুরুষদের শরীরে মহিলা হরমোনের নিঃসরণ বেড়ে যাওয়ায় মহিলাদের মতো সুগঠিত স্তন সৃষ্টি হতে দেখা যায়। তাই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়াই শ্রেয়।

প্রকাশিত : ৯ জানুয়ারী ২০১৫

০৯/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: