আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ভিটামিন এ সমৃদ্ধ ভোজ্যতেলের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হচ্ছে

প্রকাশিত : ৮ জানুয়ারী ২০১৫

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ সুস্থ-সবল জনগোষ্ঠী গড়ে তুলতে শীঘ্রই ‘ভোজ্য তেলে ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধকরণ আইন’ বলবৎ করা হবে বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। এ আইনের ওপর আদালতের দেয়া নিষেধাজ্ঞা জনস্বার্থে প্রত্যাহার করার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি। ওই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হলে, ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ ভোজ্য তেল ব্যবহারকারীর পরিমাণ শতকরা ৭৫ থেকে ১০০ ভাগে উন্নীত করা হবে। বুধবার বিকেলে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘ভোজ্য তেলে ভিটামিন-এ সমৃদ্ধকরণ প্রকল্প-২’ বিষয়ক গোল টেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ ফরহাদ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রকল্প পরিচালক ও মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম প্রধান মোঃ লুৎফর রহমান তরফদার। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রকল্পের সহকারী পরিচালক (প্রোগ্রাম) খন্দকার মুমতাহিনাহ সিদ্দিকী। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন গ্লোবাল এ্যালায়েন্স ফর ইমপ্রুভড নিউট্রিশনের কান্ট্রি ডিরেক্টর বসন্ত কুমার কর। অনুষ্ঠানে শিল্পমন্ত্রী বলেন, যে রিফাইনারি প্রতিষ্ঠান এখনও ভোজ্য তেলে ভিটামিন এ সমৃদ্ধকরণ আইন অনুসরণ করছে না তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি বলেন, কিছু রিফাইনারি কোম্পানি হাইকোর্ট থেকে এই আইনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আনে এ থেকে তারা সুবিধা নিতে। এ ব্যাপারে সুরাহার করতে তার মন্ত্রণালয় সুপ্রীমকোর্টের এ্যাটর্নি জেনারেলের সঙ্গে কথা বলেছে বলেও জানান তিনি। শিল্পমন্ত্রী বলেন, ভোজ্য তেল রিফাইনারি ২৬টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মাত্র ৬টি প্রতিষ্ঠান এই আইন অনুসরণ করছে। শুধু ব্যবসা নয়, কর্পোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে ভোজ্য তেল রিফাইনারি মালিকদের বাধ্যতামূলকভাবে ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধকরণের পরামর্শ দেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের ১৬ কোটি জনসংখ্যা অভিশাপ নয়, আশীর্বাদ। এ জনসংখ্যাকে কর্মীর হাতিয়ারে পরিণত করতে হলে, জনগণের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা হবে। এ লক্ষ্যে সরকার ভোজ্য তেলে ভিটামিন ‘এ’ এবং ভোজ্য লবণে আয়োডিন মিশ্রণের কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছে। এসব কর্মসূচীর সফল বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট খাতের উদ্যোক্তাদের সহায়তা প্রয়োজন। আমির হোসেন আমু বলেন, শিল্পসমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্য অর্জনের জন্য দেশে সুস্থ সবল ও মেধাবী জনগোষ্ঠীর প্রয়োজন। এ লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নে যুগান্তকারী কর্মসূচী বাস্তবায়ন করেছে। ফলে দেশে মাতৃ ও শিশুমৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্য পরিমাণে কমার পাশাপাশি জনগণের গড় আয়ু বেড়েছে। এর আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি হিসেবে বাংলাদেশ ইতোমধ্যে ‘সাউথ-সাউথ এ্যাওয়ার্ড’ অর্জন করেছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। মূল প্রবন্ধে খন্দকার মুমতাহিনাহ সিদ্দিকী বলেন, শতভাগ ভোজ্য তেলকে ভিটামিন এ সমৃদ্ধ করতে প্রয়োজন আইনের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা ও তার পূর্ণ প্রয়োগ। পাশাপাশি জনগণকেও সচেতন করতে ব্যাপক প্রচার চালানো।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, পুষ্টি ঘাটতি মোকাবেলায় বাংলাদেশ গৃহিত কর্মসূচী বিশ্বের জন্য অনুকরণীয় মডেল। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশই প্রথম ‘ভোজ্য তেলে ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধকরণ আইন’ প্রণয়ন করেছে। এ আইন অত্যন্ত বাস্তবসম্মত উল্লেখ করে তারা এর প্রয়োগ নিশ্চিত করার ওপর গুরুত্ব দেন।

প্রকাশিত : ৮ জানুয়ারী ২০১৫

০৮/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: