কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

পথ দেখালো ‘ক্যাচার’

প্রকাশিত : ৩০ ডিসেম্বর ২০১৪

ফায়ার সার্ভিস, ওয়াসা, বুয়েট পুলিশসহ সকল মহল যখন ব্যর্থ তখন কতিপয় যুবকের উদ্ভাবনে উদ্ধার হলো শিশু জিহাদ। তবে জীবিত নয় মৃত, কিন্তু মানবতার সেবায় এগিয়ে আসা তারুণ্যের জয় হয়েছে। তাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় তৈরি করা ‘ক্যাচার’ দিয়ে উদ্ধার হয়েছে শিশু জিহাদের লাশ। অবসান হয় দীর্ঘ ২৩ ঘণ্টার শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানের। পাঁচ ফুট উচ্চতার একটা লোহার খাঁচায় হলো উদ্যমী এসব যুবকদের তৈরি করা ‘ক্যাচার’।

টিভিতে শাহজাহানপুরের রেলওয়ে কলোনির ঘটনা বাংলাদেশে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। ঘটনাস্থলে ছুটে আসে পুলিশ-ওয়াসা-বুয়েট-ফায়ার সার্ভিসসহ সংশ্লিষ্ট মহল। কিন্তু শিশু উদ্ধারে প্রশাসনের সব সংস্থা ব্যর্থ হয়। এমন সময় এগিয়ে আসেন ১০-১৫ জনের উদ্যমী তরুনÑ এসব তরুণের মধ্যে উল্লেখযোগ্য আবু বকর সিদ্দিক, শফিকুল ইসলাম ফারুক, আনোয়ার, মুরাদ, নূর মোহাম্মদ, আবদুল মজিদ, ইমরান, রাকিব, মুন, রাহুল ও লিটু।

নির্ঘুম রাত কাটিয়ে এসব উদ্যমী ও মানবতার সেবক তরুণ উদ্ধার করেন শিশু জিহাদকে। সারা রাত আপ্রাণ চেষ্টার পর পরের দিন তাঁদের চেষ্টা সফল হয়। তাঁদের এই ক্যাচারে একটি ক্যামারও সংযুক্ত হয়।

লোহার রড দিয়ে তৈরি খাঁচাটির উচ্চতা পাঁচ ফুট। তিনটি খাড়া লোহার রডের ওপরের আংশে একটা বৃত্তাকার রড দিয়ে আটকানো। আর দুটো রড আড়াআড়িভাবে এর সঙ্গে টানা দেয়া হয়।

মাঝখানে বাঁধা হয় মোটা রশি। একেবারে নিচে রড ঝালাই করে ৪৫ ডিগ্রি কোনাকৃতির আংটা। আইকন ইঞ্জিনিয়ারিং নামের একটি প্রতিষ্ঠানের কর্মীরাও এ উদ্ভাবনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। বাংলাদেশের যে কোন দুর্যোগে অতীতেও তরুণরা এগিয়ে এসেছিল। রানা প্লাজা, তাজরীন, বিসিএস ভবনসহ সর্বত্র দেশের তরুণরাই এগিয়ে আসেন বিপদগ্রস্ত মানুষের পাশে।

শাহজাহানপুরের ঘটনায়ও এর ব্যত্যয় ঘটেনি। শাহজাহানপুর ঘটনা প্রমাণ করল তারুণ্য সকল বাধা অতিক্রম করে সাফল্য ছিনিয়ে আনতে পারে। বাংলাদেশের অগণিত মানুষ এমন তরুণদের নিয়ে গর্বিত এবং উচ্ছ্বাসিত। জয় হোক এমন মানবতার সেবকদের।

ডিপ্রজন্ম ডেস্ক

প্রকাশিত : ৩০ ডিসেম্বর ২০১৪

৩০/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: