মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

হরতালের বোমায় মা ও ছেলেমেয়ে দগ্ধ, পুড়ছে বাস

প্রকাশিত : ২৯ ডিসেম্বর ২০১৪
  • হরতালের আগেই নাশকতা

জনকণ্ঠ রিপোর্ট ॥ রাজধানীতে হরতালের বোমায় মা ও ছেলেমেয়ে দগ্ধ হয়ে কাতরাচ্ছে হাসপাতালের বেডে। পেট্রোল বোমার আগুনে পল্টনে জ্বলছে বাস। গাজী ভবনের সামনে হাত বোমা ফাটিয়েছে হরতাল সমর্থকরা। রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টা ২৫ মিনিটের দিকে পল্টন মোড়ের কাছে প্রীতম হোটেলের সামনে সচিবালয়ের একটি স্টাফ বাসে পেট্রোল বোমা মেরে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে (ঢাকা মেট্রো স-১১-০১০১) জোটের ক্যাডাররা। ঢাবি ক্যাম্পাস, উত্তরা, আব্দুল্লাপুর, কুড়িলে বাসে আগুন ও ভাংচুর করেছে দুর্বৃত্তরা।

হরতাল সমর্থকদের ছোড়া পেট্রোল বোমায় কাজীপাড়ায় মা ও তাঁর ছেলেমেয়ে তিনজন অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন। তারা বর্তমানে ঢাকা মেডিক্যালের বার্ন ইউনিটে কাতরাচ্ছেন। দগ্ধ তিন জন হলেন মা শামসুন্নাহার (৪৫), ছেলে তানজিম ইসলাম (২৪) ও মেয়ে অনিকা আক্তার (১৮)। তানজিম ও অনিকা দুজনেই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। দগ্ধ শামসুন্নাহার জানান, আমরা একটি সিএনজি অটোরিক্সায় মিরপুরের বাসায় যাচ্ছিলাম। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে কাজীপাড়ায় পৌঁছামাত্র সিএনজি লক্ষ্য করে দুর্বৃত্তরা পেট্রোলবোমা ছুড়ে মারে। আমরা তিনজনই ওই বোমার আগুনে দগ্ধ হয়েছি। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় ঢাকা মেডিক্যালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি হয়েছি। কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, তাদের হাত-পা ও মুখ পুড়ে গেছে। তারা এখনও আশঙ্কামুক্ত নন।

পল্টনে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, একদল যুবক রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা একটি বাসে আগুন ধরিয়ে দেয়ার সময় চালক, হেলপার ও যাত্রীরা দ্রুত নেমে পড়ায় কেউ হতাহত হয়নি। পল্টন থানার ওসি জানান, দুর্বৃত্তরা একটি বাসে আগুন দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেছে। বিকেল পাঁচটার দিকে বিএনপির প্রধান কার্যালয়ের কিছুটা দূরে গাজী ভবনের সামনের সড়কে একটি হাতবোমা ফাটায় দুর্বৃত্তরা। তবে এতে কেউ হতাহত হননি। এ ছাড়াও সন্ধ্যা সাতটার দিকে উত্তরা, আব্দুল্লাপুর, কুড়িলে গাড়ি ভাংচুর ও রাস্তায় আগুন দিয়েছে হরতাল সমর্থকরা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সন্ধ্যা সাতটায় শিববাড়ি মোড়ে ছয়টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় দুর্বৃত্তরা। ককটেলের আঘাতে সাথী আক্তার পিংকি (২৩) আহত হলে তাকে ঢাকা মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়। টিএসসি এলাকায় হরতালের সমর্থনে ছাত্রদল মিছিল বের করে যাওয়ার সময় এই ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে হারুন-অর-রশীদ নামে এক রিক্সাচালক আহত হন।

পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, হরতালের আগের রাতে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ, বাসে অগ্নিসংযোগ, বোমাবাজির ঘটনায় পুলিশের নিরাপত্তা আরও জোরদার করা হয়েছে। দুর্বৃত্তদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। এদিকে রাত দশটায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী দাবি করেন সরকারী এজেন্টরাই পেট্রোলবোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে, বাসে আগুন দিয়েছে।

প্রকাশিত : ২৯ ডিসেম্বর ২০১৪

২৯/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: