কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

শিশুদের জন্মদিনের পার্টি

প্রকাশিত : ২৯ ডিসেম্বর ২০১৪
শিশুদের জন্মদিনের পার্টি

অন্য সবার চেয়ে বাচ্চাদের আবদার যেন আগে মেটাতে হয়। সব আবদার যে মেটানো সম্ভব তা নয় তবে কিছু কিছু আবদার যেন না মেটালেই নয়, যেমন বাচ্চাদের জন্মদিন পালনের আবদার। ছোট করে হোক কিংবা স্বাড়ম্বরে উৎসব পালন যেন করা চাই। তবে হুট করে জন্মদিন পালনে অনেকেই হিমশিম খেয়ে যান। আর যেদিন জন্মদিন সেইদিনই যে পালন করতে হবে এমনটাও কথা নেই। তাই বুঝে শুনে বাচ্চাদের আবদার মেটালে সব কুলই রক্ষা হবে।

কবে

শুক্রবার হলেই ভালো হয়। বাচ্চা যদি খুব বায়না করে তবে জন্মদিনের দিনই করুন। সে ক্ষেত্রে শুরু করুন তাড়াতাড়ি।

কোথায়

বাড়িতে তো করতে পারেনই। যদি মনে হয় বাড়িতে ঝামেলা করবেন না তাহলে ক্লাব, ভাড়া বাড়িতে ব্যবস্থা করতে পারেন।

বাচ্চাদের নিয়ে পার্ক, পিৎজা হাট, চিড়িয়াখানাতেও আয়োজন করতে পারেন।

কখন

বিকেল ৪টা-৬টা স্ন্যাক্স পার্টি অথবা ৬টা-৯টা ডিনার পার্টি।

নিমন্ত্রণ

ফোনে বলতে পারেন।

বাচ্চারা কার্ড দিয়ে নিমন্ত্রণ করতে ভালবাসে। সে ক্ষেত্রে কার্ড কিনে নিন।

পাঁচ বছরের নিচে হলে বাচ্চার মাকেও আমন্ত্রণ জানান।

আপনার বাচ্চা কাদের বলতে চায় জানুন। তার মতামতের গুরুত্ব দিন।

শুধু বাচ্চাদের নেমন্তন্ন করলে, কখন পার্টি শেষ হবে অভিভাবকদের জানিয়ে দিন।

সাজগোজ

পার্টির আগের দিন বিকেলবেলা ঘর সাজান।

নিজেরা সাজাতে পারেন কিংবা পার্টি অর্গানাইজারদেরও বলতে পারেন। চেষ্টা করবেন জানালার গ্রিল, দরজার কোনায় হুক ইত্যাদিতে বেলুন ও রঙিন কাগজ লাগাতে। দেওয়ালে সেলোটেপ লাগাবেন না। খই ব্যাগের জন্যে একটা আলাদা জায়গা রাখুন। ছোট জায়গা হলে খই ব্যাগ ফাটানোর আগে নিচে একটা চাদর পেতে নিন।

ঘরে কার্পেট থাকলে তার ওপর সুন্দর একটা চাদর পেতে দিন, বাচ্চাদের জুতার ধুলোয় কিংবা পানি, খাবার পড়ে নষ্ট হবে না।

থিম পার্টি করতে পারেন। বাচ্চাদের প্রিয় ডিজনি চরিত্র, হ্যারি পটার, রূপকথার গল্প, রঙÑহরেকরকম থিম করা যেতে পারে। এ ব্যাপারে পার্টি অর্গানাইজারদের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

হইহুল্লোড়

নানারকম খেলার ব্যবস্থা রাখুন। পাসিং দ্য পার্সেল, ডাম্বশারাড, অন্ত্যাক্ষরী, মিউজিক্যাল চেয়ার ইত্যাদি।

ম্যাজিক শো, পাপেট ছোটদের দারুণ প্রিয়। আগে থেকে ম্যাজিশিয়ানের সঙ্গে যোগাযোগ করে ব্যবস্থা করতে পারেন সান্তা ক্লজ বা চার্লি চ্যাপলিন সেজে বাচ্চাদের সঙ্গে মজা করা, গিফট দেওয়া ইত্যাদি ব্যবস্থা রাখতে পারেন।

খানাপিনা

বাচ্চারা নিজেরা খেতে পারে এমন ধরনের শুকনো খাবার রাখুন। প্যাটিস, পিৎজা, বার্গার, চিপস, কেক, টার্ট অথবা লুচি, শুকনো আলুর দম, বোনলেস চিকেন ভাজাÑএই ধরনের খাবারও রাখতে পারেন। নুডলস, ফুচকা, টিকিয়া বাচ্চাদের খুব প্রিয়। সঙ্গে কোল্ড ড্রিংকস থাকলে তো কথাই নেই।

মনে করে ব্যাক প্রেজেন্ট দিন।

বাচ্চাদের বাড়ির লোকের সঙ্গে চাড়ুন।

যাঁরা নিতে এসেছেন খেতে অনুরোধ করুন।

মনে রাখুন

চোট লাগতে পারে, ভেঙে যেতে পারে এমন কিছু জিনিস বাচ্চাদের কাছাকাছি রাখবেন না।

একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তিকে বাচ্চাদের দেখাশোনার জন্য রাখুন।

কেক কাটার ছুরি রঙিন ফিতে বেঁধে আগে থেকে গুছিয়ে রাখুন। সঙ্গে রাখুন মোমবাতি, দিয়াশলাই।

হ্যাপি বার্থডে গানের ক্যাসেট অথবা সিডি বাজাতে চাইলে আগে থেকে ঠিক করে রাখুন।

প্রকাশিত : ২৯ ডিসেম্বর ২০১৪

২৯/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: