কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ইপিএলে বড় দলগুলোর উৎসবের রাত

প্রকাশিত : ২৮ ডিসেম্বর ২০১৪

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বড়দিনের উৎসবেই মাঠে নেমেছিল ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের দলগুলো। আর এই দিনে জায়ান্ট সব ক্লাবই জয়ের দেখা পেয়েছে। সহজ জয়ে দিনের শুরুটা করেছিল চেলসি। এরপর বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি ৩-১ গোলে হারায় ওয়েস্টব্রুমউইচ, তাদেরই নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ৩-১ গোলে হারায় নিউক্যাসল ইউনাইটেডকে। লিভারপুল ১-০ গোলে বার্নলিকে এবং আর্সেনাল ২-১ গোলে পরাজিত করে কুইন্স পার্ক রেঞ্জার্সকে।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি। শিরোটাকে নিজেদের করে রাখার জন্য এবারও দুর্দান্ত খেলছে তারা। তারই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার ম্যানচেস্টার সিটি ৩-১ গোলে হারায় ওয়েস্টব্রুমউইচকে। লীগে এখন পর্যন্ত সবার উপরে অবস্থান করছে চেলসি। আর তাদের পেছনেই ছুটছে ম্যানচেস্টার সিটি। ওয়েস্টব্রুমউইচকে হারানোর পর চেলসির চেয়ে সিটির পয়েন্ট ব্যবধান মাত্র তিন। ওয়েস্টব্রুমউইচের বিপক্ষে সিটির তিনটি গোলই হয় প্রথমার্ধে। এ নিয়ে প্রিমিয়ার লীগে টানা সাতটি ম্যাচ জিতল মানুয়েল পেলেগ্রিনির দল। ওয়েস্টব্রুমউইচের গোলরক্ষক বেন ফস্টারের ভুলে শুরুতেই এগিয়ে যায় সিটি। সহজ সুযোগ পেয়ে সিটিকে প্রথমে এগিয়ে দেন ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার ফের্নান্ডো। এর পাঁচ মিনিট পরই পেনাল্টি থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ইয়াইয়া তোরে। ডেভিড সিলভাকে ডি-বক্সে ফাউল করা হলে পেনাল্টি পায় সফরকারীরা। আর ৩৪তম মিনিটে ব্যবধান ৩-০ করে ফেলে পেলেগ্রিনির শিষ্যরা। ডি-বক্সে ফের্নান্দোর কাছ থেকে পাস পেয়ে জেসুস নাভাস বল পাঠিয়েছিলেন সিলভাকে। দুর্দান্ত শটে গোল করেন স্পেনের এই মিডফিল্ডার। তবে এদিন প্রচ- বৃষ্টির পর তুষারপাতের কারণে দ্বিতীয়ার্ধে স্বাভাবিক খেলা খেলা যায়নি। এর মধ্যেই গোল শোধের জন্য মরিয়া স্বাগতিকরা বেশ কয়েকটি সুযোগ পায়। অবশেষে ৮৬তম মিনিটে সিটি গোলরক্ষক জো হার্টের ভুলে সান্ত¡নার গোলটি পায় ওয়েস্টব্রুম।

মৌসুমের শুরুর হতাশা কাটিয়ে এখন বেশ ভালভাবেই এগুচ্ছে সিটির নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। এদিন ওয়েইন রুনি ও জোয়ান মাতার নৈপুণ্যে সহজ জয় পায় তারা। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে নিউক্যাসল ইউনাইটেডকে ৩-১ গোলে হারিয়ে নিজেদের অবস্থানকে আরও সুসংহত করল লুইস ভ্যান গালের দল। এই ম্যাচে জোড়া গোল করেন রুনি। রবিন ভ্যান পার্সিকে দিয়েও গোল করান ইংল্যান্ডের এই ফরোয়ার্ড। আর রুনির দুই গোলের পেছনে অবদান রাখেন স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড মাতা। নিউক্যাসলের একমাত্র গোলটি পাপিস ডেম্বা সিসের। ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ফুটবল খেললেও সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারছিল না ইউনাইটেড। এ্যাশলে ইয়ংয়ের ক্রস বক্সের মধ্যে পেয়েও ব্যর্থ হন রাদামেল ফ্রালকাও। তবে ম্যাচের ২৩তম মিনিটে প্রতিপক্ষের জালে বল জড়াতে ভুল করেননি রুনি। এগিয়ে যাওয়ার পর প্রতিপক্ষের রক্ষণভাগে আরও চাপ সৃষ্টি করে ইউনাইটেড। ৩৬তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে স্বাগতিকরা। এবারও নায়ক রুনি। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ভ্যান পার্সির গোলে স্কোরলাইন ৩-০ করে নেয় লীগের অন্যতম সফলতম দলটি। ডাচ্ তারকার গোলের পেছনে বড় অবদান রুনির। তবে ৮৭তম মিনিটে পেনাল্টি থেকে ডেম্বা সিসের গোল করে ব্যবধান কমায় অতিথিরা। গত নবেম্বরে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ম্যানচেস্টার সিটির কাছে ভরাডুবির পর লীগে আর হারেনি লুইস ভ্যান গালের দল। পরের আট ম্যাচে সাতটিতেই জয় এবং এক ম্যাচে ড্র করে তারা।

দিনের অন্য ম্যাচে ১০ জন নিয়ে খেলেও কুইন্স পার্ক রেঞ্জার্সকে ২-১ গোলে হারিয়েছে আর্সেনাল। এই জয়ে দারুণ এক মাইলফলকও স্পর্শ করেন আর্সেন ওয়েঙ্গার। কোচ হিসেবে ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগে চার শ’তম জয় পেলেন তিনি। আর্সেনালের জয়ে এ্যালেক্সিস সানচেস ও টমাস রসিস্কি একটি করে গোল করেন। আর কিউপিআরের গোলটি করেন চার্লি অস্টিন। এ্যামিরেটস স্টেডিয়ামে নবম মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারত আর্সেনাল। বক্সের মধ্যে কিউপিআরের আরম্যান্ড সানচেসকে ফেলে দিলে পেনাল্টি পায় স্বাগতিকরা। কিন্তু চিলির স্ট্রাইকারের দুর্বল শট রুখে দেয় প্রতিপক্ষের গোলরক্ষক রবার্ট গ্রিন। ২৮ মিনিটে আর্সেনালকে আবারও হতাশ করেন গ্রিন। অলিভিয়ের জিরাউডের নেয়া ফ্রিকিক আটকে দেন কিউপিআরের এই ইংলিশ গোলরক্ষক। ৩৭তম মিনিটে দারুণ এক গোল করে পেনাল্টি কাজে না লাগাতে পারার হতাশা কাটান সানচেস। বিরতির পর ভুল করে আর্সেনালের বিপদ ডেকে আনেন জিরাউড। নিজেদের বক্সে কিউপিআরের এক ফুটবলারের ধাক্কায় পড়ে যাওয়ার পর মেজাজ ধরে রাখতে পারেননি ফ্রান্সের এই ফরোয়ার্ড। প্রতিপক্ষের অনুওহাকে ঢুস দিয়ে লাল কার্ড দেখেন তিনি। দশজনের দলে পরিণত হলেও আক্রমণের জোর কমায়নি আর্সেনাল। ৬৫তম মিনিটে রসিস্কির গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে নেয় স্বাগতিকরা। ৭৩তম মিনিটে ব্যবধান কমায় কিউপিআর। শেষ দিকে আর্সেনালের রক্ষণভাগ এলোমেলো করে দিলেও সমতায় ফেরা গোলের দেখা পায়নি কিউপিআর। আর বার্নলির বিপক্ষে ৬২ মিনিটে একমাত্র গোল করে লিভারপুলকে জয় উপহার দেন রাহিম স্টার্লিং।

এই জয়ের ফলে লিভারপুলের অবস্থান নবম। শীর্ষে থাকা চেলসির পয়েন্ট ৪৫। ১৮ ম্যাচে ৪২ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে ম্যানচেস্টার সিটি। সমান সংখ্যক ম্যাচে ৩৫ পয়েন্ট নিয়ে তিনে আছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। আর আর্সেনালের অবস্থান ষষ্ঠ।

প্রকাশিত : ২৮ ডিসেম্বর ২০১৪

২৮/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



ব্রেকিং নিউজ: