কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বছরের আলোচিত যে সব উদ্ভাবন

প্রকাশিত : ২৭ ডিসেম্বর ২০১৪
বছরের আলোচিত  যে সব উদ্ভাবন

প্রযুক্তি জগতের সঙ্গে সবসময়ই চেষ্টা থাকে নতুন কিছু করার, নতুন কিছু উদ্ভাবনের। কিছু পণ্য বা প্রযুক্তি জনপ্রিয়তা পেয়েই আবার হারিয়ে যায় কয়েক বছরের মাথায়। আবার কিছু উদ্ভাবন প্রাথমিক অবস্থায় নজর না কাড়লেও বড় প্রভাব ফেলে প্রযুক্তি জগত ও সাধারণ ব্যবহারকারীদের মধ্যে। ২০১৪ সালে উদ্ভাবিত এমন সম্ভাবনাময় প্রযুক্তিপণ্যের এক তালিকা প্রকাশ করেছে প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ম্যাশএবল। রিসাউন্ডলিনক্স হিয়ারিং এইড : রিসাউন্ডলিনক্স হল আইফোনের জন্য তৈরি করা নতুন এক ‘হিয়ারিং এইড’। চলতি এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে ‘মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস’-এ আন্তর্জাতিক বাজারের জন্য উন্মুক্ত করা হয় ডিভাইসটি। এটি ব্লুটুথের মাধ্যমে স্মার্টফোনের সঙ্গে সংযুক্ত থাকে। স্মার্টফোন থেকেই এই হিয়ারিং এইডের ভলিউম নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন ব্যবহারকারী। অন্যদের সামনে হাত কানের কাছে নিয়ে ইয়ারফোন নিয়ন্ত্রণের ব্যাপরটি কারও অস্বস্তির কারণ হলে এই ডিভাইস তার জন্য সমাধান। স্থানভেদে আলাদা ভলিউম সেটিং ঠিক করার ফিচারও আছে এতে। টেলিবটÑ ফ্লোরিডা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ডিসকভারি ল্যাবে একদল শিক্ষার্থী তৈরি করেছে ছয় ফুট লম্বা, ৭৫ পাউন্ড ওজনের প্রোটোটাইপ রোবট ‘টেলিবট’। শারীরিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত পুলিশ ও সামরিক বাহিনীর সদস্যদের টহল অফিসার হিসেবে কাজ করার সুযোগ দেবে এই রোবটটি। টেলিপ্রেজেন্স আর রোবটিকস প্রযুক্তির সমন্বয়ে গড়া টেলিবটকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য একজনকে একটি ওকুলাস রিফট হেডসেট, মোশন ট্র্যাকিং পোশাক, বাহুবন্ধনী এবং এক জোড়া মোশন সেন্সর গ্লাভ ব্যবহার করতে হয়। প্রজেক্টটির কাজ শুরু হয় ২০১২ সালে। প্রোটোটাইপ নির্মাণকাজ শেষ করার পর এখন দলটি এখন রোবটটির বাইরের আবরণ নির্মাণ ও মাঠপর্যায়ে কার্যক্ষমতা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে। ভোডাফোনের মোবাইল ব্যাকপ্যাকÑ ফেব্রুয়ারিতে ভোডাফোন ফাউন্ডেশন উন্মোচন করে ব্যাকপ্যাকে নিয়ে ঘুরে বেড়ানোর মতো বহনযোগ্য মোবাইল নেটওয়ার্ক ডিভাইস ‘ইনস্ট্যান্ট নেটওয়ার্ক মিনি’। এর ওজন প্রায় ২৫ পাউন্ড। ডিভাইসটি নেটওয়ার্ক সংযোগ স্থাপনে সময় নেয় ১০ মিনিট, যা দুর্যোগ মোকাবেলাকারীদের কাজে আসবে। ‘ইনস্ট্যান্ট নেটওয়ার্ক মিনি’ একই সঙ্গে ১০০ মিটার দূরত্বের মধ্যে ৫টি ফোন কল করা যায়। এসএমএস সেবাও আছে এতে। ফোল্ডস্কোপÑ চলতি বছরের মার্চে স্ট্যানফোরডের বায়োপ্রকৌশলী মানু প্রকাশ উদ্ভাবন করেন আধ ডলার দামের অভিনব মাইক্রোস্কোপ ‘ফোল্ডস্কোপ’। কয়েক স্তরে সাজানো কাগজের কাঠামোতে মাইক্রো-লেন্স জুড়ে দিয়ে তৈরি এটি। যে কোনো বস্তু ২ হাজার গুণ পর্যন্ত বড় করে দেখাতে সক্ষম ফ্লোডস্কোপ। খরচ কম হওয়ায় বাচ্চারাও ব্যবহার করতে পারবে এটি। দুর্গম অঞ্চলের গবেষণায় বিজ্ঞানীদেরও কাজে আসবে ফ্লোডস্কোপ। সোলার প্যানেলযুক্ত রাস্তাÑ মে মাসে আলোচনায় আসে যুক্তরাষ্ট্রের আইডাহোভিত্তিক স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠান ‘সোলার রোডওয়েজ’। প্রতিষ্ঠানটির চলতি প্রকল্পটি হলোÑ রাস্তার ওপর বিশেষ ধরনের সহনশীল কাঁচের স্তর। এতে ব্যবহার করা হয়েছে ফটোভল্টিক সেল। সৌরশক্তি আর রাস্তার উত্তাপ হ্রাস-বৃদ্ধি থেকে শক্তি সংগ্রহ করতে পারবে ওই প্যানেল। রাতের বেলা এই রাস্তায় জ্বলে এলইডি বাতিও। ২০০৯ সালে শুরু হওয়া সোলার রাস্তা নির্মাণ প্রকল্পটির অধীনে ২০১৪ এর মার্চে একটি পার্কিং লটে দ্বিতীয় প্রোটোটাইপ নির্মাণের কাজ শেষ করে। ক্ষুদ্র এবং দ্রুততম ন্যানোমোটরÑ টেক্সাসের একদল গবেষক উদ্ভাবন করেছেন লবণের কণার থেকেও ৫০০ ভাগ ছোট একটি ন্যানোমটর, যা একটানা ১৫ ঘণ্টা একটি জেট ইঞ্জিনের সমান দ্রুততায় (১৮ হাজার আপিএম) ঘুরতে পারে। তবে যেভাবেই ঘুরুক না কেন অদূর ভবিষ্যতে এ ধরনের ন্যানোমিটার ব্যবহার করে মানব শরীরে ক্যান্সার কোষ ধ্বংসকারী ওষুধ সরবরাহ করা সম্ভব হবে। মাইন্ড-কন্ট্রোলড রোবটিক বডি সুটÑ ২৯ বছর বয়েসী শারীরিক প্রতিবন্ধী হুলিয়ানো পিন্টো ২০১৪ ফুটবল বিশ্বকাপের প্রথম কিকটি দেন একটি মস্তিষ্ক নিয়ন্ত্রিত রোবটিক বহিরাবরণ (এক্সোসুট) পরে। এটি তৈরি করেছেন ডিউক ইউনিভারসিটির প্রফেসর মিগেল নিকোলেলিসের নেতৃত্বে একটি দল। বিজ্ঞানীরা আশা করছেন এই ধরনের মস্তিষ্ক নিয়ন্ত্রিত এক্সোস্কেলেটন ব্যবহার করে অদূর ভবিষ্যতে হুইলচেয়ারের সীমাবদ্ধতা থেকে মুক্ত হতে পারবেন শারীরিক প্রতিবন্ধীরা। ইনটেলের ‘কানেক্টেড’ হুলচেয়ারÑ ‘ইনটেল কলাবরেটর’ প্রোগ্রামের অংশ হিসেবে এক হুইলচেয়ার উদ্ভাবন করেছেন প্রতিষ্ঠানটির একদল প্রকৌশলী, যা ব্যবহারকারীর হৃদপিণ্ডের গতি, শরীরের তাপমাত্রা এবং রক্তচাপ মনিটর করতে সক্ষম। সেপ্টেম্বরে পদার্থবিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং ইনটেলের বার্ষিক উন্নয়ন সম্মেলনে প্রকল্পটি সবার সামনে উন্মোচন করেন। স্মার্টফোনেই চোখের পরীক্ষা- চোখে প্রতিস্থাপন করা ছোট একটি ডিভাইসের মাধ্যমে গ্লুকোমা মনিটর করার উপযোগী এক সেন্সর বানিয়েছেন স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা। স্মার্টফোনের সঙ্গে ব্যবহার করা সম্ভব এই প্রযুক্তি। অন্ধত্ব প্রতিরোধে ব্যবহার করা সম্ভব এই সেন্সর। ছোট প্রাণীর ওপর এই প্রযুক্তি পরীক্ষা করে সফল হয়েছেন বিজ্ঞানীরা। মানব শরীরে কার্যকারিতা নিয়ে পরীক্ষা চলছে এখন। অন্যদিকে নবেম্বর মাসেই উন্মোচন করা হয়েছে স্মার্টফোন এ্যাপ ‘পিক’। চোখের কার্যক্ষমতা বহাল রাখতে কাজে আসতে পারে এই এ্যাপটিও।

সূত্র : ওয়েব থেকে

প্রকাশিত : ২৭ ডিসেম্বর ২০১৪

২৭/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: