কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

টেইলর সুইফটের রেকর্ড

প্রকাশিত : ২৩ ডিসেম্বর ২০১৪
  • মনোয়ারুল হক মনি

নবীন গীতিকার ও সঙ্গীতশিল্পী টেইলর সুইফট তো সঙ্গীতাঙ্গন দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। তাঁর নতুন এ্যালবাম ‘১৯৮৯’ বের হওয়ার আগে থেকেই তিনি তাঁর নতুন গানের মধ্য দিয়ে শ্রোতাদের কাছে নতুনরূপে ফিরে এসেছেন। আর সেই এ্যালবাম বের হওয়ার পর তো তার সাফল্যের বাঁধভাঙ্গা জোয়ারে সঙ্গীতবিষয়ক শীর্ষ তালিকাও যেন ভেসে যাচ্ছে। এ্যালবামটি বের হওয়ার প্রথম সপ্তাহেই ১২,৮৭,০০০ কপি বিক্রি হয়েছে যা গত এক যুগের মধ্যে আর কারও হয়নি। তাই প্রথম সপ্তাহে এখন পর্যন্ত সর্বাধিক এ্যালবাম বিক্রির রেকর্ড তার ঝুলিতেই ঢুকেছে।

১৯৮৯ সালের ১৩ ডিসেম্বর পেনসেলভেনিয়ায় টেইলর সুইফট জন্মগ্রহণ করেন। বেশ অল্প বয়সে তিনি কান্ট্রি গানের মাধ্যমে সঙ্গীতজগতে বিচরণ করার বিষয়ে আগ্রহী হন। সেই লক্ষ্যে এক ধাপ এগিয়ে যান ১৪ বছর বয়সে, যখন তার বাবা-মা ন্যাশভিলে বসবাস শুরু“করেন। তখন ছিল ২০০৩ সাল, যদিও আগে থেকে এ ব্যাপারে আগ্রহ থাকলেও খুব একটা সাড়া পাননি। তবে ২০০৩ সাল তাঁর জন্য ভাল ছিল। একটি সতন্ত্র রেকর্ড লেবেল ‘বিগ মেশিন রেকর্ডস’ এর সঙ্গে তিনি সে বছর চুক্তিবদ্ধ হন। এভাবে সেই রেকর্ড লেবেল এর সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার মধ্য দিয়ে তিনি সনি ও এটিভি মিউজিক এর সর্বকনিষ্ঠ গীতিকার হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হলেন।

তাঁর প্রথম এ্যালবাম ‘টেইলর সুইফট’ ২০০৬ সালে বের হয়ে তাকে কান্ট্রি ধাঁচের গানের মাধ্যমে তারকাখ্যাতি এনে দেয়। সেই এ্যালবামের ‘আওয়ার সং’ শীর্ষক গানটি হট কান্ট্রি গানের তালিকার প্রথম স্থান দখল করে। এ গানটি তিনি নিজেই লিখে সুর করেন মাত্র সতের বছর বয়সে। ২০০৮ সালের গ্র্যামি এওয়ার্ডসের জন্য তাই তিনি শ্রেষ্ঠ নবীন শিল্পী হিসেবে মনোনীত হন।

তাঁর দ্বিতীয় এ্যালবাম ‘ফিয়ারলেস’ ২০০৮ সালে বের হয়। উক্ত এ্যালবামের ‘লাভ স্টোরি’ ও ‘ইউ বিলং টু মি’ অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়। ‘ফিয়ারলেস’ ছিল ২০০৯ সালে আমেরিকার সর্বাধিক বিক্রিত এ্যালবাম। পরবর্তীতে এ্যালবামটি চারটি গ্র্যামি এওয়ার্ড জিতে নেয়। টেইলর সুইফট সর্বকনিষ্ঠ গায়িকা যিনি ‘এ্যালবাম অব দ্য ইয়ার’ বিভাগে গ্র্যামি এওয়ার্ড জয় করেন। টেইলর সুইফট এর তৃতীয় এ্যালবাম ‘স্পিক নাও’ বের হওয়ার প্রথম সপ্তাহেই দশ লাখ কপি বিক্রি হয়। এ্যালবামটির ‘মিন’ গানটি ২০১২ সালে দুটো গ্র্যামি এওয়ার্ড জিতে নেয়।

তাঁর চতুর্থ এ্যালবাম ‘রেড’ যার বিক্রি ছিল প্রথম সপ্তাহেই বার লাখ কপি। এটা ছিল ওই সময়ের একটা রেকর্ড। আর টেইলর সুইফট একমাত্র গায়িকা যার এ্যালবামের বিক্রি প্রথম সপ্তাহেই এত বেশি ছিল।

তাঁর পঞ্চম এ্যালবাম ‘১৯৮৯’ এ বছরেই অক্টোবর মাসে বের হয়। বের হওয়ার প্রথম সপ্তাহেই তা গত বার বছরে বের হওয়া সমস্ত এ্যালবামকে ছাড়িয়ে নতুন রেকর্ড গড়ে। প্রথম সপ্তাহেই দশ লাখ কপি এ্যালবাম বিক্রি হওয়ার ফলে তিনি ২০০২ সালের পর প্রথম শিল্পী যিনি এই সাফল্য দেখলেন। এই এ্যালবামের ‘শেক ইট অফ’ গানটি সিঙ্গেল হিসেবে ছাড়ার পর বিলবোর্ড হট ১০০ গানের তালিকার শীর্ষ স্থানে ছিল। এরপর তার সেই গানটিকে পেছনে ফেলেছে তাঁর নতুন এ্যালবামের দ্বিতীয় সিঙ্গেল ‘ব্যাংক স্পেস’। এর ফলে তিনি বিলবোর্ডের ৫৬ বছরের ইতিহাসের মধ্যে প্রথম শিল্পী যার এমন হলো।

ব্যক্তিগত জীবনের অভিজ্ঞতাকে টেইলর সুইফট তাঁর গানের মধ্য দিয়ে বর্ণনা করে থাকেন। গীতিকার হিসেবে তিনি ন্যাশভিল সংরাইটার্স এ্যাসোসিয়েশন ও সংরাইটার্স হল অব ফেমের পক্ষ থেকে সম্মাননা পেয়েছেন। এখন পর্যন্ত তাঁর অর্জনের মধ্যে আছে সাতটি গ্র্যামি এওয়ার্ডস, বারটি বিলবোর্ড মিউজিক এওয়ার্ডস, এগারটি কান্ট্রি মিউজিক এ্যাসোসিয়েশন এওয়ার্ডস ও সাতটি একাডেমি অব কান্ট্রি মিউজিক এওয়ার্ডস।

মূলত কান্ট্রি ধাঁচের গান দিয়ে শুরু করলেও টেইলর সুইফট এর এখনকার গানে পপ ধাঁচের প্রভাব বেড়ে গেছে। দেখা যাক ভবিষ্যতে তিনি শ্রোতাদের জন্য আর কি কি চমক নিয়ে হাজির হন।

প্রকাশিত : ২৩ ডিসেম্বর ২০১৪

২৩/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: