কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

নওগাঁয় কমিউনিটি ক্লিনিকে প্রতিদিন সেবা পাচ্ছে ২২ হাজার রোগী

প্রকাশিত : ২২ ডিসেম্বর ২০১৪

বিশ্বজিৎ মনি, নওগাঁ ॥ নওগাঁ জেলার ১১ উপজেলার কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো এলাকার অসহায়, দরিদ্র ও দিনমজুর পরিবারের রোগাক্রান্ত মানুষের স্বাস্থ্যসেবার অন্যতম প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করছে। জেলার সদর, মহাদেবপুর, বদলগাছী, পত্মীতলা, ধামইরহাট, সাপাহার, নিয়ামতপুর, পোরশা, আত্রাই, রানীনগর ও মান্দা উপজেলার ৯৯ ইউনিয়নের ২৯৮টি কমিউনিটি ক্লিনিকে সাপ্তাহিক ছুটি ছাড়া প্রতিদিন গড়ে ২১ হাজার ৭শ’ ৫৪ জন বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত রোগী স্বাস্থ্য সেবা পাচ্ছে। এসব রোগীর বেশিরভাগই দরিদ্র ও দিনমজুর পরিবারের নারী, পুরুষ ও শিশু। বর্তমান সরকারের নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের মানুষ এ স্বাস্থ্য সেবা পাওয়ায় তারা অত্যন্ত খুশি। এসব কমিউনিটি ক্লিনিকে অন্যান্য রোগের চিকিৎসা প্রদানের পাশাপাশি বিশেষ করে গর্ভবতী মা ও শিশুদের ওজন ও উচ্চতা মাপা, ডায়াবেটিক পরীক্ষা, নিরাপদ গর্ভধারণের জন্য নানা বিষয়ক পরামর্শ, মহিলাদের আয়রন ও ভিটামিন এবং শিশুদের ভিটামিন, কৃমিনাশক ও পোলিও টিকার ক্যাম্পেইনসহ প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা দেয়া হচ্ছে। অতিসম্প্রতি জেলার মহাদেবপুর ও পতœীতলাসহ বিভিন্ন উপজেলার কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত নারী-পুরুষ ও শিশু রোগীদের কমিউনিটি ক্লিনিকে উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো। পত্মীতলা উপজেলার সম্ভুপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের সিএইচসিপি ডা. অপূর্ব কুমার দাস জানান, প্রতি দিন এখানে গড়ে ৬৫ থেকে ৭৫ জন বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত নারী-পুরুষ ও শিশু রোগী চিকিৎসা নিয়ে থাকে। এ ক্লিনিকে চিকিৎসা নিতে আসা সম্ভুপুর গ্রামের মোছাঃ আক্তার বানু, মোছাঃ নুরবানু বেগম, মোছাঃ মরিয়ম বেগম ও শারমিন আক্তার জানান, গ্রামাঞ্চলের দুঃখী মানুষের বিনামূল্যে চিকিৎসা নেয়ার অন্যতম স্থান এসব কমিউনিটি ক্লিনিক। একই সময় চিকিৎসা নিতে আসা হারপুর গ্রামের আলম হোসেন, বোরাম গ্রামের বিপ্লব ও কাঁটাবাড়ী গ্রামের সায়েম জানান, এসব কমিউনিটি ক্লিনিক চালু হওয়ায় এলাকার জটিল ও কঠিন রোগাক্রান্ত মানুষ ছাড়া সাধারণ যে কোন রোগে অসুস্থ লোকজন বিনামূল্যে প্রয়োজনীয় ওষুধ পাওয়ার ফলে তারা বেজায় খুশি। মহাদেবপুর উপজেলার লক্ষ্মীপুর কমিউনিটি ক্লিনিকে গিয়ে দেখা যায়, রোগীদের উপচেপড়া ভিড়। সেখানকার সিএইচসিপি ডা. বিকাশ চন্দ্র বর্মণ জানান, এই ক্লিনিকে প্রতিদিন গড়ে ৫৫ থেকে ৬০ জন রোগী চিকিৎসা নিতে আসে। এখানে চিকিৎসা নিতে আসা লক্ষ্মীপুর গ্রামের শিরিনা আক্তার, সঞ্চিতা, হাফিজা, শাহানাজ, রেহেনা, এলিনা এবং জোতকাউন গ্রামের মারুফা জানায়, তারা এ ক্লিনিকগুলো থেকে নিয়মিত চিকিৎসা পাওয়ার ফলে তাদের উপজেলা সদর বা অন্য কোন প্রাইভেট ক্লিনিকে যেতে হচ্ছে না।

প্রকাশিত : ২২ ডিসেম্বর ২০১৪

২২/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: