মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

অবশেষে আজ থেকে বুয়েটে উঠছে জাতীয় পতাকা

প্রকাশিত : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৪
  • শিক্ষা ভবনে স্থাপিত বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ কর্নারও খুলল

স্টাফ রিপোর্টার ॥ অবশেষে আজ মহান বিজয় দিবস থেকে নিয়মিত জাতীয় পতাকা উঠছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট)। জনকণ্ঠ পত্রিকায় জাতীয় পতাকা তোলার বিষয়ে বুয়েটের অনীহার বিষয়ে প্রতিবেদন প্রকাশের পর সমালোচনার মুখে কর্তৃপক্ষ পতাকা উত্তোলনের উদ্যোগ নিয়েছে। তবে কর্তৃপক্ষের কথা আর কাজে মিল দেখার অপেক্ষায় আছেন প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষক, শিক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্টরা। এদিকে সাংবাদিকদের সমালোচনার মুখে পড়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের বিষয়ে টনক নড়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি)। সমালোচনার মুখে কর্তৃপক্ষ অবশেষে বিজয় দিবসের আগ মুহূর্তে খুলে দিয়েছে শিক্ষা ভবনে স্থাপিত বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ কর্নার। এদিকে খুলে দেয়া হলেও বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ কর্নার বছর জুড়ে বন্ধ রাখার ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছে প্রগতিশীল শিক্ষক-কর্মকর্তারা।

বিজয় দিবসের ঠিক আগ মুহূর্তে সোমবার শিক্ষাঙ্গনজুড়ে বুয়েট ও মাউশির বিষয়টি আলোচনার জন্ম দিয়েছে। এর আগে গত ১৩ ডিসেম্বর জনকণ্ঠ পত্রিকায় প্রকাশিত হয় ‘যেখানে তৈরি হয়েছিল জাতীয় পতাকা সেখানেই ওড়ে না/ বুয়েটের কেন এই অনীহা? ‘শিরোনামে বিশেষ প্রতিবেদন। বিষয়টি নিয়ে বুয়েটের প্রগতিশীলদের মাঝে সব সময় অসন্তোষ থাকলেও প্রতিবেদন প্রকাশের পর তা প্রকাশ্যে রূপ নেয়। বুয়েট বঙ্গবন্ধু পরিষদের নেতৃবৃন্দ পতাকা উত্তোলনের পক্ষে শক্ত অবস্থান নেন। জানা গেছে, সমালোচনার মুখে শেষ পর্যন্ত জাতীয় পতাকা উত্তোলন করার বিষয়ে বুয়েট কর্তৃপক্ষ উদ্যোগী হয়েছে। ইতোমধ্যেই পতাকা উত্তোলনের জন্য রেজিস্টার্ড ভবনের ছাদে স্ট্যান্ড বসানো হয়েছে। দু’জন কর্মচারীকেও বলা হয়েছে নিয়মিত পতাকা উত্তোলন করতে। উপাচার্য অধ্যাপক খালেদা ইকরাম বলেছেন, আগে নিয়মিত পতাকা উত্তোলন করা হয়নি। বিশেষ দিনে উত্তোলন করা হয়েছে। তবে দোয়া করবেন ১৬ ডিসেম্বর থেকেই আমরা নিয়মিত পতাকা উত্তোলন করব। এজন্য কর্মচারীদের প্রশিক্ষণও দেয়া হয়েছে। বলা হয়েছে প্রতিদিন সূর্যোদয়ের সময়ে পতাকা উত্তোলন করতে এবং সূর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে নামিয়ে ফেলতে। ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. দেলোয়ার হোসেনও জানিয়েছেন, আমরা উদ্যোগ নিয়েছি। আগেই আমরা উদ্যোগ নিয়েছিলাম। উপাচার্যও এ বিষয়ে কথা বলেছেন। আমরা উদ্যোগ নিচ্ছি যাতে নিয়মিত পতাকা উত্তোলন করা হয়। এজন্য একটি নির্দিষ্ট জায়গায় পতাকার জন্য স্ট্যান্ড বসানো হবে, যেখানে একটি চত্বরও থাকবে। যাতে সেখানে শিক্ষার্থীরা গিয়ে বসতেও পারে। উল্লেখ্য, মহান মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশের মানচিত্র শোভিত প্রথম পতাকার বুয়েটে বসেই করেছিলেন শিব নারায়ণ দাশ। লাল বৃত্তের মাঝে হলুদ রঙের মানচিত্র শোভিত দেশের এ পতাকার সঙ্গে তাই বুয়েটের সম্পর্ক নিবিড়। অথচ স্বাধীনতার পর সেই বুয়েটেই বছরের দু-একটি বিশেষ দিন ছাড়া জাতীয় পতাকা ওড়ানো হয় না। জাতীয় পতাকার প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর বিষয়ে সাংবিধানিক বিধি বিধান, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কঠোর আদেশ থাকার পরও দেশের অন্যতম এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ জাতীয় পতাকা উত্তোলনের কোনো ব্যবস্থাই রাখেনি। বিভিন্ন সময়ে পতাকা উত্তোলন করার দাবি উঠলেও প্রতিক্রিয়াশীলদের দাপটে তা কার্যকর হয়নি। প্রগতিশীল শিক্ষকরা বলছেন, এখানে পতাকা উত্তোলনের জন্য সেই অর্থে জোরালো কোন দাবি কখনও ওঠেনি।

এদিকে মহান মুক্তিযুদ্ধের বিষয়ে টনক নড়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি)। সমালোচনার মুখে কর্তৃপক্ষ অবশেষে বিজয় দিবসের আগ মুহূর্তে খুলে দিয়েছে। যদিও গত দুই বছর ধরে এটি প্রায় বন্ধই ছিল। অবস্থা এমন যে, ২০১২ সালের ১৮ ডিসেম্বর সাবেক মহাপরিচালক অধ্যাপক নোমান উর রশীদের বিশেষ উদ্যোগে কর্নার প্রতিষ্ঠা হলেও বন্ধ থাকায় দর্শনার্থীরা সেখানে যেতে পারেননি। অথচ শিক্ষা ভবনে প্রতিদিন আসেন সারাদেশের শত শত শিক্ষক-কর্মচারী। দুই বছরে দর্শনার্থী প্রবেশের করুণ চিত্রের প্রমাণ মেলে পরিদর্শন খাতার স্বাক্ষর দেখলেও। সোমবার বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ কর্নারে প্রবেশ করে দেখা যায়, দুই বছরে খাতায় স্বাক্ষর আছে মাত্র ১৭ জনের। যার মধ্যে আবার উদ্বোধন করার দিন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, তথ্য মন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, শিক্ষা সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরীর স্বাক্ষর আছে। এছাড়া আছে শিক্ষা অধিদফতরের হাতেগোনা কয়েকজনের স্বাক্ষর। প্রগতিশীল শিক্ষক-কর্মচারীরা বলছেন, শিক্ষা প্রশাসনে বিশেষ করে শিক্ষা অধিদফতরে বিএনপি-জামায়াতের দাপটের কবলে পড়েছে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ কর্নার। এই চক্র মহাপরিচালক অধ্যাপক ফাহিমা খাতুনকে অন্ধকারে রেখে একের পর এক অপকর্ম করিয়ে যাচ্ছে।

প্রকাশিত : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৪

১৬/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

অন্য খবর



ব্রেকিং নিউজ: