আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

জাতীয় জাদুঘরে শহীদ স্মরণে কবিতা পাঠের আসর

প্রকাশিত : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৪
  • সংস্কৃতি সংবাদ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মহান বিজয় দিবসকে ঘিরে রাজধানীতে চলছে বর্ণিল নানা আয়োজন। এরই ধারাবাহিকতায় মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী বীর শহীদদের স্মরণে এক কবিতা পাঠের আয়োজন করা হয় জাতীয় জাদুঘরের নলিনীকান্ত ভট্টশালী মিলনায়তনে সোমবার বিকেলে। কবিতা পরিষদ আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক। বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক ড. ফয়জুল লতিফ চৌধুরী ও ১৯৭১ গণহত্যা ও নির্যাতন আর্কাইভ এবং জাদুঘরের ট্রাস্টি সম্পাদক ডাঃ শেখ বাহারুল আলম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পরিষদের সভাপতি কবি হাবিবুল্লাহ সিরাজী। অনুষ্ঠানে শুরুতেই মুক্তিযুদ্ধে বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এরপর কবি কাজী নজুরুল ইসলামের ‘বাংলাদেশ’ কবিতাটি আবৃত্তি করেন বিশিষ্ট আবৃত্তিশিল্পী লায়লা আফরোজ। অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধ আমাদের প্রাণের, চেতনার অংশ ভাগ হয়ে আজীবন জাগরূক থাকবে। মুক্তিযুদ্ধে শুধু সমরযোদ্ধারাই নয়, কবি, লেখক, শিল্পী যার যার জায়গা থেকে যুদ্ধ করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা ছিনিয়ে এনেছেন। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম শহীদদের এ আত্মত্যাগে প্রভাবিত হয়ে আগামীতে একটি সুখী সমৃদ্ধশালী এবং আসাম্প্রদায়িক দেশ গড়ার প্রত্যয়ে বলীয়ান হবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা। অনুষ্ঠানে স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন কবি সৈয়দ শামসুল হক, আনোয়ারা সৈয়দ হক, মতিন বৈরাগী, মুহাম্মদ নূরুল হুদা, মুহাম্মদ সামাদ, হারিসুল হক, তারিক সুজাত, রবিউল হুসাইন, ইকবাল আজিজ, বুলবুল মহলানবিস, মানিক মোহাম্মদ রাজ্জাক, আমিনুর রহমান সুলতান, নাহার ফরিদ খান, সৈয়দ আল ফারুক, মাসুদ পথিক, পিয়াস মজিদ, উন্মুল খায়ের প্রমূখ। সমগ্র অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন কবি আসলাম সানী।

বিজয় উৎসবের দ্বিতীয় দিনে শিল্পকলায় বর্ণাঢ্য আয়োজন ॥ শিল্পকলা একাডেমিতে চলছে ১৩ দিনব্যাপী বিজয় দিবসের উৎসব। একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে, এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হল এবং জাতীয় সঙ্গীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে এ আয়োজন। বর্ণাঢ্য নাচ, গান, আবৃত্তি, কবিতা পাঠ, নাটক মঞ্চায়ন ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত এ উৎসবের দ্বিতীয় দিন উদযাপিত হয়। বহ্নিশিখা সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর ‘বাংলার হিন্দু, বাংলার খ্রীস্টান’ গানটির সমবেত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে শুরু হয় দ্বিতীয় দিনের কার্যক্রম। অনুষ্ঠানে ‘ও পৃথিবী এবার এসে বাংলাদেশ নাও’ গানটির সঙ্গে সমবেত নৃত্য পরিবেশন করে বাংলাদেশ একাডেমি অব ফাইন আর্টসের শিল্পীরা। অনুষ্ঠানে একক সঙ্গীত পরিবেশন করেন শিল্পী রফিকুল আলম, ফকির আলমগীর, শাম্মী আকতার, ফকির শাহাবুদ্দিন, কানন বালা সরকার, সুজিত মোস্তফা, ইফফাতা আরা নার্গিস, মীর শরীফ হাসান লেলিন, নবীন কিশোর গৌতম প্রমুখ। আবৃত্তি পরিবেশন করেন ডালিয়া আহমেদ, আহকামউল্লাহ, আসলাম সানী। দ্বৈতসঙ্গীত পরিবেশন করেন সুচিত্রা ও মোমিন। সমবেত নৃত্য পরিবেশন করেন নাচের সংগঠন ভাবনা ও স্পন্দন। এ ছাড়া মানিকগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমির প্রযোজনায় ও আনন জামনের নির্দেশনায় মঞ্চায়ন হয় ‘বালিকা স্বর্ণপশম ও একটি ভেড়ার গল্প।’ অন্যদিকে একই সময়ে একাডোমর সঙ্গীত ও নৃত্যকলা কেন্দ্র মিলনায়তনে প্রদর্শিত হয় তথ্যচিত্র ‘মুজিবনগর সরকার’ ও ‘আমার বন্ধু রাশেদ।’

বীরাঙ্গনাদের নিয়ে ‘কমলা কালেকটিভ’ নাটক মঞ্চায়ন শুরু আজ ॥ বিজয় দিবস উপলক্ষে বীরাঙ্গনাদের যাপিতজীবন নিয়ে নাটক ‘কমলা কালেকটিভ’ ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে মঞ্চায়নের উদ্যোগ নিয়েছে প্রযোজনা সংস্থা যাত্রিক। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় রাজধানীর গুলশান ক্লাবে নাটকটির প্রথম মঞ্চায়ন হবে। আগামীকাল বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় নাটকটির দ্বিতীয় মঞ্চায়ন হবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। সোমবার সকালে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান নাটকটির প্রযোজনা সংস্থা ‘যাত্রিক’ ও এর সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা। সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন যাত্রিকের কর্ণধার সাদাত সায সিদ্দিকী, নাটকটির রচয়িতা লিসা গাজী, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নাসিরউদ্দিন ইউসুফ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক হাসান আরিফ, নাটকটির নির্দেশক ফিলিপ ওজকান ও লাইট ডিজাইনার নাসিরুল হক। সংবাদ সম্মেলনে নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বলেন, বীরাঙ্গনাদের বর্তমান অবস্থা খুবই নাজুক। ১৯৭৫ সালের আগ মুহূর্ত পর্যন্ত তাদের থাকা খাওয়ার ব্যাপারে এক ধরনের সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা ছিল। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পর তাদের আবার নেমে আসতে হয় অনিশ্চিত গন্তব্যে। তিনি আরও বলেন, পৃথিবীব্যাপী মুক্তিযুদ্ধকে এড়িয়ে যে এক নিশ্চুপ ষড়যন্ত্র চলছে সে মুহূর্তে এ ধরনের কাজ এক ধরনের সাহসিকতার পরিচয় বহন করে। সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, নাটকটি ১৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় মঞ্চায়ন হবে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে, ১৯ ডিসেম্বর বিকেল সাড়ে ৫টায় শিল্পকলা একাডেমির পরীক্ষণ হলে, ২৬ ডিসেম্বর সিরাজগঞ্জের মনসুর আলী মিলনায়তনে বিকেল ৫টায়, ৩০ ডিসেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় চট্টগ্রাম থিয়েটার ইনস্টিটিউটে অনুষ্ঠিত হবে নাটকটির সমাপনী মঞ্চায়ন হবে। সবগুলো মঞ্চায়ন দর্শকদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। এতে অভিনয় করেছেন লিসা গাজী ও অমিত রাহমান।

দনিয়া মঞ্চের বিজয় উৎসব ॥ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত নগরজুড়ে চার দিনব্যাপী বিজয় উৎসবের তৃতীয় দিন সোমবার দনিয়াতে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক আয়োজন। বিকেলে দনিয়া সাংস্কৃতিক মঞ্চের অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন করেন সম্মিলিত সাস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ। শাহনেওয়াজের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন গিয়াস উদ্দিন। সুরতাল সঙ্গীত একাডেমি ও জোটভুক্ত সকল সংগঠনের শিল্পীদের অংশগ্রহণে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে শুরু হয় অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করে আরোহী শিল্পীগোষ্ঠী, ঐতিহ্য সাংস্কৃতিক গোষ্ঠী। আবৃত্তি পরিবেশন করেন অগ্র সাংস্কৃতিক বিকাশ কেন্দ্রের শিল্পীরা।

প্রকাশিত : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৪

১৬/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: