আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

রাজকীয় অভ্যর্থনা সিগ্রিতে

প্রকাশিত : ১৫ ডিসেম্বর ২০১৪

ডাইন্যাস্টি টাওয়ারের পঞ্চম তলায় ঢুকলেই যেন রাজকীয় এক অভ্যর্থনা পাওয়া যায়। আলোকসজ্জা থেকে শুরু করে ইন্টেরিয়রের সবকিছুতেই পাওয়া যায় আভিজাত্যের ছোঁয়া। সঙ্গে রয়েছে হালকা মিউজিকের সঙ্গে সুন্দর-শান্ত পরিবেশ। সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ১২০ আসনবিশিষ্ট এই রেস্টুরেন্টটি প্রথম দেখাতেই নজর কাড়বে যে কারোরই।

এর পরের লক্ষ্যবস্তু খাবারের মেন্যু। মোগলাই খাবারের নাম শুনলে কার না জিভে জল আসে? আর সেখানে যখন রেস্টুরেন্টের সব মেন্যুই পুরোদস্তুর মোগলাই খাবার দিয়ে পূর্ণ, সেখানে তো কথাই নেই। ভেজ, নন-ভেজদের জন্য আলাদা মেন্যু থাকায় নিরামিষভোজীরাও দারুণ উপভোগ করতে পারবেন সিগ্রির খাবার। ধুন্দার পনির টিক্কা, দিলয়ালি টিক্কা, মেথি মাহি টিক্কা, ডাল সিগ্রি, মুলতানি পরোটা, রায়তা, গুলাব জামুন! নানা বাহারের নানা নামের আরও কত না খাবার।

মেন্যুবুক না দেখলে হয়ত কল্পনা করেও বোঝা সম্ভব নয়। মোগলাই খাবারের বিশেষত্ব বোঝাতে রান্নার একটি মজার কায়দা বলা হয়। আর তা হলো অল্প আঁচে কয়লার সাহায্যে রান্না করা হয় সিগ্রির বেশিরভাগ খাবার। তাই খাবারে পাওয়া যায় অন্যরকম এক স্বাদ।

রেস্তোরাঁয় ঢুকেই চোখ পড়বে আলোকছটা। ছাদে টিউবলাইটের আদলে রয়েছে আলোক প্রক্ষেপণ ব্যবস্থা। এই লাইটিং এদের একেবারে সিগনেচার ব্যাপার।

খাবার টেবিলেই বসেই ভোজন রসিকরা দেখবে রসুই ঘরের কীর্তি চেয়ার, টেবিল, কাটা-চামচ বেশ ঝকঝকে-তকতকে। সহকারী ব্যবস্থাপক জাকারিয়া সম্রাট জানান, তিনি এই প্রতিষ্ঠানের অন্য একটি রেস্তোরাঁতে অনেকদিন কাজ করেছেন। সেই অভিজ্ঞতা থেকে ভালো করেই জানেন অতিথি সেবার বিষয় তারা অনেক গুরুত্বের সঙ্গে দেখে। আর সার্বিক তত্ত্বাবধানে থাকা এমদাদুল হক জানান, ‘এখানকার সব কর্মচারীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছে কোম্পানির নির্দেশনা অনুযায়ী।’

এই ভারতীয় খাবারের রেস্তোরাঁয় পাচক হিসেবে আছেন ভারতেরই তিনজন। খাবারে ‘খাঁটি’ স্বাদ বজায় রাখাই তাদের মূল উদ্দেশ্য।

মিরপুরে এখন বিশ্বের নামীদামী ব্যাংকের যেমন শাখা আছে তেমনি আছে দেশীয় স্বনামধন্য ফ্যাশন হাউসের আউটলেট। সেই তুলনায় এখানে সিগ্রির আঙ্গিক ও মানের রেস্তোরাঁর বোধহয় অভাবই আছে।

সুযোগ-সুবিধা এবং খাবারের মান বিচারে মূল্য তালিকা বেশ সহনশীল বলা যায়। সিগ্রিতে দু’জন বেশ স্বাচ্ছন্দ্যে খাবার খেতে পারেন এক হাজার ২০০ টাকার মধ্যেই।

এ ছাড়া কোন অনুষ্ঠানের আয়োজনের ক্ষেত্রে নিজের সাধ্যের মধ্যেই মজাদার খাবার আয়োজনে সাহায্য করবে সিগ্রি কর্তৃপক্ষ। দুপুর ১২টা থেকে বেলা সাড়ে ৩টা এবং সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত সোয়া ১১টা সপ্তাহের প্রতি দিন দুপুর কিংবা রাতের খাবারে মোগলাই স্বাদ নিতে তাই ভোজনরসিকদের জন্য সিগ্রিতে যাওয়ার আমন্ত্রণ রইল সব সময়ে জন্য! যোগাযোগের জন্য সিগ্রি বাংলাদেশ, ডাইন্যাস্টি টাওয়ার, প্লট-১, রোড-১২, ব্লক-সি, সেকশন-৬, মিরপুর, ঢাকা-১২১৬।

নজরুল হোসেন অয়ন

প্রকাশিত : ১৫ ডিসেম্বর ২০১৪

১৫/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: