কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

দশ হাজার বছর গাছের বয়স!

প্রকাশিত : ১২ ডিসেম্বর ২০১৪
  • জানা-অজানা

মানুষ বাঁচে বড়জোর এক’শ বছর। প্রাণীকুলের সবচেয়ে বেশি আয়ুর অধিকারী কচ্ছপও টেনেটুনে তিন’শ বছর ঘুরে বেড়াতে পারে। কিন্তু আমাদের নিরব বন্ধু গাছ ক’বছর বাঁচে? এক’শ? দুই’শ? হাজার? আমরা এবার এমন এক গাছের কথা জানব, যেটা কি না বেঁচে আছে টানা দশ হাজার বছর!

বিজ্ঞানী ইবনে সিনা বলেছিলেন, মানুষ যদি ধুলোবালি আর অবিশুদ্ধ বাতাস নাক দিয়ে না নিত, তাহলে হাজার বছর বাঁচতে পারত। তা কিন্তু সম্ভব হবে না। কারণ, বাতাসে প্রতিনিয়ত যে পরিমাণে দূষিত কণা এসে ভিড় জমাচ্ছে, তাতে মানুষের পক্ষে গড়ে ষাট-সত্তর বছর বাঁচাই কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। শুধু মানুষ কেন, আবহাওয়ার পরিবর্তন বিশ্বের গোটা জীবকুলেরই ওপর বড়সড় প্রভাব ফেলেছে। বৃক্ষবৈচিত্র্য আজ হুমকির মুখে। আশার কথা, এরই মাঝে বিজ্ঞানীরা খুঁজে পেয়েছেন বিচিত্র এক বৃক্ষ। যে বৃক্ষটি বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন জীবন্ত বৃক্ষ। বলুন দেখি, গাছটির বয়স কত হতে পারে? গবেষকরা জানিয়েছেন, গাছটির বয়স প্রায় দশ হাজার বছর! অদ্ভুতুড়ে এই বৃক্ষের নাম জিক্কো। সুইডেনের দালারনা রাজ্যের একটি পর্বতের নাম ফুলুপজালেট। সেখানে গেলে ওই পর্বতের ওপর সবুজ ডানাওয়ালা একটি ঝোপ জাতীয় গাছ চোখে পড়বে। ওই বৃক্ষটিই বুড়ো জিক্কো।

সবচেয়ে প্রাচীন জীবন্ত এ বৃক্ষ আবিষ্কার করেছেন লিফ কুলম্যান। অধ্যাপনা করছেন উমিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিজিক্যাল জিওগ্রাফি বিভাগে। এই অধ্যাপকের একটি পোষা কুকুর ছিল। কুকুরটি মারা যায় কয়েক বছর আগে। ওই কুকুরের নাম ছিল জিক্কো। পোষা কুকুরের নামেই কুলম্যান নিজের আবিষ্কৃত প্রাচীন বৃক্ষটির নাম রেখেছেন ‘ওল্ড জিক্কো।’

সাধারণত কোন গাছের বয়স মাপা হয় ওই গাছের চক্রগুণে। কিন্তু বুড়ো জিক্কোর বয়স নির্ধারণ করা হয়েছে কার্বন ডেটিং পদ্ধতিতে। কখনও কখনও কোন গাছের কাণ্ড মারা গেলেও শেকড় ঠিকঠাক মাটির সঙ্গে মিতালি বজায় রেখে বেঁচে থাকে। জিক্কোর ক্ষেত্রে তেমনটি ঘটেছে। তার কাণ্ডের বয়স কয়েকশ’ বছর হলেও, পুরো গাছ হিসেবে তার বয়স প্রায় দশ হাজার বছর! জিক্কোর একেকটি কাণ্ড ছয় শ’ বছর পর্যন্ত বাঁচে। এরপর সেখানে আরেকটি কাণ্ড তৈরি হয়। উচ্চতায় জিক্কো ষোল ফুট। ইতোমধ্যে গিনেস বুক অব রেকর্ডসেও নাম উঠেছে। গবেষকরা এ রকম বিশটি গাছের একটি দলের সন্ধান পেয়েছেন, যাদের প্রত্যেকের বয়স আট হাজার বছরের কাছাকাছি। ‘কাগজ তৈরির জৈব কারখানা’ নামেও এদের খ্যাতি আছে।

মাঈন উদ্দিন

প্রকাশিত : ১২ ডিসেম্বর ২০১৪

১২/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: