আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বিশ্ববাস্তবতার মানচিত্র রাজা ... এবং অন্যান্য

প্রকাশিত : ১১ ডিসেম্বর ২০১৪
বিশ্ববাস্তবতার মানচিত্র রাজা ... এবং অন্যান্য

অপূর্ব কুমার কুন্ডু ॥ ভুঁইফোড় আর মেটাফোর এক না যেমনিভাবে আগাছা আর বটবৃক্ষ এক না। একটা তৎকালীনতো অপরটি মহাকালীন। ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রাম ও পরবর্তী তিন দশকের রাজনীতির প্রেক্ষাপটে ভারতের সাবেক প্রতিমন্ত্রী শশী থারুর উপন্যাস ‘দ্য গ্রেট ইন্ডিয়ান নভেল’। মহাকাব্য মহাভারতের বিভিন্ন চরিত্রকে তিনি ভারতের রাজনীতিকদের চরিত্রে রূপ দিয়ে যখন লিখে ফেললেন উপন্যাসটি তখনই সাহিত্যের ভাষায় এই বিবর্তন মেটাফোর। গ্রীক দর্শনে ঈশ্বর করুনাময়, সর্বোব্যাপী এবং জল-স্থল-অন্তরিক্ষে সর্বত্রই তার অবস্থান। ফলে মানুষ চাইলেই তাকে দেখতে পায় এবং নিজের মতো করে পেতে চায়। নিজেকে আড়াল করতে ঈশ্বর অবস্থান নিলেন মানবহৃদয়ে এবং মানবহৃদয় ঈশ্বর অন্বেষণে মহাবিশ্বের সর্বত্র খুঁজল শুধুমাত্র নিজের হৃদয়ের দিকে না তাকিয়ে। অনেকটা তেমনিভাবে জলে-স্থলে-অন্তরিক্ষে সর্বত্র খুঁজে ক্লান্ত সুদর্শনা যখন উপলদ্ধি করল রাজ্যের রাজা বাহিরে না বরং অন্তরে, তখনই লেখা শেষ করলেন রবীন্দ্রনাথ তার নাটক রাজা। গ্রীক দর্শনের প্রেক্ষাপটে রবীন্দ্রনাথের নাটক রাজা মেটাফোর। আবার রাজা নাটকের অদৃশ্য রাজার আদলে প্রেসিডেন্ট বুশ এবং সহযোগী দেশগুলোর প্রেসিডেন্টরা যখন সস্ত্রাসবাদ দমন, গণতন্ত্র পুনর্¯’াপন, বিশ্বায়নের নামে বিভিন্ন স্বাধীন দেশকে আমেরিকানাইজেশন করার সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসনে নামলো এবং প্রাচ্যনাটের প্রযোজনায় নির্দেশক আজাদ আবুল কালাম তুলে ধরলেন ‘রাজা... এবং অন্যান্য’ মঞ্চায়নে, তখন এই প্রযোজনাটিই ‘রাজা’ নাটকের বিপরীতে মেটাফোর। ভুক্তভোগী সুদর্শনার আত্মোপলব্ধির নাটক রাজা অবলম্বনে ভুক্তভোগী বিশ্বমানবের প্রতিনিধিত্বকারী আজাদ আবুল কালামের নাটক ‘রাজা... এবং অন্যান্য’ মঞ্চায়িত হলো গত ৬ ডিসেম্বর শিল্পকলা একাডেমির এক্সাপরিমেন্ট হলে।

জলে-স্থলে-অন্তরিক্ষে যে কোন স্থানেই দৃশ্যমান হয়ে রাজাকে সশরীরে দেখতে আকুতির বাঁধনে বাঁধে রানী সুদর্শনা। বারং বার নিষেধ সত্ত্বেও রাজাকে বাহিরে আনাই তার চাওয়া। সঙ্গিণী সুরঙ্গমা সতর্ক করেছিল কারণ মনোচক্ষে যা দেখবার তা চর্ম চক্ষে দেখতে চাওয়া প্রহলিকা। হলও তাই। বসন্ত উৎসবে রাজা ভেবে যার বরমাল্য সে গ্রহণ করল সে সুবর্ণ নামের এক পদাতিক সৈন্য মাত্র। রাজা শূন্য রাজ্য পেয়ে তা করায়াক্ত করতে কাঞ্চিরাজ কূটকৌশলে বসন্ত উৎসবে উপস্থিত। লোভের দাবানলে উৎসব প্রাঙ্গণ পুড়ল, রাজার থেকে দূরে সরে আসায় রানীকে করায়ক্ত করতে যেয়ে পার্শ্ববর্তী রাজারা যেভাবে উন্মও হল, তা দেখে রানীর মোহ ভাঙ্গল এবং দুঃখের তাপে খাদমুক্ত হয়ে রানী নিজের অন্তরের মাঝে অন্তরাত্মা রাজাকে উপলব্ধি করল, তা নিয়েই রবীন্দ্রনাথের নাটক ‘রাজা’। নাটকের গঠন এবং সংলাপ অক্ষুণœ রেখে প্রাসঙ্গিক কিছু সংলাপ সংযোজনের মধ্যে দিয়ে আজাদ আবুল কালাম মূলত রাজা নাটকের নাট্য মঞ্চায়নের নাটকীয়তা রচনা করছেন ‘রাজা...এবং অন্যান্য’ সৃজন কর্মের মধ্যে দিয়ে। রাজা নাটকের মেটাফোর রাজা ... এবং অন্যান্য।

অন্যদের ভিড়ে নাট্যদল প্রাচ্যনাট যে তার নিজস্ব শক্তি এবং ক্ষমতার কারণে স্বকীয় এবং স্বতন্ত্র সে বিষয় দৃশ্যত দৃশ্যমান কিন্তু দলের প্রাণ ভোমরা তথা শক্তির গহিন স্থল আজাদ আবুল কালাম রাজার মতই নেপথ্যে অবস্থান অথচ সকলের মাঝেই বিরাজমান। রাজাকে কণ্ঠস্বরে মঞ্চে উপস্থাপন করলেন নেপথ্যে থেকে ওভার ভয়েসে, বুশ প্রশাষণ ও তার সহযোগী মিত্রদের ফুটেজ ফোটালোন দুদিকের দুটি ভিডিও প্রজেকশানে, কাঞ্চিরাজ-সুদর্শনা-সুবর্ণদের জীবন্ত উপস্থিতি নিশ্চিত করলেন প্রাচ্যনাটের নিজ হাতে তেরি অভিনেতা-অভিনেত্রীদের দিয়ে সাবলীল অভিনয়ে, রবীন্দ্র সঙ্গীত-ধ্রুপদী সঙ্গীত-হালের হিপহপ সুরের লওমায় অতীত-বর্তমান-ভবিষ্যৎ-এর প্রবহমানতার আবহকে আটকালেন মহাকালের মহাকাব্যিক ভঙ্গিমায়, নৃত্যের ঝরনা ধারায় অব্যক্ত ভাবকে বিকাশিত রূপ দিলেন নাটকের সংলাপও দৃশ্যের রসাস্বদনে। স্বল্প দৈর্ঘ্য লেখার শর্তমেনে শুধু এটাই ভাববার, শম্ভু মিত্রের হাত দিয়ে রবীন্দ্র নাটকের যেমন জয়যাত্রা ঠিক তেমনি নির্দেশক আজাদ আবুল কালামের হাত দিয়ে রবীন্দ্র নাটকের অগ্রযাত্রা। যাত্রা পথে যে যার চিন্তা করে সেতার সত্তা পায়। নাটক মঞ্চায়ন শেষে সারিবদ্ধ অভিনেতা-অভিনেত্রীদের ভিড়ে রাজার চরিত্র রূপদানে অভিনেতা আজাদ আবুল কালাম সশরীরে উপস্থিত না হয়ে যেমন বুঝলেন আসলে রাজাটাকে ঠিক তেমনি শো শেষে সমস্ত মঞ্চায়নের মূল কারিগরের অন্বেষণে একটি বেসরকারী টিভি চ্যানেলের উপস্থাপক ও ক্যামেরাম্যান যেমনিভাবে নিজেরা সুদর্শনা হয়ে রাজাকে খুঁজতে যেয়ে সুবর্ণকে খুঁজে পেল, তাতে স্পষ্ট নাট্য প্রযোজনাটি জীবনের মতোই সত্য। ফলে অদৃশ্য হতে পারার মতো শক্তিমান ব্যক্তিত্ব আজাদ আবুল কালামের কাছে সবিনয় নিবেদন, আর্থ-সামাজিক কারণ কিংবা প্রশংসার প্রহসনই একমাত্র কারণ হতে পারে না নব সৃজনের অন্তরায়। অন্তরায়ের অপর কারণ পালে হাওয়া না থাকার পাশাপাশি নদীতে খাদের কমতি থাকা। প্রতিকূল পরিবেশে পাগলামি করার মতো কিছু পাগল আছে বলেই সভ্যতার চাকা বহমান। পাগলামোর ভঙ্গিমায় বিশ্ববাস্তবতার জীবন্ত উপস্থাপনা প্রাচ্যনাট প্রযোজিত ‘রাজা ... এবং অন্যান্য’।

প্রকাশিত : ১১ ডিসেম্বর ২০১৪

১১/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: