আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

শিশু হাসপাতালে অত্যাধুনিক উপায়ে ‘জেনেটিক রোগ নির্ণয়’ শুরু

প্রকাশিত : ৩ ডিসেম্বর ২০১৪

স্টাফ রিপোর্টার ॥ অত্যাধুনিক উপায়ে ‘জেনেটিক রোগ নির্ণয় ’ চিকিৎসা কার্যক্রম চালু করেছে ঢাকা শিশু হাসপাতাল। ফলে বিভিন্ন জটিল জেনেটিক রোগ প্রাথমিক অবস্থাতেই শনাক্ত করা সম্ভব হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা পড়লে অনেক দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত রোগীকেও সুস্থ করে তোলা যাবে। মঙ্গলবার ঢাকা শিশু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এ তথ্য জানায়।

ঢাকা শিশু হাসপাতালের বিশেষজ্ঞরা জানান, আধুনিক বিশ্বে রোগকে প্রধানত দুটি ভাগে ভাগ করা হয়। একটি জেনেটিক বা বংশগত, অন্যটি এনভায়রমেন্টাল বা পরিবেশগত। জেনেটিক রোগ গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বেশিরভাগ জেনেটিক রোগ জন্মের আগে নির্ণয় করা সম্ভব। এর ফলে মা গর্ভধারণ করার পর বাচ্চা প্রসব করবেন কিনা তা নির্ধারণ করতে পারেন, অন্যদিকে জেনেটিক রোগের কারণে বাচ্চার যে শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধকতা হতে পারে এ ব্যাপারে বাবা-মা আগে থেকেই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেন। তাই অত্যাধুনিক পদ্ধতিতে জেনেটিক রোগ নির্ণয়ের উপর গুরুত্ব দিচ্ছে ঢাকা শিশু হাসপাতাল ও বাংলাদেশ হিউম্যান জেনেটিক রিসার্চ ফাউন্ডেশন। শিশুদের বিভিন্ন জেনেটিক রোগ সম্পর্কে গণসচেতনতা ও প্রশিক্ষিত জনগোষ্ঠী তৈরি করার উদ্দেশ্যে ২০০৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ‘বাংলাদেশ হিউম্যান জেনেটিক রিসার্চ ফাউন্ডেশন’। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই বিভিন্ন জেনেটিক রোগ সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন কাজ করে আসছে এ ফাউন্ডেশন। প্রাথমিক পর্যায়ে থ্যালাসেমিয়া রোগের ব্যাপারে সচেতনতা তৈরি এবং এ রোগের বাহকদের খুঁজে বের করার উদ্যোগ নেয় এই ফাউন্ডেশন। ঢাকা শিশু হাসপাতালে ২০১৩ সালের মে মাসে আন্তর্জাতিক মানের ডিএনএ ল্যাব প্রতিষ্ঠা করার পর এ কাজের গতি আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে থ্যালাসেমিয়া রোগ প্রতিরোধ করার জন্য শিশু জন্মের পূর্বেই কোরিওনিক ভিলাই নমুনা সংগ্রহ করে প্রি- নেটাল ডায়াগনোসিস করা হচ্ছে। গত ৩০ নবেম্বর বাংলাদেশ হিউম্যান জেনেটিক রিসার্চ ফাউন্ডেশনের সভাপতি অধ্যাপক ওয়াকার আহমেদ খানের নেতৃত্বে অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ঢাকা শিশু হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক মঞ্জুর হোসেনের সঙ্গে এক বিশেষ সভায় মিলিত হন। ঢাকা শিশু হাসপাতালে মেডিক্যাল জেনেটিক বিভাগ চালু, প্রয়োজনীয় অবকাঠামো তৈরি এবং হাসপাতালের অর্গানোগ্রামে উক্ত বিভাগ অন্তর্ভুক্ত করার অনুমোদন দেয় ঢাকা শিশু হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা বোর্ড।

ঢাকা শিশু হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক মঞ্জুর হোসেন জানান, বাংলাদেশ হিউম্যান জেনেটিক রিসার্চ ফাউন্ডেশন ও ঢাকা শিশু হাসপাতালের মেডিক্যাল জেনেটিক বিভাগ যৌথভাবে অতিসত্বর নবজাতক স্ক্রিনিং প্রোগ্রাম চালু করবে। ফলে নবজাতকের বিভিন্ন জটিল রোগ যেমন হাইপোথাইরয়েডিজম এবং অন্যান্য জেনেটিক রোগসমূহ প্রাথমিক অবস্থায় নির্ণয় করা সš¢ব হবে। আর অসংখ্য শিশু গুরুতর অসুস্থ ও জটিল রোগ থেকে রক্ষা পাবে।

প্রকাশিত : ৩ ডিসেম্বর ২০১৪

০৩/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: