হালকা কুয়াশা, তাপমাত্রা ১৮.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কাগজপত্রহীন মা বাবা ॥ যুক্তরাষ্ট্রে থাকতে পারবেন

প্রকাশিত : ২০ নভেম্বর ২০১৪
  • নিয়মকানুন শিথিলের উদ্যোগ ওবামার

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত লাখ লাখ কাগজপত্রহীন লোকের অভিবাসন সম্পর্কিত নিয়মকানুন শিথিল করতে যাচ্ছেন। মার্কিন নাগরিকদের বা স্থায়ী বৈধ রেসিডেন্টদের মা-বাবা এমন কাগজপত্রহীন অভিবাসীদের সেদেশ থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার বিপদ থেকে রেহাই দেয়ার পদক্ষেপ নিচ্ছেন তিনি। হোয়াইট হাউসের সলা-পরামর্শ সম্পর্কে অবহিত এমন এক সূত্রে একথা জানা যায়। ওবামা অভিবাসন সম্পর্কে এক নির্বাহী নির্দেশের বিস্তারিত বিষয় উপস্থাপনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এ সপ্তাহেই এ পদক্ষেপ নেয়া হতে পারে। অভিবাসন ক্ষেত্রে সংস্কার সাধনের অনেক চেষ্টা কংগ্রেসে অচল হয়ে পড়তে দেখার পর ওবামা মনে করছেন, এখন তাঁর একাই উদ্যোগ নেয়ার সময় এসেছে। খবর এএফপি ও ইয়াহু নিউজের।

ওই সূত্রে বলা হয়, নাগরিকদের বা স্থায়ী রেসিন্টেদের কোন্ কোন্ ধরনের মাতা-পিতা ঐ নির্দেশের আওতায় পড়বেন, সেই সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য এখনও জানা যায়নি। ওবামা প্রশাসন যুক্তরাষ্ট্রে পাঁচ বা ১০ বছর ধরে বসবাস করছেন এমন মাতা-পিতাকে অন্তর্ভুক্ত করে বিভিন্ন বিকল্প পথ নিয়ে ভেবে দেখছে।

ওবামার এক শীর্ষ সহকারীর ক্যাপিটাল হিলে বৃহস্পতিবার সিনেটের ডেমোক্র্যাটিক দলীয় সদস্যদের সঙ্গে ভোজসভায় মিলিত হওয়ার কথা। হোয়াইট হাউসের চীফ অব স্টাফ ডেনিস ম্যাকডোনাফ ঐ রুদ্ধদ্বার ভোজসভায় অভিবাসন প্রশ্নে চাপের মুখে থাকবেন বলে মনে হয়। তিনি অর্থনীতি এবং মধ্যবর্তী নির্বাচনপরবর্তী আইন প্রণয়নগত কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা করবেন। সোমবার ইউবিভিশনের সঙ্গে এক সাক্ষাতকারে সিনেট মেজরিটি লিডার ডেমোক্র্যাট হ্যারি রিড বলেন যে, অভিবাসন প্রশ্নে ওবামার ‘এখনই’ উদ্যোগ নেয়া উচিত।

ওবামা কাগজপত্রহীন কিছুসংখ্যক লোকজনকে বহিষ্কৃত হওয়ার ভয় থেকে মুক্ত থেকে অন্তত সাময়িকভাবে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস ও কাজ করতে দেয়ার ব্যবস্থা করবেন বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। ওবামার নির্বাহী নির্দেশে সীমান্ত আরও নিরাপদ করার পদক্ষেপও অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে বলে একাধিক সূত্রে জানা যায়। ওবামা একথা জোর দিয়ে বলবেন বলে মনে হয় যে, গুরুতর অপরাধে জড়িত ছিল এমন অবৈধ অভিবাসীদের বহিষ্কার করতে চান।

ওবামা ইতোপূর্বে বার বার সতর্ক করে দেন যে, তিনি অভিবাসন সমস্যার সুরাহা করার পদক্ষেপ নেবেন, কারণ কংগ্রেসের রিপাবলিকানরা এ বিষয়ে আইন পাস করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। তিনি একথা বলেন যে, এমনকি তিনি একতরফা পদক্ষেপ নিলেও কংগ্রেস তার নির্দেশের স্থলে স্থায়ী আইন বিধিবদ্ধ করতে পারবে। গত দুই সপ্তাহ ধরে কংগ্রেসের রিপাবলিকান সদস্যরা ওবামাকে এসব পদক্ষেপ গ্রহণ থেকে বিরত রাখার উপায় খুঁজে বের করার চেষ্টা করেন। তাঁরা যুক্তি দেন, কেবল কংগ্রেসেরই আইনের মাধ্যমে এরূপ উদ্যোগের সূচনা করা উচিত।

সিনেট ২০১৩ সালে ব্যাপকভিত্তিক দ্বিদলীয় অভিবাসন বিল পাস করেছিল। কিন্তু প্রতিনিধি পরিষদের রিপাবলিকান সদস্যরা এরূপ কোন বিল পাসের পথে বাধা দেন। তাঁরা প্রথমে যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্ত নিরাপদ করার দিকে মনোযোগ দিতে চান বলে জানান।

ওবামা রবিবার বলেন, যখন অভিবাসন ব্যবস্থার উন্নতি সাধনের ক্ষমতা অন্তত পরবর্তী দু’বছর আমার হাতের রয়েছে তখন আমি চিরদিনের মতো অপেক্ষা করতে পারি না। তিনি অস্ট্রেলিয়ায় জি২০ শীর্ষ সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছিলেন।

তিনি বলেন, যে অভিবাসন ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে বলে সবাই স্বীকার করছে, সেটির উন্নতি ঘটানোর চেষ্টা যদি আমি না করি, তবে আমি আমার কর্তব্য থেকে বিচ্যুত হব।

কংগ্রেসে দু’দলের মধ্যে কোয়ালিশন না হলে ওবামা যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত ও কর্মরত লাখ লাখ কাগজপত্রহীন অভিবাসীদের নাগরিক হওয়ার পথ নির্দেশ করে কোন ব্যাপকভিত্তিক সংস্কার আনতে পারবেন না।

প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার জন বোয়েনার গত সপ্তাহে সাংবাদিকদের বলেন, প্রেসিডেন্ট যদিও এ পথেই চলতে থাকেন, তবে আমরা তার বিরুদ্ধে প্রাণপণে লড়ব। ওবামা এতে সংবিধান লঙ্ঘন করবেন বলে বোয়েনার সতর্ক করে দেন।

প্রকাশিত : ২০ নভেম্বর ২০১৪

২০/১১/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: