আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

জীবন কথন ॥ রণজিৎ বিশ্বাস

প্রকাশিত : ২০ নভেম্বর ২০১৪
  • ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন

: আপনি কেমন আছেন?

: আমি কেমন আছি বললে আপনি খুশি হবেন?

: এটি কি কোন জবাব হলো!

: কেন, জবাব হবে না কেন?!

: জবাব হবে কী ভাবে?! আপনি তো আপনার বিরক্তিকর বিটকেলে ধারায় ফিরে গেলেন!

: আমার বিরক্তিকর বিটকেলে ধারা কোন্টি?

: জবাব না দিয়ে প্রশ্নের পিঠে প্রশ্ন করা।

: প্রশ্নের পিঠে প্রশ্ন আমি সবাইকে করি না। আপনাকে যে করলাম, তার কারণ আছে। দিলে যদি চোটও পান, কিছু মনে করবেন না। আপনারা, মুক্তিযুদ্ধের দুশমন ও লুকোনো দুশমন, যারা জগতসংসারে কোন ধরনের নিরপেক্ষতাকে পছন্দ করেন না, যারা ধর্ম নিয়ে বাণিজ্য করেন, যারা খোদার ওপর খোদকারি করেন, ধর্মনিরপেক্ষতাকে যারা ধর্মহীনতা মনে করেন এবং সংক্ষেপে যদি বলিÑ ব্যবসায়িক কারণে যাঁরা যুদ্ধাপরাধী, মানবতাবিরোধী ও মৌলবাদীদের ভয়াবহভাবে সাপোর্টসমর্থন করেন, দৃষ্টিকটুভাবে দু’বাহুর মাঝখানে টানেন, কোলে বসান, কাঁধে চড়ান ও মাথায় চাপান, তাদের একটা সমস্যা আছে। আচরণগত প্রবলেম।

: সেটি আবার কেমন? তার চেহারাছবি কী রকম?!

: এই প্রবলেমটা খুব সাংঘাতিক। কিন্তু, আপনাদের মধ্যে তা খুব বেশি থাকার কারণে আপনার একটি নোংরা নোংরা ও থকথকেভাবে নিমজ্জিত থাকেন। আপনারা মানুষের ভাল চান না। বিশেষত যারা মুক্তিযুদ্ধ এবং মানুষ ও মানবতার কথা বলে তাদের বিনাশ কামনা করেন, ধ্বংস কামনা করেন; তারা কোনভাবে ভাল আছে জানলে আপনারা খারাপ থাকেন। তাই, আমার বা আমাদের ভাল থাকার সংবাদ আপনাদের দিতে চাই না। বুঝতে ভুল করবেন না। এটি আপনাদের জন্য আমার পর্যাপ্ত সহানুভূতি ও অমেয় কল্যাণ কামনার জন্যও হয়ে থাকে। আমি আপনাদের মনে কখনও চোট পৌঁছাতে চাই না। সবদিক থেকে আপনাদের সুস্থ সুন্দর স্বাভাবিক সুস্থির ও যতই বিশাল দুর্জেয় কামনা হোক, সুবাসিত ও সুরভিত দেখতে চাই। আমরা ক্রমে ক্রমান্বয়ে আবর্জনার ট্রান্সফরমেশন চাই। তাই জিজ্ঞেস করি, আমি কেমন আছিÑ আপনি শুনতে চান, আমি কেমন আছি শুনলে আপনার ভাল লাগে, আমার ও আমাদের কেমন থাকার খবরে আপনাদের মনে আনন্দ পয়দা হয়, আপনারা উল্লসিত হন এবং লম্ফনেউল্লম্ফনে প্রস্তুত হয়ে যান। ঠিক কিনা বলুন। খুব তাড়াতাড়ি জবাব দিয়ে আমাকে তুষ্ট করার কিংবা কষ্ট দেয়ার দরকার নেই, আপনি আপনার সকল নিষ্ঠুরতা ও হীনতাদীনতার মাঝে বক্ষে আপনার হস্ত স্থাপন করুন, আত্মার অনুসন্ধান করুনÑ যার নাম সার্চিং দ্য সৌলস; তারপর ধীরে ধীরে জবাব দিন। একটাই শুধু অনুরোধ, বড় বিনম্র অনুরোধ নীতিনৈতিকতার বিপরীতে দাঁড়িয়ে হলেও, নিজেদের প্রকৃতিবিরুদ্ধ অবস্থানে গিয়ে হলেও সত্য বললেন, সত্যাশ্রয়ী থাকবেন। আশা করি বুঝতে পেরেছেন, আমি কি বলতে চাইছি; আপনাকে সামনে পেয়ে ও আপনার প্রশ্ন শুনে আমার অন্তরের লিপিস্বরলিপি কোন্ সুরে কোন্ গান গাইতে চাইছে আশা করি অনুমান করতে পারছেন।

: বুঝতে পেরেছি। আরও একটা বিষয় বুঝতে পেরেছি।

আপনি আমাদের পছন্দই করেন না। আপনি মানুষই মনে করেন না আমাদের, সবসময় দুশমন দুশমন ভাবেন।

: যথার্থ বলেছেন ও ঠিক ধরেছেন। আমি আপনাদের পছন্দই করি না শুধু নয়, পছন্দ করার জন্য আমি নিজেকে কোনভাবেই বা কোন শর্তেই প্রস্তুত করতে পারি না। আপনার পর্যবেক্ষণে আরও একটু এক্সটেনশন থাকতে পারে। আমি, আপনাদের ঘৃণা করি, বড় তীব্রভাবে ঘৃণা করি, কারণ ঘৃণা না করে আমি পারি না। জিজ্ঞেস করবেন না এর কারণ কী?

: করলাম। বলুন, আমাদের জন্য, স্বাধীনতার দুশমন ও মুক্তিযুদ্ধের আদর্শবিরোধী এবং তাদের পালকপোষকÑ অভিভাবকদের জন্য এমন প্রবল অপছন্দ ও তীব্র ঘৃণার কারণ কী?

: আবার আমার ইচ্ছে করছে, পাল্টা প্রশ্ন করি। জিজ্ঞেস করিÑ পছন্দ করার মতো ও ঘৃণা না করার মতো আপনাদের চরিত্রে কী আছে?! কিন্তু, সে প্রশ্ন আমি করব না। সবসময় নিগেটিভ হতে ও থাকতে আমার ভাল লাগে না। আমি যা বলব, সরলসিধে ভাষায় পজিটিভলি বলব, এবং সরাসরি উত্তর দিয়ে আপনাদের সন্তুষ্ট করতে চেষ্টা করব। আপনাদের প্রতি আমার প্রবল অনুভূতির অর্থাৎ আপনাদের অপছন্দ করার ও ঘৃণার মাঝে বাঁচিয়ে রাখার কারণ দুটো এবং দুটোই খুব সিম্পল কারণ।

যেমন, একটি সঞ্চয় আপনাদের আছে, এবং একটি একেবারেই নেই। সহজতম শব্দবিন্যাসে যদি বলিÑ পছন্দ করার মতো কিছু আপনাদের নেই এবং ঘৃণা করার মতো অনেক বেশিকিছু আপনাদের সঙ্গে যুক্ত আছে, বড় আদরেসোহাগে জড়িয়েপ্যাঁচিয়ে আছে। বিধাতা আপনাদের একটি জিনিস বরাদ্দ দিয়েছেন, আরেকটি দেননি; একেবারেই দেননি। আমরা তো আপনাদের কিছু দিতেও পারি না, কিছু আপনাদের কাছ থেকে কেড়েও নিতে পারি না। শুধু কামনা করতে পারিÑ ভাল থাকবেন, সুস্থ থাকবেন, মানুষের মতো থাকবেন। মানুষের ঘৃণা ও বমনের মাঝে চিরদিন থাকবেন না। মন ও শরীর দুটোই খারাপ করবে।

লেখক : কথাসাহিত্যিক

প্রকাশিত : ২০ নভেম্বর ২০১৪

২০/১১/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: