মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
সোমবার, ২৮ মার্চ ২০১১, ১৪ চৈত্র ১৪১৭
চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চলতি বছরের মধ্যে সম্পন্ন করা হবে ॥ আইন প্রতিমন্ত্রী
স্টাফ রিপোর্টার ॥ যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে সংশয় ও সন্দেহের কোন অবকাশ নেই। শীঘ্রই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কার্যক্রম শুরু হবে। যুদ্ধাপরাধী ও ঘাতকদের বিচার করা বর্তমান সরকারের নির্বাচনী অঙ্গীকার এবং এটি নৈতিক দায়িত্বও। তাই চলতি বছরের মধ্যে চিহ্নিত যু্দ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পন্ন করা হবে।
রবিবার দুপুরে রমনা কালীমন্দিরের গণহত্যা দিবস উপলক্ষে মন্দির প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত সমাবেশ ও শ্রদ্ধাঞ্জলি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ কথা বলেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট কামরম্নল ইসলাম।
তিনি বলেন, স্বাধীনতার ঘোষক বিষয়টি একটি মীমাংসিত ইস্যু। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ এই রমনা রেসকোর্স থেকেই স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন। এটি সাংবিধানিক সত্য এবং বিষয়টি এখন শুধু সংবিধান সংশোধনের মাধ্যমে সংবিধানে সংযোজিত হবে।
'সংবিধানে বঙ্গবন্ধুকে স্বাধীনতার ঘোষক হিসেবে রাখা হলে বিএনপি ৰমতায় গেলে তা বাতিল করবে'_ সম্প্রতি বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের এমন বক্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, মওদুদ আহমেদের বক্তব্য পাগলের প্রলাপের ন্যায় শোনাচ্ছে। এ ধরনের উন্মাদনাপূর্ণ বক্তব্যে বিভ্রানত্ম না হওয়ার জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, দীর্ঘ ৪০ বছর পর যুদ্ধাপরাধী ও মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচার করতে কিছুটা সময় লাগছে। কারণ সরকার চায় এ বিচার স্বচ্ছ ও আনত্মর্জাতিক মানসম্পন্ন হোক।
এ্যাডভোকেট কামরম্নল ইসলাম অভিযোগ করেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে বাধা সৃষ্টি করার জন্য বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট নানামুখী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। তারা চায় যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা করতে। তবে যত ষড়যন্ত্র-চক্রানত্মই হোক, বর্তমান সরকার যুদ্ধাপরাধীরে বিচারে বদ্ধপরিকর। তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট তাদের ক্ষমতামলে দেশকে জঙ্গী ও তালেবানের আসত্মানা বানিয়েছিল। এখনও তারা এই দেশকে জঙ্গীবাদের আসত্মানা বানানোর চক্রানত্মে লিপ্ত। বাংলাদেশকে তারা আফগানিসত্মান বানাতে চায়। তাদের এই চক্রানত্ম যে কোন মূল্যে মোকাবেলা করতে হবে।
সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সৈয়দ হাসান ইমামের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন নাট্য ব্যক্তিত্ব ও জোটের সহ-সভাপতি অভিনেতা পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়, জোটের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও মুখপাত্র অরম্নণ সরকার রানা, প্রকৌশলী সহদেব বৈদ্য, কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এম.এ করিম, আব্দুল হাই কানু, আমরা মুক্তিযোদ্ধা সনত্মানের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন, জয়দেব রায় প্রমুখ।