মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৩, ৭ ফাল্গুন ১৪১৯
রাষ্ট্রপতির সম্মতি বিলে ॥ কাদের মোল্লার রায়ের বিরুদ্ধে আপীল দু’একদিনেই
সংসদ রিপোর্টার ॥ জাতীয় সংসদে পাস হওয়া বহুল আলোচিত আন্তর্জাতিক অপরাধ (ট্রাইব্যুনাল) (সংশোধন) বিলে সোমবার সম্মতি দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মোঃ জিল্লুর রহমান। রাষ্ট্রপতির সম্মতির মধ্য দিয়ে তরুণ প্রজন্মের দাবির মুখে বিলে আনা সব সংশোধনী আইনে পরিণত হলো।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, আজ-কালের মধ্যে সরকারের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ আদালতে কুখ্যাত রাজাকার কাদের মোল্লার রায়ের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আদালতে আপীল করা হতে পারে। সংশোধিত আইনের ফলে শুধু যুদ্ধাপরাধী নয়, যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে জড়িত জামায়াতে ইসলামীসহ অন্যান্য সংগঠনকেও বিচারের মুখোমুখি করা যাবে। রাষ্ট্রপতির সম্মতির পর এই আইনটি ২০০৯ সালের ১৪ জুলাই থেকে কার্যকর বলে ধরা হবে।
সংসদ সচিবালয় জানিয়েছে, রবিবার জাতীয় সংসদে পাস হওয়া আন্তর্জাতিক অপরাধ (ট্রাইব্যুনাল) (সংশোধন) বিলটি সোমবার সকালেই রাষ্ট্রপতির দফতরে তাঁর সম্মতির জন্য পাঠানো হয়। রাষ্ট্রপতির সম্মতির পর আইনটি গেজেট আকারে প্রকাশের উদ্যোগ নেয় সংসদ সচিবালয়। উল্লেখ্য, রবিবার সংসদ অধিবেশনে জনআকাক্সক্ষাকে গুরুত্ব দিয়ে সংসদে উত্থাপিত ওই বিলটি পাসের প্রস্তাব উত্থাপন করেন আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ। মন্ত্রী সংসদীয় কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে ট্রাইব্যুনালের রায়ের বিরুদ্ধে সরকার, বাদী ও বিবাদীপক্ষ সর্বোচ্চ আদালতে আপীলের বিধান রেখে পাসের প্রস্তাব করেন। তবে বিলে নতুন সংশোধনীর প্রস্তাব করেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। তিনি বিলের ৩ ধারায় দুটি সংশোধনী এনে যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধে ব্যক্তির পাশাপাশি সংগঠনকে বিচারের মুখোমুখি করার দাবি জানান। পরে এই সংশোধনী প্রস্তাব অন্তর্ভুক্ত করে বিলটি পাস হয়।
সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, মানবতাবিরোধী অপরাধের সঙ্গে জড়িত সংগঠনগুলোর মধ্যে রয়েছে গোলাম আযমের নেতৃত্বাধীন জামায়াতে ইসলামী, মৌলবী ফরিদ আহমেদের নেতৃত্বাধীন নেজামে ইসলামী পার্টি, সবুর খানের নেতৃত্বাধীন মুসলিম লীগ, ফজলুল কাদের চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন কনভেনশন মুসলিম লীগ ও খাজা খয়ের উদ্দিনের নেতৃত্বাধীন কাউন্সিল মুসলিম লীগ।