মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শনিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৩, ৬ মাঘ ১৪১৯
আলোচনার প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও কাল থেকে পেট্রোলপাম্প ধর্মঘট
স্টাফ রিপোর্টার ॥ সরকারের আলোচনায় বসার প্রতিশ্রুতির তোয়াক্কা না করেই রবিবার সকাল থেকেই ধর্মঘটে যাচ্ছে পেট্রোলপাম্প ও ট্যাঙ্ক-লরি মালিক সমিতির একাংশ। তেল বিক্রির কমিশন নিয়ে সরকার এবং পেট্রোলপাম্প মালিকরা ভিন্ন ভিন্ন অবস্থান নিয়েছেন।
সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করলেই পেট্রোলপাম্প মালিকরা কমিশন বৃদ্ধির দাবি করছে। কিন্তু দাম বৃদ্ধির সঙ্গে কমিশনের কোন সম্পর্ক নেই। পেট্রোলপাম্প মালিকরা তেল ডিপো থেকে নেয়ার এক থেকে দুই দিনের মধ্যে বিক্রি করে দেয়। ফলে তাদের অতিরিক্ত ব্যয় হচ্ছে এমনটিও বলতে পারবে না।
অন্যদিকে ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে ২০০২ সালের একটি বিধানের দোহাই দিয়ে বলা হচ্ছে তখন থেকেই নির্ধারণ করা হয়েছে জ্বালানি তেলের দাম শতকরা হিসেবের বদলে লিটারে নির্ধারণ করা হবে। এতে করে জ্বালানি তেলের ভর্তুকি কমাতে সরকার যতবার জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করছে ততবারই পেট্রোলপাম্প মালিকদের মুনাফার অঙ্ক বাড়ছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে প্রতিবেশী দেশ ভারতে এখন লিটার প্রতি (ডিজেল) কমিশন দিচ্ছে এক টাকা ৪১ পয়সা (আমাদের দেশীয় টাকার হিসেবে)। সেখানে আমাদের এখানে কমিশন দেয়া হচ্ছে এক টাকা ৪৫ পয়সা। এরপরও পাম্প মালিকরা প্রতিবার জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির পর অতিরিক্ত কমিশন দাবি করছে।
জ্বালানি বিভাগ সূত্র জনায়, ২০০৯ সালে বর্তমান সরকার দায়িত্ব নেয়ার সময় প্রতি লিটার ডিজেলের দাম ছিল ৪৪ টাকা। তখন প্রতিলিটার ডিজেলে কমিশন ছিল এক টাকা দুই পয়সা। পর্যায়ক্রমে তা বর্তমান সরকারের সময় বৃদ্ধি করে এক টাকা ৪৫ পয়সা করা হয়েছে। অর্থাৎ বর্তমান সরকারের সময় এই বৃদ্ধির হার ৩৯ ভাগ। এরপরও প্রতি লিটার ডিজেলে পেট্রোলপাম্পগুলো আরও ৮২ পয়সা কমিশন দাবি করছে।
জানা গেছে বিপিসির সঙ্গে বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে পেট্রোলপাম্প মালিক সমিতির বৈঠক হয়েছে। বিপিসি তাদের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়টি সরকারকে জানানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এ ছাড়া সোমবার বিকেলে মালিক সমিতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা ড. তৌফিক ই ইলাহী চৌধুরী এবং প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ এনামুল হকের সঙ্গে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু বৈঠক করে সমস্যা সমাধানের সরকারী আশ্বাস না মেনে রবিবার সকাল থেকেই ধর্মঘটে যাচ্ছে মালিক সংগঠনের একপক্ষ।
এদিকে শুক্রবার বিকেল সোয়া তিনটায় রাজধানীর কাকরাইলে অবস্থিত কার্যালয়ে বাংলাদেশ পেট্রোলপাম্প ও ট্যাঙ্ক-লরি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের আহ্বায়ক মোঃ নাজমুল হক রবিবার থেকে ধর্মঘটে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। এর আগে গত ১৩ জানুয়ারি এক সংবাদ সম্মেলনে ১৯ জানুয়ারির মধ্যে দাবি বাস্তবায়নের জন্য সরকারকে আল্টিমেটাম দিয়েছিল পরিষদ।