মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
রবিবার, ৬ জানুয়ারী ২০১৩, ২৩ পৌষ ১৪১৯
১৮ দলের হরতাল আজ আগেই গাড়িতে আগুন, বোমা হামলা
স্টাফ রিপোর্টার ॥ জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোটের ডাকে আজ রবিবার সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল। হরতালকে কেন্দ্র করে শনিবার বিকেল থেকেই রাজধানীতে উত্তাপ ছড়ানোর চেষ্টা চালানো হয়। হরতালের সমর্থনে বিভিন্ন জায়গায় মিছিল ও লিফলেট বিতরণ করে বিএনপি। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত হরতাল সমর্থকরা বোমা বিস্ফোরণ, বেশ ক’টি গাড়ি ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে নাশকতার চেষ্টা করে। এর ফলে জনমনে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। নাশকতার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে রাজধানীসহ সারাদেশে পুলিশ শতাধিক বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীকে আটক করেছে। তবে বিএনপির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে পুলিশী হামলায় ২১২ জন আহত ও প্রায় ২শ’ জন আটক হয়েছে। আজকের হরতালে দেশের কোথাও না কোথাও বড় ধরনের নাশকতা হতে পারে বলে আশঙ্কা করছে গোয়েন্দারা।
শনিবার বিকেলে রাজধানীর রমনা এলাকায় একটি পিকআপ ভ্যান (ঢাকা মেট্টো-ম-১০-৫৪৪০) প্রথমে ভাংচুর ও পরে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয় হরতাল সমর্থকরা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, শনিবার বিকেল সোয়া তিনটায় শাহবাগ থেকে ওষুধবহনকারী গ্লোব ফার্মাসিউটিক্যালসের একটি কাভার্ডভ্যান মৎস্য ভবনের দিকে যাওয়ার সময় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিশনের বিপরীত পাশে তাতে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায় হরতাল সমর্থকরা। এ ঘটনার পর এ এলাকা দিয়ে কিছু সময় যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। এ ব্যাপারে রমনা থানার ওসি শাহ আলম সাংবাদিকদের জানান, হরতাল সমর্থকরাই গাড়িটিতে আগুন দিয়েছে। বিকেল সোয়া ৪টায় আজিমপুর গার্লস স্কুল ও কলেজের সামনে গাজীপুরগামী ২৭ নম্বর রুটের একটি গাড়িতে (ঢাকা মেট্রো-জ-১১-১৭০৯) ১০-১২ জন যুবক হামলা চলায়। আগুন দেয় হরতাল সমর্থকরা। লালবাগ থানার ওসি আজিজ-উজ-জামান জানান, হরতাল সমর্থকরা গাড়িটিতে আগুন দিয়েছে। ওদিকে ডেমরার মাতুয়াইলে একটি প্লাস্টিক কারখানায় সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় রহস্যজনকভাবে আগুন লেগেছে। আগুনটি বৈদ্যুতিক গোলযোগ নাকি হরতাল সমর্থকরা পরিকল্পিতভাবে আগুন দিয়েছে তা নিশ্চিত নয়। এ ছাড়া মিরপুর, মহাখালী, বাংলামোটর ও বাড্ডাসহ বিভিন্ন জায়গায় হরতালকারীরা গাড়িতে আগুন দিয়েছে বলে জানা গেছে।
এ ছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে উপাচার্যের বাড়ির সামনে একটিসহ ৫টি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটে। সন্ধ্যা সোয়া ৫টা থেকে পৌনে ৬টার মধ্যে এই হাতবোমাগুলোর বিস্ফোরণ ঘটে বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আমজাদ আলী সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। উপাচার্যের বাড়ির সামনে একটি ছাড়াও আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউটের সামনে একটি, রোকেয়া হলের কাছে একটি এবং এসএম হলের কাছে অন্য দুটি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটে। সন্ধ্যা ৭টায় মৌচাকের কাছে হরতাল সমর্থকরা একটি হাত বোমা বিস্ফোরণ ঘটায়।
গত ২৬ ডিসেম্বর ১৮ দলীয় জোটের গণসংযোগ কর্মসূচী চলাকালে কাওরান বাজারের পথসভায় বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া বলেছিলেন, জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করা হলে তারা হরতাল পালন করবেন। ৩ জানুয়ারি রাতে সরকার জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর পর পরই দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে জরুরী বৈঠক করেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। সে বৈঠকেই হরতাল পালনের প্রাথমিক সিদ্ধান্ত হয়। তবে ৪ জানুয়ারি ১৮ দলীয় জোটের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য হরতালের ঘোষণা দেন। সেই সঙ্গে তিনি বলেন, হরতালে বাধা দিলে আরও কঠোর কর্মসূচী দেয়া হবে।
হরতাল চলাকালে বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে পুলিশ ও র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কঠোর অবস্থানে থাকবে বলে জানা গেছে। বিশৃঙ্খলাকারীদের বিরুদ্ধে দ্রুত শাস্তির ব্যবস্থা করতে গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে মোবাইলকোর্ট মোতায়েন করা হচ্ছে। শনিবার বিকেল থেকেই বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর বলেছেন, অন্যের কাজে বাধা না দিয়ে কোন ব্যক্তি বা দল হরতাল করলে কোন আপত্তি নেই। কিন্তু হরতালের নামে যানবাহন ভাংচুর বা কোন ধরনের বিশৃঙ্খলা করলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
হরতালের স্বপক্ষে রাজধানীতে বিএনপির লিফলেট বিরতণ ॥ জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে ১৮ দলীয় জোটের দেশব্যাপী সকাল-সন্ধ্যা হরতালের স্বপক্ষে শনিবার রাজধানীতে লিফলেট বিতরণ করেছেন বিএনপি নেতারা। দুপুরে শান্তিনগর কর্ণফুলি গার্ডেন সিটি থেকে শুরু করে শান্তিনগর কাঁচাবাজার ও মালিবাগ এলাকায় লিফলেট বিতরণ করেন তারা।
এতে অংশ নেন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবির খোকন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিব-উন নবী খান সোহেল ও সাধারণ সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু। এ সময় বিএনপি নেতারা বলছেন, হরতালে বাধা দিলে আরও কঠোর কর্মসূচী দেয়া হবে।
হরতালে জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেবে মওদুদ ॥ তেলের দাম বৃদ্ধিতে জনগণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাই হরতালে জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও তারেক রহমানের বন্ধু গিয়াসউদ্দীন আল মামুনের মুক্তির দাবিতে প্রজন্ম একাডেমী আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, সরকারের মন্ত্রীরা হরতাল প্রতিহত করার কথা বলছেন। কিন্তু রবিবারের হরতাল প্রতিহত করা হবে জনগণকে প্রতিহত করার শামিল। কারণ এটা সব শ্রেণী পেশার মানুষের হরতাল। আর ফের জ্বালানি তেলের দাম বাড়ালে সরকারের বিরুদ্ধে অসহযোগ আন্দোলন শুরু হবে।
অর্থমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে মওদুদ বলেন, আপনি হরতাল আহ্বানকারীদের উন্মাদ বলেছেন। একবার আয়নায় দাঁড়িয়ে নিজেকে দেখবেন কেমন লাগে। গত চার বছরে কখন, কোথায়, কোন বক্তব্যে জনগণের বাহবাহ পেয়েছেন তা মিলিয়ে দেখুন। তাহলেই আপনি কি আচার আচারণ ও বক্তব্য দিয়েছে তা বুঝতে পারবেন।
হরতালের সমালোচনা আওয়ামী লীগ নেতাদের মুখে মানায় না মঈন খান ॥ হরতালের সমালোচনা আওয়ামী লীগ নেতাদের মুখে মানায় না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান। তিনি বলেন, যে দল বিরোধী দলে থাকতে ১৭৩ দিন হরতাল দিয়েছে। তারা আবার বলে হরতাল ভাল না। এটা ভূতের মুখে রাম নাম। শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে জাগপা ছাত্রলীগের ৬৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
মঈন খান বলেন, প্রচলিত রাজনীতি পরিবর্তনের সময় এসেছে। আর এ পরিবর্তন করতে ছাত্র সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে। ইতিহাস বলে, আন্দোলন সফল করতে যখনই ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ গঠন করা হয়েছে তখনই বিজয় এসেছে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের পরিবর্তন বাকশালের দিকে। যা বিশ্বজিৎকে হত্যা করে আবার প্রমাণ করেছে। ছাত্রলীগের সমালোচনা করে এরা সেই ছাত্রলীগ যারা মেয়েদের সম্ভ্রমহানী নিয়ে সেঞ্চুরি উদযাপন করে।
হরতাল সম্পর্কে পাগলা মেহের আলীর কথা জনগণ শুনবে না : রিজভী ॥ হরতাল উন্মাদের সিদ্ধান্ত বলে উক্তি করায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে রবীন্দ্রনাথের পাগলা মেহের আলী চরিত্রের সঙ্গে তুলনা করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী বলেন, পাগলা মেহের আলীর বক্তব্যে জনগণ কর্ণপাত করবে না। তিনি বলেন, হরতাল উন্মাদের সিদ্ধান্ত বলে অর্থমন্ত্রীর যে উক্তি করেছেন তা কা-জ্ঞানহীন। শনিবার বিকেলে নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।