মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বৃহস্পতিবার, ২৬ এপ্রিল ২০১২, ১৩ বৈশাখ ১৪১৯
আলীম ও তার সহযোগীরা কড়ই কাদিপুরে ৩৭০ জনকে গুলিতে হত্যা করে
যুদ্ধাপরাধী বিচার
অব্যাহতি চেয়ে সাকার আবেদন খারিজ
স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর যুদ্ধাপরাধ মামলা থেকে অব্যাহতি চেয়ে রিভিউ পিটিশন ও অভিযোগ গঠন আদেশের সংশোধনী চেয়ে করা আবেদন দুটি খারিজ করে দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবু্যুনাল-১। একই ট্রাইব্যুনালে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত জামায়াতের নায়েবে আমির মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর বিরুদ্ধে তদন্ত কর্মকর্তা মোঃ হেলালউদ্দিনকে জেরা শুরু করেছেন আসামিপক্ষের আইনজীবী। মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদের মামলা আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ থেকে স্থানান্তর করে নবগঠিত ট্রাইব্যুনাল-২-এ নেয়া হয়েছে। অন্যদিকে একই অভিযোগে সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপি নেতা আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে অভিযোগ পড়ে শোনানো হচ্ছে ট্রাইব্যুনাল-২-এ। আজও অভিযোগ ট্রাইব্যুনালে উপস্থাপন করা হবে।
চেয়ারম্যান বিচারপতি মোঃ নিজামুল হক নাসিমের নেতৃত্বে তিন সদস্যবিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ বুধবার বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর দুটি আবেদন খারিজ করে দিয়েছে। ২৪ এপ্রিল আদেশের জন্য দিন ধার্য ছিল পরে তা পিছিয়ে ২৫ এপ্রিল দিন ধার্য করেন। এর আগে গত ১২ এপ্রিল সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর করা নয়টি আবেদনের মধ্যে পাঁচটি আবেদন ট্রাইব্যুনাল খারিজ করে দেয়।
বুধবার খারিজ করা আবেদনগুলো হলো ১. মামলা থেকে তাকে অব্যাহতি চেয়ে করা রিভিউ (পুনর্বিবেচনা) আবেদন ২. পুনরায় চার্জ গঠনের আবেদন। এই দুটি আবেদনের শুনানি শেষে ট্রাইব্যুনাল আদেশের জন্য এ দিন ধার্য করেন। ওই দিন ১২ এপ্রিল ট্রাইব্যুনালে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর আবেদনের শুনানি করেন তার আইনজীবী ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলাম। সরকার পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম।
আব্দুল আলীম ॥ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত (শর্তসাপেক্ষে জামিন) সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপি নেতা আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে অভিযোগ পড়ে শোনানো হচ্ছে। প্রসিকিউটর রানা দাশগুপ্ত অভিযোগপত্রে বলেন, একাত্তরের ২৬ এপ্রিল জয়পুরহাট থানার কড়ই কাদিপুর এলাকায় হিন্দু অধ্যুষিত গ্রাম ঘিরে একযোগে সশস্ত্র হামলা চালায়। আসামি আব্দুল আলীম ও তার দুষ্কর্মের সহযোগীরা গুলি করে ৩৭০ জনকে হত্যা করে। এছাড়াও আলীমের আরও দুষ্কর্মের তথ্য তুলে ধরা হয়। বুধবার ট্রাইব্যুনাল-২-এর চেয়ারম্যান বিচারপতি এটিএম ফজলে কবিরের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনালে সরকার পক্ষের প্রসিকিউশন এই অভিযোগ উপস্থাপন করেন।
এর আগে মঙ্গলবার থেকে আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি শুরু হয়। প্রসিকিউটর রানা দাসগুপ্ত আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগগুলোর মধ্যে দুটি অভিযোগ পড়ে শেষ করেন। আজ ১৭টি অভিযোগ পড়ে শোনানো হয়েছে। বুধবার যে অভিযোগগুলো তুলে ধরা হয়েছে, তার মধ্যে রয়েছে, পাহনন্দা গণহত্যা, কোকতারা, ঘোড়াপা, বাগজানা , কুটাহারায় লুটপাট, অগ্নিসংযোগ ও গণহত্যা, মিশন স্কুলে ৬৭ জন হিন্দু হত্যা, সমিরউদ্দিন ম-লসহ ১০ জনকে আটক, ৯ জনকে গণহত্যা, দোগাছি, চকবরকত, পিচুলিয়াসহ আশপাশের গ্রামে হামলা, অগ্নিসংযোগ, লুটসহ ৬ জনকে হত্যা। কামালগঞ্জে আসামির প্ররোচনামূলক ভাষণ, নওদা গ্রামে ইলিয়াস উদ্দিন সরদারসহ মোট ৪ জনকে অপহরণ, আটক ও হত্যা, ক্ষেতলালে হিন্দু অধ্যুষিত এলাকায় লুটপাট, অগ্নিসংযোগ ও গণহত্যা, আক্কেলপুরে আসামির প্ররোচণামূলক ভাষণ, ময়েন তালুকদারের বাড়িতে হামলা, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, পশ্চিম আমট্রতে গণহত্যা, মিশন স্কুল ক্যাম্পে আটক ধর্ষণ ও হত্যা, জয়পুরহাট সরকারী কলেজে গণহত্যা, গাড়োয়াল এবং তাদের আত্মীয়স্বজনসহ মোট ২৬ জনকে আটক ও হত্যা, নারী ধর্ষণ, খাস পাহনন্দাসহ আশপাশে গ্রামে হামলা ও নিরীহ লোকজনকে আটক, ফজলুল রহমান অপহরণ, আটক ও নির্যাতন। ১৫ মার্চ আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিলের পর গত ২৭ মার্চ ট্রাইব্যুনাল-১-এর চেয়ারম্যান বিচারপতি মোঃ নিজামুল হক নাসিমের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেয়। মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা, লুণ্ঠন ও আগুন ধরিয়ে দেয়াসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় বিশেষ শর্তে জামিনে থাকা আলীমের বিরুদ্ধে তিন হাজার ৯০৯ পৃষ্ঠার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়েছে। এতে বিএনপি নেতা আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে প্রসিকিউটর ২৮টি ঘটনায় ৭৪টি অভিযোগ এনেছে।
মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে গত বছরের ২৭ মার্চ জয়পুরহাটের বাড়ি থেকে আলীমকে গ্রেফতার করা হয়। ৩১ মার্চ তাকে ১ লাখ টাকায় মুচলেকা এবং ছেলে ফয়সাল আলীম ও আইনজীবী তাজুল ইসলামের জিম্মায় জামিন দেয় ট্রাইব্যুনাল।