১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২ পৌষ ১৪২৬, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 

এরিককে নিয়ে বিদিশার অভিযোগ, জিএম কাদেরের অস্বীকৃতি

প্রকাশিত : ১৭ নভেম্বর ২০১৯
এরিককে নিয়ে বিদিশার অভিযোগ, জিএম কাদেরের অস্বীকৃতি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ এরশাদের বারিধারা প্রেসিডেন্ট পার্কের বাসায় বিদিশা ও পুত্র এরিক এরশাদকে গৃহবন্দী করে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সাবেক স্ত্রী বিদিশা। এরিককে মানসিক নির্যাতনের অভিযোগও করেছেন তার মা বিদিশা। তার দাবি, এরিককে তিন বেলা ঠিকমতো খাবারও দেয়া হচ্ছে না। তাই সন্তানকে দেখাশোনা করতে বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কে উঠেছেন বিদিশা। কিন্তু এতে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদেরের সম্মতি নেই বলে জানিয়েছেন বিদিশা ও এরিক। তবে এ তথ্যকে মিথ্যা ও বানোয়াট বলে মন্তব্য করেছেন জিএম কাদের এমপি।

শনিবার জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী অফিস মিলনায়তনে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা পার্টির প্রতিনিধি সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জিএম কাদের তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের জবাব দিয়ে বলেন, বিদিশা ও এরিক এরশাদকে গৃহবন্দী করে রাখার খবর মিথ্যা। এ ধরনের খবর ছড়ানো হচ্ছে। এর পেছনের কারণ পরে বের হয়ে আসবে। জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা পার্টির আহ্বায়ক বীরমুক্তিযোদ্ধা জাফর উল্লা মজুমদার আজাদের সভাপতিত্বে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের আরও বলেন, যে মুক্তিযোদ্ধারা দেশের জন্য জীবন দিতে প্রস্তত ছিলেন, দেশের মানুষের ন্যায্য অধিকার আদায়ের সংগ্রামে তাদেরই দায়িত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে। জাতীয় পার্টির নেতৃত্বে নতুন বাংলাদেশ গড়তে মুক্তিযোদ্ধাদের এগিয়ে আসতে হবে। পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ শুধু মুখেই মুক্তিযোদ্ধাদের জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বলেননি, প্রতিটি কাজে প্রমাণ করেছেন। পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সম্মানিত করেছেন মুক্তিযোদ্ধাদের। মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য অফিস এবং ভাতার ব্যবস্থা করেছিলেন পল্লীবন্ধু। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান দেয়ার সেই ধারাকে আরও সমৃদ্ধ করেছেন। এজন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদও জানান জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান।

এ সময় জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মদান এবং দেশমাতৃকার জন্য অবদান জাতি আজীবন কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করবে। অনেকেই এমপি-মন্ত্রী হতে পারবেন কিন্তু যারা দেশের জন্য জীবনবাজি রেখে যুদ্ধ করেননি তারা কখনই মুক্তিযোদ্ধা হতে পারবেন না। আর এজন্যই পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ মুক্তিযোদ্ধাদের জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান হিসেবে অভিহিত করেছেন।

সম্মেলনে আরও বক্তব্য রাখেন প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আরিফুর রহমান খান, জহিরুল আলম রুবেল, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, মুক্তিযোদ্ধা পার্টির নেতা অধ্যক্ষ মোঃ তফাজ্জল হোসেন, এ্যাডভোকেট রেজাউল করিম বাসেত, বিল্লাল হোসেন, হাজী আফতাব উদ্দিন, ইকবাল হোসেন তাপস প্রমুখ।

এর আগে শুক্রবার রাতেই এরশাদের বারিধারা প্রেসিডেন্ট পার্কের বাসায় বিদিশা ও পুত্র এরিক এরশাদকে গৃহবন্দী করে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সাবেক স্ত্রী বিদিশা। তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে পুত্র এরিকের ফোন পেয়ে রাজধানীর বারিধারায় এরশাদের প্রেসিডেন্ট পার্কের বাসায় খাবার নিয়ে যান তিনি। তবে শুক্রবার সকাল থেকে কাউকেই তার সঙ্গে দেখা করতে দিচ্ছেন না বাড়ির পাহারায় থাকা নিরাপত্তা রক্ষীরা। এমনকি প্রয়োজনীয় ওষুধও আনতে দেয়া হচ্ছে না। এরশাদপুত্র এরিক ফোনে বিভিন্ন গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা বেরোতে চাচ্ছি। লোকজনকে ঢুকতে দিচ্ছে না।

বিদিশা বলেন, বৃহস্পতিবার এরিক আমাকে ফোন করেছে, বলছে, মা আমি আর সহ্য করতে পারছি না, থাকতে পারছি না, মা তুমি আমাকে বাঁচাও, আমাকে এখান থেকে বের করো। তাড়াতাড়ি আস। তারপর আমি নিজেই চলে এসেছি। এরিক আমাকে জড়িয়ে ধরে কেঁদে ফেলেছে। আমি বললাম কি হয়েছে তোমার? তখন ও বলল যে, আমাকে চাচা বলেছে তুমি তোমার মার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবা না, মার সঙ্গে কথা বলতে পারবা না। বলতে গেলে আমি ও আমার সন্তান দুজনেই অবরুদ্ধ অবস্থায়।

বিদিশা অভিযোগ করেন, প্রেসিডেন্ট পার্কে গিয়ে দেখেন এরিককে অযতœ-অবহেলায় রাখা হয়েছে। এরিক নিজেও অভিযোগ করেন, তাকে ঠিকমতো খাবার দেয়া হয় না। এমনকি গাড়িচালক তাকে মারধরও করেন। বিদিশা আরও অভিযোগ করেন, গণমাধ্যমের কাউকে বাসার ভেতরে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না। নিচে পুলিশ আটকাচ্ছে, তারা বলছেন জিএম কাদেরের নির্দেশে কাউকে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না। আমার অফিসের স্টাফ, আমার আত্মীয়-স্বজন যারা আসছেন তাদের কাউকেই জিএম কাদের ঢুকতে দিচ্ছেন না।

তিনি বলেন, আমাকে এরিক বলেছে, মা আমাকে জিএম কাদের সাহেব ভয়-ভীতি দেখিয়েছেন আমি যাতে তোমার সঙ্গে কথা না বলি, যোগাযোগ না করি। ড্রাইভার ওর (এরিক) গায়ে হাত তুলেছে, গালিগালাজ করেছে। এই জন্যই আমি চলে এসেছি।

বিদিশা বলেন, পুলিশ তো সব সময় নিচে থাকে। তারা এখন বাধা দিচ্ছেন জিএম কাদেরের নির্দেশে। সারাদিন গণমাধ্যমের মানুষ আসছে, আমার অফিসের স্টাফ আসছে। কাউকে ঢুকতে দিচ্ছে না। উনি (জিএম কাদের) গত তিন মাস ধরে এরিককে নিয়ে অসুস্থ রাজনীতি করছেন। এরিক তো তার চাচার নাম নিজেই বলেছে।

প্রকাশিত : ১৭ নভেম্বর ২০১৯

১৭/১১/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



শীর্ষ সংবাদ: