১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২ পৌষ ১৪২৬, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 

ক্ষুদ্রঋণে দারিদ্র্য বিমোচন হয় না

প্রকাশিত : ১৫ নভেম্বর ২০১৯
  • উন্নয়ন মেলা উদ্বোধনীতে প্রধানমন্ত্রী ॥ কেউ কেউ এর প্রবক্তা হিসেবে নাম যশ কামালেও বাস্তবতা ভিন্ন

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের সমালোচনা করে বলেছেন, এর মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচন হয় না, বরং দারিদ্র্য ‘লালন-পালন’ করা হয়। এক সময় আমরা দেখেছি ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে (কর্মসূচী) কেউ কেউ খুব বাহবা নেয়ার চেষ্টা করেছেন। এক সময় আমরাও এটাকে সমর্থন দিয়েছিলাম, ভেবেছিলাম যে এর মাধ্যমে বুঝি মানুষ দারিদ্র্যসীমার উপরে উঠতে পারবে। কিন্তু যখন আমরা বিষয়টা আরও গভীরভাবে দেখলাম, তাতে দেখলাম, আসলে এর মাধ্যমে দারিদ্র্য ঠিক বিমোচন হয় না। কেউ কেউ এর প্রবক্তা হিসেবে নাম-যশ কামালেও বাস্তবতা হচ্ছে যে দেশের জনগণ এর সুফল অতটা পায়নি।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে পল্লী কর্মসহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) আয়োজিত ‘উন্নয়ন মেলা ২০১৯’ উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ক্ষুদ্র ঋণটা স্বাধীনতার পরপরই জাতির পিতা শুরু করেছিলেন। যদিও আমাদের দেশে কেউ কেউ ক্ষুদ্র ঋণের প্রবক্তা সেজে বিশ্বে ভাল নাম টামও করে ফেলেছেন। কিন্তু দেখা গেছে হয়তো নিজে যতটা নাম কামিয়েছেন দেশের মানুষ ততটা শুভফল পায়নি, এটা হলো বাস্তব।

জাতির পিতা বিআরডিবির মাধ্যমে এই ক্ষুদ্রঋণ দেয়া শুরু করেন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মানুষকে কিভাবে সমবায়ের মাধ্যম একত্রিত করে উৎপাদন বৃদ্ধি এবং উৎপাদিত পণ্য বাজারজাত করে তাদের কিভাবে দারিদ্র্যসীমা থেকে বের করে আনবেন সেই পরিকল্পনাটাই জাতির পিতা নিয়েছিলেন। ২১ বছর পর দেশ পরিচালনায় এসেই আওয়ামী লীগ সরকার দারিদ্র্যকে দেশের প্রধান শক্র হিসেবে চিহ্নিত করে’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, দারিদ্র্যের বিরুদ্ধেই আমাদের লড়তে হবে এবং মানুষকে মুক্তি দিতে হবে। সে লক্ষ্যে আমরা স্বল্প মেয়াদি, দীর্ঘমেয়াদী এবং আশু পরিকল্পনা প্রণয়ন করি।

মূলত বিরোধী দলে থাকার সময়েই সরকারে গেলে দারিদ্র্য বিমোচনের কর্মসূচী পালনের পরিকল্পনা প্রণয়নের কাজ শুরু করে আওয়ামী লীগ এবং তারই ধারবাহিকতায় কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বলেও প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, ৯৬ থেকে ২০০১ সালে আওয়ামী লীগ সরকার পঞ্চম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়ন এবং তা বাস্তবায়নের পাশাপাশি ১০ বছর মেয়াদী প্রেক্ষিত পরিকল্পনা গ্রহণ করে।

তিনি বলেন, তাঁর সরকার ২০০৯ সালে সরকার গঠনের পর এমডিজির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ৬ষ্ঠ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়ন এবং তা বাস্তবায়ন করে এবং ৭ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়ন ও তা বাস্তবায়ন করা চলছে এবং এগিয়ে চলছে ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়নের কাজ। এর সঙ্গে সঙ্গে ২০১০ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত ১০ বছর মেয়াদী প্রেক্ষিত পরিকল্পনার বাস্তবায়ন চলছে এবং ২০২১ থেকে ২০৪১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ কিভাবে গড়ে উঠবে সেই প্রেক্ষিত পরিকল্পনার খসড়া ইতোমধ্যে তৈরি হয়ে গেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ জাতির পিতার হাতে গড়া সংগঠন। কাজেই সব সময় জনকল্যাণে কাজ করে যাওয়াই দলটির কাজ। যার প্রতিটি পদক্ষেপের লক্ষ্যই হচ্ছে, টেকসই উন্নয়ন এবং এসডিজির বাস্তবায়ন। স্বৈরশাসকদের প্রশাসনিক দুর্বলতার কথা উল্লেখ করে তিনি এটিকেও তাদের শাসনামলে বাংলাদেশের উন্নয়ন না হওয়ার একটি কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, যখন মিলিটারি ডিক্টেটররা ক্ষমতায় থাকে তখন সরকার থাকে দুর্বল। কেননা তাদের কোন ভিত্তি থাকে না। অর্থাৎ জনগণের কোন শক্তি থাকে না। এ সরকার ব্যবস্থা অপরের কাছে হাত পেতে চলে, নিজেদের সম্পদশালী করে গড়ে তোলে, ফলে দেশের মানুষ দুঃখ-কষ্ট-যন্ত্রণায় দিনের পর দিন ভুগতেই থাকে। জনগণের দিকে তাকানোর কেউ থাকে না।

জাতির পিতার এই পদাংক অনুসরণ করে গ্রামীণ জনগণের অর্থনৈতিক উন্নয়নে তাঁর সরকারের চালু করা সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর বিভিন্ন কর্মসূচী, যেমন- বয়স্ক ভাতা, বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্ততা ভাতা চালু, গরিবদের মাঝে খাদ্য বিতরণ, কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে এবং স্বল্পমূল্যে কৃষি উপকরণ বিতরণ, বর্গাচাষীদের বিনা জামানতে এবং স্বল্প সুদে ঋণ প্রদানের মত কর্মসূচীর উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমার নির্দেশ ছিল কৃষি ব্যাংক গ্রামে কৃষকদের কাছে চলে যাবে। হাটবারে গ্রামের হাটে বসে ঋণ প্রদান করবে এবং সেখান থেকেই আবার ঋণ সংগ্রহ করবে। এভাবেই আমরা কৃষকদের সহযোগিতা করেছি।’

কৃষকদের জন্য ১০ টাকায় ব্যাংক এ্যাকাউন্ট খোলা, কৃষি উপকরণ কার্ড প্রদান, বিএডিসিকে আরও উন্নত করে উন্নতমানের বীজ উৎপাদন ও বিতরণের কথাও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। ‘ঘরে ফেরা’, ‘আমার বাড়ি আমার খামার’, ‘আশ্রায়ণ’সহ বিভিন্ন দারিদ্র্যবান্ধব কর্মসূচীর উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশকে ভিক্ষুকমুক্ত করার জন্য সরকার এ ধরনের বিভিন্ন কর্মসূচির বাস্তবায়ন করছে। আমরা ভূমিহীনদের জমি দিয়েছি। যারা গৃহহারা তাদের ঘর করে দিয়েছি এবং দিচ্ছি। মানুষ যাতে নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারে সে ব্যবস্থা আমরা করেছি।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু একটি কথা বলতেন- ভিক্ষুক জাতির কোন ইজ্জত থাকে না। আমরা ভিক্ষুক জাতি হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করতে চাই না। আমরা নিজের পায়ে দাঁড়াতে চাই। সরকারের গৃহীত বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মসূচীর ফলে বর্তমানে দারিদ্র্যের হার ২১ শতাংশে নেমে এসেছে। এই হারকে ১৫/১৬ শতাংশে নামিয়ে আনতে চায় সরকার।

তাঁর সরকারের সময়ে দেশের অভূতপূর্ব আর্থসামাজিক উন্নয়নের জন্য বহির্বিশ্বে তাঁকে অনেক অনুসন্ধিৎসু প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয় উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’বিভিন্ন দেশে গেলে আমাকে প্রশ্ন করা হয়- বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতির ম্যাজিকটা কি? আমি তাদের বলি, আসলে কোনো ম্যাজিক নেই। দেশকে ভালবাসা, দেশকে জানা এবং দেশের মানুষের জন্য নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ করা- এটাই হলো মূল ম্যাজিক।’ তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশকে এখন আর কেউ অবহেলার চোখে দেখে না। বাংলাদেশ এখন অনেকের কাছেই ‘উন্নয়নের বিস্ময়,’ উন্নয়নশীল এক দেশ।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে পিকেএসএফ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থান ছাড়াও শিক্ষা, স্বাস্থ্য, দক্ষতা উন্নয়ন, প্রযুক্তি প্রভৃতি বিষয়ে গুরুত্বারোপ করে দেশে-বিদেশে একটি শীর্ষ স্থানীয় উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা লাভ করেছে। বর্তমানে এক কোটি চল্লিশ লাখ দরিদ্র ও নি¤œআয়ের পরিবারকে পিকেএসএফ বিভিন্ন কার্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করে তাদের অর্থনৈতিক অগ্রগতি ও জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

খাদ্য নিরাপত্তার পাশাপাশি মানুষের পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিতের লক্ষ্যে কাজ করার জন্য পিকেএসএফ’র সংশ্লিষ্টদের কাজ করার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা পরিবেশ সংরক্ষণ ও জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবেলা এবং দরিদ্র মানুষের সক্ষমতা বৃদ্ধিতেও পিকেএসএফ তার কর্মকা- সম্প্রসারিত করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। দেশের শিল্পায়ন এবং জনগণের কর্মসংস্থানের জন্য সারাদেশে একশ’ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার উল্লেখ করে তিনি বলেন, কৃষি জমি যেন রক্ষা পায় এবং যত্রতত্র শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে না উঠে। দুই বা তিন ফসলী জমির যেন ক্ষতি সাধন করতে না পারে এবং বিনিয়োগ আসে সেজন্যই এই অঞ্চল প্রতিষ্ঠা। তিনি বলেন, ভূমি ব্যবহারের জন্য সরকার নীতিমালা করে দিয়েছে। দুই বা তিন ফসলি জমি কেউ নষ্ট করতে পারবে না। কেউ এ ধরনের জমি নষ্ট করলে তারা সরকার প্রদত্ত সকল সুযোগ-সুবিধা বঞ্চিত হবে।

প্রান্তিক জনগোষ্ঠী এবং পিকেএসএফ’র বিভিন্ন কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারীদের উৎপাদিত পণ্যের বাজার সম্প্রসারণে সাত দিনব্যাপী এ মেলার আয়োজন করা হয়েছে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন এবং পিকেএসএফ চেয়ারম্যান ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। পিকেএসএফ’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ মইনুদ্দিন আবদুল্লাহ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন। মন্ত্রিপরিষদ সদস্যবৃন্দ, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টাগণ, সংসদ সদস্য, উর্ধতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তা, বিশিষ্ট ব্যক্তি, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, হাইকমিশনার এবং মিশন প্রধানগণসহ বিদেশি কূটনীতিকবৃন্দ এবং আমন্ত্রিত অতিথিরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে কৃষকদের কল্যাণ ও দারিদ্র্য নিরসন এবং কৃষির উন্নয়নে অসামান্য অবদানের জন্য সাবেক কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরীকে আজীবন সম্মাননা পুরস্কার দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই সম্মাননা স্মারক মতিয়া চৌধুরীর হাতে তুলে দেন। পুরস্কার হিসেবে একটি সম্মাননাপত্র, ক্রেস্ট এবং ৫০ হাজার টাকার চেক দেয়া হয়। গ্রামীণ এলাকা থেকে পিকেএসএফ’র সহযোগী প্রতিষ্ঠানসহ, বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারী সংস্থা, গবেষণা ও তথ্য প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এবং সেবামুখী সংগঠনসহ ১৩০টি সংস্থার মোট ১৯০টিরও বেশি স্টল মেলায় স্থান পেয়েছে। মেলায় রয়েছে তৃণমূল পর্যায়ের ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের কৃষি, খাদ্য এবং প্রচলিত পণ্য। এছাড়া, ৭ দিনে ৫টি সেমিনারও অনুষ্ঠিত হবে মেলায়। মেলা প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত চলবে।

প্রকাশিত : ১৫ নভেম্বর ২০১৯

১৫/১১/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



শীর্ষ সংবাদ: