১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

গত ৪৪ বছরে নৌ-দুর্ঘটনায় ৪ হাজার ৭১১ জনের প্রাণহানী ॥ নৌ-পরিবহণ প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত : ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:৫০ পি. এম.
গত ৪৪ বছরে নৌ-দুর্ঘটনায় ৪ হাজার ৭১১ জনের প্রাণহানী ॥ নৌ-পরিবহণ প্রতিমন্ত্রী

সংসদ রিপোর্টার ॥ স্বাধীনতার পর ১৯৭৬ সাল হতে ২০১৯ সালের নবেম্বর পর্যন্ত অর্থাৎ ৪৪ বছরে ৬৫৭টি নৌ দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে ৪ হাজার ৭১১ জনের প্রাণহানী ঘটেছে। এসব নৌ-দুর্ঘটনায় ৪৮২ জন মানুষ নিখোঁজ রয়েছে বলে সংসদকে জানিয়েছেন নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান।

সংসদে প্রতিমন্ত্রীর দেওয়া তথ্যানুযায়ী, গত ৪৪ বছরের মধ্যে নৌ-দুর্ঘটনায় সবচেয়ে বেশি মানুষের প্রাণহানী ঘটে ২০০৩ সালে। এ বছরে ৩২টি নৌ-দুর্ঘটনায় ৪৬৪ জন মানুষের মৃত্যু হয়। এছাড়া ১৯৮৬ সালে ১১টি নৌ-দুর্ঘটনায় ৪২৬ জন, ১৯৯৪ সালে ২৭টি নৌ-দুর্ঘটনায় ৩০৩ জন, ২০০০ সালে ৯টি নৌ-দুর্ঘটনায় ৩৫৩ জন, ২০০৫ সালে ২৮টি দুর্ঘটনায় ২৪৮ জন, ২০০৯ সালে ৩৪টি নৌ-দুর্ঘটনায় ২৬০ জন, ১৯৮৮ সালে ১১টি নৌ দুর্ঘটনায় ১০৮ জন, ১৯৯০ সালে ১৩টি নৌ দুর্ঘটনায় ১৬৮ জন, ১৯৯৩ সালে ২৪টি দুর্ঘটনায় ১৮৩ জন, ১৯৯৬ সালে ২০টি দুর্ঘটনায় ১৪৭ জন, ১৯৯৭ সালে ১১টি দুর্ঘটনায় ১০২ জন, ১৯৯৯ সালে ৬টি দুর্ঘটনায় ১০৪ জন, ২০০২ সালে ১৭টি দুর্ঘটনায় ২৯৭ জন এবং ২০০৪ সালে ৪১টি দুর্ঘটনায় ১২৭ জনের প্রাণহানী ঘটে। এছাড়াও বিভিন্ন বছরে নৌ-দুর্ঘটনায় প্রাণহানীর ঘটনা ঘটেছে।

বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য গোলাম মোহাম্মদ সিরাজের প্রশ্নের জবাবে নৌ-পরিবহণ প্রতিমন্ত্রী জানান, নৌপথের নাব্যতা উন্নয়ন করে সেবা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ছোট-বড় নদীগুলো খনন করার জন্য বর্তমান সরকার কর্তৃক একটি ড্রেজিং মাস্টার প্লান করা হয়েছে। উক্ত মাস্টার প্লান অনুযায়ী বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃক ১৭৮টি নদী খনন করে ১০ হাজার কিলোমিটার নৌ-পথ নাব্য করা হবে।

বেগম নাজমা আকতারের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী জানান, বর্তমানে বিআইডব্লিউটিসি’র অধীনে পাটুরিয়া সেক্টরে ২০টি, শিমুলিয়া সেক্টরে ১৯টি, চাঁদপুর সেক্টরে ৪টি, ভোলা সেক্টরে ৩টি ও লাহারহাট সেক্টরে ৪টিসহ মোট ৫০টি ফেরি নিয়মিত চলাচল করছে। ফেরি সার্ভিসের উন্নয়নে বর্তমান সরকারের আমলে ইতোমধ্যে ২টি রো রো ফেরি, ৬টি কে-টাইপ ফেরি, ১১টি ইউটিলিটি টাইপ ফেরি নির্মাণ করা হয়েছে। এ বছরের শেষ নাগাদ আরো ২টি কে-টাইপ ফেরি বহরে যুক্ত হবে।

প্রকাশিত : ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:৫০ পি. এম.

১৪/১১/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

জাতীয়



শীর্ষ সংবাদ:
ইন্টারনেটে কিছু দেখেই বিশ্বাস করবেন না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী || মহাখালীতে কোনক্রমেই আন্ত:জেলা বাস টার্মিনাল থাকতে দেয়া হবে না : মেয়র আতিক || দেশে এখন বিদ্যুতের ঘাটতি নেই : নসরুল হামিদ বিপু || প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নকে সার্থক করার সৈনিক হিসাবে কাজ করে যেতে হবে ॥ খাদ্যমন্ত্রী || রাষ্ট্রীয় সব অনুষ্ঠানে ‘জয় বাংলা’ জাতীয় স্লোগান হিসেবে ব্যবহার করতে হবে || ৫০ টাকার নতুন নোট বাজারে আসবে ১৫ ডিসেম্বর || জঙ্গীবাদ দমনে আমরা একটা পর্যায়ে চলে এসেছি ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী || রাজধানীর তেজগাঁওয়ের একটি ডাস্টবিনে নবজাতকের লাশ || আগামী ৪-৮ জানুয়ারি ৪০তম বিসিএস’র লিখিত পরীক্ষা || কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অজয় রায়কে সর্বসাধারণের শ্রদ্ধা ||