১৩ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

রানার্সআপ হয়ে ভুটান থেকে ফিরলো কিশোরী ফুটবলাররা

প্রকাশিত : ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:৩৯ পি. এম.
রানার্সআপ হয়ে ভুটান থেকে ফিরলো কিশোরী ফুটবলাররা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ স্বপ্ন ছিল ফাইনালে জিতে প্রতিশোধ নেয়ার পাশাপাশি শিরোপা পুনরুদ্ধারের। কিন্তু টাইব্রেকারে গিয়ে শট মিস করে শিরোপা জেতার স্বপ্নভঙ্গের নীল বেদনায় আক্রান্ত হতে হয়েছে লাল-সবুজের কিশোরী ফুটবলাররা। শুক্রবার রানার্সআপ ট্রফি নিয়ে বিমানযোগে ভুটান থেকে ফিরেছে গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যারা।

ভুটানের মাটিতে টানা দ্বিতীয় ফাইনালে একই প্রতিপক্ষের কাছে ফাইনালে হারের তেতো স্বাদ পায় তারা। গত মঙ্গলবার সাফ অ-১৫ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে তারা প্রতিপক্ষ ভারতের কাছে টাইব্রেকারে হেরে যায় ৫-৩ গোলে (নির্ধারিত ৯০ মিনিটের খেলা শেষ হয় গোলশূন্য ড্রয়ে)। তারপর সরাসরি টাইব্রেকারে গড়ায় খেলা। তাতে শট মিস করে বাংলাদেশের অধিনায়ক শামসুন্নাহার জুনিয়র। তার শট পোস্টে লেগে ফিরে আসে। ভারত ৫ শটে প্রতিটিতেই গোল করে। ফলে তাদের জয় নিশ্চিত হয়ে যাওয়ায় বাংলাদেশের পঞ্চম ও শেষ শটটি নিতে হয়নি। শিরোপা জিতে উল্লাসে ফেটে পড়ে ভারতের মেয়েরা। আর কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে বাংলাদেশ দল।

মজার ব্যাপার-সাফ অ-১৫ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের এই আসরে বাংলাদেশ-ভারত উভয় দলই এ নিয়ে টানা তৃতীয়বার ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছে। ভারত জিতেছে দুবার। বাংলাদেশ একবার। ২০১৭ আসরে ঢাকায় ফাইনালে বাংলাদেশ ১-০ গোলে এবং ২০১৮ আসরে ভুটানে ফাইনালে ভারত একই ব্যবধানে হারায় বাংলাদেশ। চলতি আসরে দু’দলই অপরাজিত দল হিসেবে ফাইনাল খেলে। এবার লিগ পর্বে দু’দলই পরস্পরের মুখোমুখি হলেও কেউ কাউকে হারাতে পারেনি। তবে ভারত গোল করেছে বেশি (১৫টি, এই আসরের সর্বাধিক), বাংলাদেশ করেছে কম (৫টি)। তবে গোল হজমের ক্ষেত্রে এগিয়ে বাংলাদেশই (২টি, ভারত ৩টি)।

এই আসরে তিন দেশ পাকিস্তান, মালদ্বীপ ও শ্রীলঙ্কা অংশ নেয়নি। ফলে দলের সংখ্যা কম (৪টি) হওয়াতে লিগ পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত হয়েছে তৃতীয়বারের মতো আয়োজিত এই আসর।

এ পর্যন্ত দু’দল মুখোমুখি হয়েছে ৫ বার। জিতেছে বাংলাদেশ ও ভারত ২ বার করে, ১টি ম্যাচ ড্র হয়। ২০১৭ আসরে রাউন্ড রবিন লিগ পদ্ধতিতে গ্রুপ পর্বে ভারতকে ৩-০ গোলে হারায় লাল-সবুজরা। ফাইনালে আবারও মুখোমুখি হয় দু’দল। ফাইনালে আবারও ভারতকে হারায় স্বাগতিক বাংলাদেশ, এবার ১-০ গোলে। পরের আসরটি হয় ২০১৮ সালে ভুটানে ফাইনালে বাংলাদেশকে ১-০ গোলে হারিয়ে শিরোপা জেতার পাশাপাশি বদলাও নিয়ে নেয় ভারত।

এই আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভুটানকে ২-০ গোলে হারিয়ে শুভসূচনা করেছিল বাংলাদেশ। পরের ম্যাচে নেপালকে ২-১ গোলে হারিয়ে ফাইনালে ওঠে বাংলাদেশ। পক্ষান্তরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভারত ৪-১ গোলে উড়িয়ে দেয় নেপালকে। পরের ম্যাচে ভুটানকে বিধ্বস্ত করে ১০-১ গোলে। লিগ পর্বে ভারত ১-১ গোলে ড্র করে বাংলাদেশের সঙ্গে।

এবার বাংলাদেশ দলে নতুন ১৪ ফুটবলার ছিল। তাদের নিয়ে শিরোপা পুনরুদ্ধার করার স্বপ্নটা আর পূরণ হলো না কোচ ছোটনের।

প্রকাশিত : ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:৩৯ পি. এম.

১৮/১০/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলা



শীর্ষ সংবাদ:
সন্ত্রাসীদের বাংলাদেশের মাটি ব্যবহার করতে দেব না ॥ প্রধানমন্ত্রী || জনগণের কষ্টার্জিত অর্থকে খেলাপী হতে দেব না ॥ অর্থমন্ত্রী || গ্রামীণ ফোন ও রবিতে প্রশাসক নিয়োগের প্রক্রিয়া চলমান আছে ॥ টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী || বিদ্যুত খাতে ভর্তুকি দিচ্ছি, অপচয় করবেন না ॥ প্রধানমন্ত্রী || আবরার হত্যাকাণ্ডের বিচার দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনালে হবে ॥ আইনমন্ত্রী || আওয়ামী লীগে দূষিত রক্তের প্রয়োজন নেই ॥ কাদের || কর দেওয়াকে দায়িত্ব মনে করতে হবে ॥ তথ্যমন্ত্রী || ৪৮ উদ্যোক্তা ও প্রতিষ্ঠান পাচ্ছে সিআইপি কার্ড || ট্রেন দুর্ঘটনায় অপমৃত্যুর মামলা || শূকরের রক্তে লাল হয়ে গেছে দ: কোরিয়ার ইমজিন নদীর পানি ||