২০ নভেম্বর ২০১৯, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

যে কোন মূল্যে পাহাড়ে শান্তি ফিরিয়ে আনা হবে ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত : ১৮ অক্টোবর ২০১৯

নিজস্ব সংবাদদাতা, রাঙ্গামাটি, ১৭ অক্টোবর ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ পেলে যে কোন মূল্যে রক্তপাত ও সন্ত্রাস বন্ধ করে পার্বত্যাঞ্চলে শান্তি ফিরিয়ে আনা হবে। এখানে অত্যন্ত মনোরম পরিবেশ রয়েছে, শান্তি ফিরে এলে এখানে পর্যটনের দ্বার উন্মুক্ত হয়ে যাবে। তখন এখানে পর্যটনকে কেন্দ্র করে বিশাল কর্মযজ্ঞ শুরু হবে। তখন এখানে আর কোন অভাব থাকবে না। এখানে হঠাৎ করে গত কিছুদিন থেকে রক্তপাত শুরু হয়েছে। সাধারণ মানুষ সন্ত্রাসীদের নিকট জিম্মি হয়ে পড়েছে। কী কারণে রক্তপাত শুরু হয়েছে এবং সেখানে আমাদের কোন দুর্বলতা আছে কি না তা দেখার জন্য আমরা তিন পার্বত্য জেলার সার্কেল চীফ জনপ্রতিনিধি তথা উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র, ইউপি চেয়ারম্যান, কারবারি ও হেডম্যানদের নিয়ে এই সন্ত্রাস দমনে কি করা যায়, মতামত নেয়ার জন্য আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক সভার আয়োজন করা হয়েছে। এই সন্ত্রাসের বিষয়ে কেউ ভয়ে মুখ খুলতে চায় না এই অবস্থা চলতে দেয়া যায়না। আমরা সর্বশক্তি দিয়ে পার্বত্য অঞ্চলের সন্ত্রাস দমন করব। তিনি বৃহস্পতিবার রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে তিন পার্বত্য জেলার আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত বিশেষ সভায় প্রধান অতিথির ভাষণে এসব কথা বলেছেন। তিনি বলেন, আমরা সর্বহারা জলদস্যু ও জঙ্গী দমন করেছি। এদেশে কোন সন্ত্রাসী ও জঙ্গী গোষ্ঠী থাকবে না। যে কোন মূল্যে তাদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হবে। এসব অভিযান পরিচালনা করার জন্য সরকারের সর্বময় ক্ষমতা প্রয়োগ করা হবে। কোন অবস্থাতেই এই অঞ্চলের শান্তি-শৃঙ্খলা নষ্ট করা যাবে না। আমরা তিন জেলার এমপির সঙ্গে কথা বলেছি। এখানে নিয়োজিত আর্মি, পুলিশ এবং বিজিবিসহ সকল সংস্থার সঙ্গে কথা বলেছি। এখানে কোন অবস্থাতেই শান্তিপ্রিয় পাহাড়ী-বাঙালীর সহঅবস্থান ধ্বংস করা যাবে না। সন্ত্রাসী, জঙ্গী ও মাদকের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত জিরো ট্রলারেন্স নীতি অনুসরণ করা হবে। আমরা যে কোন চ্যালেজ মোকাবেলা করতে প্রস্তুত আছি। আমরা শুধু সন্ত্রাসীদের নয়, সন্ত্রাসীদের মদদদাতাকেও রেহাই দেবনা। কেউ সন্ত্রাসী কায়দায় অঞ্চল অচল করতে চাইলে আমরা তা প্রতিহত করব। শান্তির সুবাতাস বইবে। এখানে দেশ-বিদেশের পর্যটকরা আসবে। আর এই অঞ্চলের লোক এর সুফল ভোগ করবে। তাই এখানে শান্তি ফিরিয়ে আনার জন্য তিনি সকলের সহায়তা কামনা করেছেন। সভায় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়কমন্ত্রী বীরবাহাদুর উশৈসিং এমপি সভাপতিত্ব করেন। সভাপতির ভাষণে তিনি বলেন, শান্তি চুক্তির কোথায় সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজি করার কথা আছে? আসুন আমরা সবাই মিলে মিশে শান্তি প্রতিষ্ঠা করি। সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, শরণার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্স চেয়াম্যান কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি, দীপংকর তালুকদার এমপি চট্টগ্রামের জিওসি এসএম মতিউর রহমান, জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোঃ কামাল উদ্দীন, আইজিপি ড. জাবেদ পাটোয়ারী, পার্বত্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মেজবাহুল ইসলাম, বিজিবির মহাপরিচালক সাফিনুল ইসলাম, র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ, চাকমা সার্কেল চীফ রাজা দেবাশীষ রায়। হেডম্যান সমিতির সভাপতি চিংকিউ রোয়াজা, রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা, খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজেরি চৌধুরী ও বান্দরবান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কৈশহ্লা প্রমুখ।

প্রকাশিত : ১৮ অক্টোবর ২০১৯

১৮/১০/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



শীর্ষ সংবাদ: