১৯ অক্টোবর ২০১৯, ৪ কার্তিক ১৪২৬, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

ব্যায়ামে বাড়ে মস্তিষ্কের ক্ষমতা

প্রকাশিত : ৭ অক্টোবর ২০১৯
  • তানভির আহমেদ

ভোরের নির্মল বাতাসে শরীরচর্চা করলে শরীরের সঙ্গে মনও যে সতেজ হয় সেটি অনেক আগে থেকেই মানুষের জানা। ব্যায়ামের বহুবিদ উপকারিতার দিক নানা সময়ে গবেষণায় উঠে আসছে। শারীরিক ব্যায়ামের পাশাপাশি মানসিক ব্যায়ামও খুব গুরুত্বপূর্ণ। আর শারীরিক-মানসিক ব্যায়ামের কারণে বাড়ে মস্তিষ্কের ক্ষমতা। মস্তিষ্কের ক্ষমতা বাড়ার ফলে শিশুদের শেখার ক্ষমতাও বৃদ্ধি পায়।

সম্প্রতি এক গবেষণায় বলা হচ্ছে, বাবা-মায়ের ব্যায়ামের কারণে লাভবান হতে পারে বংশধররাও। জার্মানভিত্তিক ওই গবেষণা দলটি মূলত ইঁদুরের ওপর করা এক গবেষণায় এই ফলাফল পেয়েছেন। তবে এখনই এই ফলাফলকে চূড়ান্ত মনে করছেন না তারা। তাদের মতে, এর জন্য আরও বেশি গবেষণার দরকার। বিশেষ করে ইঁদুরের ওপর গবেষণায় যে ফলাফল এসেছে তা মানুষের ক্ষেত্রেও আসবে কিনা তা এখনই বলতে চাইছেন না তারা।

বংশধরদের ওপর ব্যায়ামের প্রভাব আসলেই কতটা কার্যকর হবে সেই বিষয়টি এখনও প্রমাণ করতে না পারলেও বিজ্ঞানীরা নিশ্চিত করেছেন যে, শারীরিক এবং মানসিক ব্যায়াম তরুণদের মস্তিষ্ক সতেজ করার মাধ্যমে শেখার ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। তরুণদের পাশাপাশি মাঝ বয়সীদের জন্যও ব্যায়াম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। মাঝ বয়সে স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষার জন্য তারা শারীরিক ব্যায়ামের পাশাপাশি মানসিক ব্যায়ামের পরামর্শ দিয়েছেন।

গবেষণার সঙ্গে যুক্ত অধ্যাপক সাইমন ফিশেল বলেন, মানুষের বেলায় এই ফলাফল কী রকম হবে তা জানতে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন। ফলাফল যদি ইতিবাচক হয় তাহলে সন্তান ধারণের আগে বাবা-মায়ের শারীরিক-মানসিক ব্যায়ামের ওপর বিশেষ জোর দিতে হবে।

এছাড়া আরও কিছু উপায় রয়েছে। যা নিয়মিতভাবে মেনে চললে বাড়তে থাকবে আপনার স্মরণশক্তি।

পরিমিত ঘুম

প্রতিদিনের ঘুম মস্তিষ্ক সুরক্ষা রাখার জন্য খুবই কার্যকরী। কারণ ঘুমের মধ্যে মস্তিষ্ক বিশ্রাম পায়। পূর্ণবয়স্ক মানুষের দৈনিক আট ঘণ্টা ঘুমানো প্রয়োজন। ভাল ঘুম আপনার মস্তিষ্ককে অধিক কার্যকরী করে তোলে। ঘুমের সময় সাম্প্রতিক সময়ের তথ্যগুলোকে মস্তিষ্ক সংরক্ষণ করতে থাকে। আর ঘুমকে বলা হয় মেমোরি চার্জার। ঘুমের সময় আপনার মেমোরি পরবর্তী স্মৃতিধারার জন্য প্রস্তুত হয়।

মস্তিষ্কের ব্যায়াম

আপনার মস্তিষ্ককে যত বেশি কাজে লাগাবেন, আপনার মস্তিষ্ক তত বেশি কাজ করবে। যেমন ধরুন, সবজি কাটার ছুরিটি দিয়ে যত বেশি কাটাকাটি করবেন ছুরিটি তত বেশি ধার হবে। মানুষের মস্তিষ্ক একটি বিস্ময়কর ক্ষমতা, এই ক্ষমতা স্নায়ু নমনিয়তা হিসেবে পরিচিত হয়। অধিকার উদ্দীপনার সঙ্গে আপনার মস্তিষ্ক নতুন স্নায়বিক পথ গঠন করে ও উপস্থিত সংযোগ পরিবর্তন করে। এবং নতুন কোন শেখার বিষয় স্মৃতি আসে যখন নিজেই পুনর্নির্মাণ মস্তিষ্কের অবিশ্বাস্য ক্ষমতার অধিকারী হবেন। আপনি আপনার জ্ঞানীয় ক্ষমতার বৃদ্ধিতে নতুন তথ্য জানতে পারেন, যা স্নায়ু নমনিয়তা শক্তি বৃদ্ধি করবে।

পাজল বা ওয়ার্ড

গবেষণায় দেখা যায় যাদের নিয়মিত পাজল সমাধান, স্ক্রাবল, সুডোকো মেলানোর অভ্যাস রয়েছে তাদের মস্তিষ্ক অন্যদের তুলনায় অনেক বেশি উন্নত। যখন খেলা হয় তখন মস্তিষ্কের স্মৃতি এলাকাগুলোসহ পুরো মস্তিষ্কের সমস্ত স্নায়ুগুলো সক্রিয় হয় যা কিনা স্মৃতি বৃদ্ধিতে সহায়তা করে এছাড়াও তাদের স্মৃতিশক্তির দুর্বলতাজনিত সমস্যাও হয় না।

মিউজিক থেরাপি

গবেষণায় দেখে গেছে, ক্ল্যাসিক মিউজিক বা যে কোন নরম মেজাজের গান মস্তিষ্কের ধারণক্ষমতা বাড়ায়।

বই পড়া

বই পড়া হচ্ছে মস্তিষ্কের সবচেয়ে ভাল ব্যায়াম। বই পড়ার বিষয়টি মস্তিষ্কের স্নায়ু সচল রাখতে সহায়তা করে। এমনকি খবরের কাগজ, ম্যাগাজিন যাই হোক না কেন অবসর সময়ে তা পড়ে নিলে মস্তিষ্কের বেশ ভাল ব্যায়াম হয়। এতে করে স্মৃতিশক্তিও উন্নত হয়।

নতুন ভাষা শেখা ও লেখা

নতুন একটি ভাষা শেখা এবং লেখার মাধ্যমে নিজের আত্মবিশ্বাস যেমন বাড়ে তেমনই কমে যায় স্মৃতিশক্তি দুর্বল হওয়ার সম্ভাবনা। নতুন একটি ভাষা শেখা, বোঝা এবং প্রয়োগ করার মাধ্যমে মস্তিষ্কের কর্মদক্ষতা বাড়ে যা স্মৃতিশক্তিকে দুর্বল হতে বাধা দেয়। -বিবিসি।

প্রকাশিত : ৭ অক্টোবর ২০১৯

০৭/১০/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: