২১ জানুয়ারী ২০১৮,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

’১৭ সালে সারাদেশে দেড় লক্ষাধিক অপরাধ ঘটেছে


শংকর কুমার দে ॥ সারা দেশে খুন, ধর্ষণ, ডাকাতির মতো ক্রমবর্ধমান অপরাধের ঘটনা উদ্বেগজনক। গত ৫ বছরে সারাদেশে খুনের ঘটনা ঘটেছে ২০,০৮৩। আলোচ্য সময়ে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ১৮৯৯৮ আর ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে ৬৯৮৭। বিদায়ী বছর ’১৭ সালের এক বছরে সারাদেশে নানা ধরনের অপরাধের ঘটনা ঘটেছে দেড় লক্ষাধিক। খুন, ডাকাতি, ছিনতাই, দস্যুতা, ডাকাতি, মাদকদ্রব্য, বিস্ফোরক আইনের অপরাধ, চোরাচালান, নারী ও শিশুনির্যাতনের মতো ভয়াবহ অপরাধের ঘটনা ঘটেছে। বিদায়ী বছর ২০১৭ সালে খুন, ডাকাতি, দস্যুতাসহ সব ধরনের অপরাধের ঘটনায় মামলা হয়েছে এবং পুলিশ প্রায় প্রতিটি ঘটনার রহস্য উদ্ঘাটন করে প্রকৃত আসামি গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে বলে পুলিশের দাবি। পুলিশ সদর দফতরের পরিসংখ্যান থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

পুলিশ সদর দফতরের এক কর্মকর্তা বলেছেন, বিদায়ী বছর ২০১৭ সালে অপরাধের যে পরিসংখ্যান তুলে ধরা হয়েছে তাতে খুন, ডাকাতি, ছিনতাই, দস্যুতা, অপহরণ, মাদকদ্রব্য, চোরাচালান, নারী ও শিশুনির্যাতনসহ যেসব অপরাধের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে তাতে সংখ্যা দিয়ে বিচার-পর্যালোচনা করে আতঙ্কিত হবার কিছুই নেই। দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। বিগত বছরগুলোর তুলনায় খুন, ধর্ষণসহ অন্যান্য অপরাধ বৃদ্ধি পায়নি। যেসব খুনের ঘটনা ঘটেছে পূর্বশত্রুতার জের ধরে ঘটেছে। নারীনির্যাতন মামলা যা হয়ে থাকে তা নিম্নবিত্ত সম্প্রদায়ের মধ্যে এবং দেশে নির্দিষ্ট কয়েকটি জেলায় এর সংখ্যা বেশি। তবে অধিকাংশ মামলা গভীর তদন্ত করে দেখা যায়, একে অন্যকে ফাঁসানোর জন্য এসব মামলা হয়ে থাকে। তিনি উদাহরণ টেনে বলে মাদক সংক্রান্ত মামলার চার্জশিট হয় ৪০ শতাংশ। সেখানে নারীনির্যাতনের মামলার চার্জশিটের হার ৬ শতাংশ। আর তদন্তে দেখা গেছে ধর্ষণের অধিকাংশ অভিযোগই প্রেম-ভালবাসাজনিত। প্রেমে বিরোধ তৈরি হলেই কিংবা প্রতারিত হলে পারস্পরিক সম্মতির শারীরিক সম্পর্কও ধর্ষণের মামলায় গড়ায়। পরে দেখা যায় দু’পক্ষের মান-অভিমান কিংবা রাগ মিটে গেলে মামলা প্রত্যাহার করে নেয়। ফলে ধর্ষণের ক্ষেত্রেও খুব কমসংখ্যক চার্জশীট দেয়া সম্ভব হয়। ২০১৭ সালে ডাকাতি, দস্যুতা, খুন ইত্যাদি অপরাধ পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, এসব ঘটনায় মামলা হয়েছে এবং পুলিশ প্রায় প্রতিটি ঘটনার রহস্য উদ্ঘাটন করে প্রকৃত আসামি গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে।

পুলিশ সদর দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী গত বছর ২০১৭ সালে অস্ত্র, বিস্ফোরক দ্রব্য, মাদকদ্রব্য ও চোরাচালান দ্রব্য উদ্ধারজনিত কারণে মোট মামলা হয়েছে ১ লাখ ৭ হাজার ১৫৩। এর মধ্যে অস্ত্র আইনে ২২০৮, বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে ৩৬২, মাদক দ্রব্য আইনে ৯৮ হাজার ৯৮৪, চোরাচালান দ্রব্য আইনে ৫৫৯৯ মামলা হয়েছে। এছাড়া, পুলিশ ২০১৭ সালে মাদক দ্রব্য উদ্ধারে ৯০৯১০ মামলা করেছে এবং ১ লাখ ১৫ হাজার ৫২৮ আসামি গ্রেফতার হয়েছে। গত বছর ’১৭ সালে খুন হয়েছে ৩৫৪৯। গড়ে প্রতিদিন খুন হয়েছে প্রায় ১০। গত বছর ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ৩৯৯৫। এছাড়া গত বছর ডাকাতি ও দস্যুতার ঘটনা ঘটেছে ৬৯৮৭। পুলিশের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২০১৩ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত সারাদেশে খুনের ঘটনা ঘটেছে ২০০৮৩, আর ধর্ষনের ঘটনা ঘটেছে ১৮৯৯৮।

পুলিশ সদর দফতরের এক কর্মকর্তা বলেন, অপরাধ দমনে ও জনগণের সেবা নিশ্চিতকল্পে পুলিশ বাহিনীতে প্রায় ৮০ হাজার নতুন পদ সৃজন করা হয়েছে। এর ফলে পুলিশের সেবামূলক কাজের পরিধি আরও বেড়েছে এবং জনগণের প্রত্যাশিত সেবা প্রাপ্তি সহজ হচ্ছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তার সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য অপরাধী শনাক্তকরণ, ডেটা সংরক্ষণ এবং অধিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বাহিনীতে যুক্ত হয়েছে। এ ছাড়া অপরাধ দমনে বিশেষায়িত ইউনিট হিসেবে পুলিশের পৃথক তদন্ত ইউনিট স্থাপন করা হয়েছে, যা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় সাফল্যের স্বাক্ষর রেখেছে। পুলিশের সক্ষমতা ও দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে চালু করা হয়েছে কমান্ডো কোর্স। এ ছাড়াও সারদা পুলিশ একাডেমিতে দেয়া হচ্ছে অত্যাধুনিক প্রশিক্ষণ। যার ফলে পুলিশ বাহিনীর দক্ষতা বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। অপরাধ পরিস্থিতি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে পুলিশ কর্মকর্তার দাবি।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: