২০ জানুয়ারী ২০১৮,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ধর্মশালায় লজ্জার হার রোহিতের চোখ খুলে দিয়েছে


ধর্মশালায় লজ্জার হার রোহিতের চোখ খুলে দিয়েছে

শাকিল আহমেদ মিরাজ ॥ ধর্মশালায় প্রথম ওয়নডেতে শ্রীলঙ্কার কাছে ৭ উইকেটে হেরে গেছে ভারত। একের পর এক সাফল্যে ভাসতে থাকা মোড়লদের জন্য এই হার বড় ধাক্কা। বিশেষ করে হারের ধরন ছিল খুবই বাজে। এক পর্যায়ে দলীয় ১৬ রানে ৫ ও ২৯ রানে ৭ উইকেট খোয়ানো ভারতকে আরও বড় লজ্জা থেকে বাঁচিয়েছে অভিজ্ঞ মহেন্দ্র সিং ধোনি (৬৫)। শেষ পর্যন্ত ১১২ রানে অলআউট হয় বিরাট কোহলির অনুপস্থিতিতে নেতৃত্ব দেয়া রোহিত শর্মার দল। এই হার তাদের চোখ খুলে দিয়েছে বলে মনে করছেন নতুন অধিনায়ক ‘ধর্মশালার ম্যাচ আমাদের চোখ খুলে দিয়েছে, এ দিন নিজেদের সেরা খেলাটা খেলতে পারিনি আমরা। যদি আরও ৭০-৮০ রান বেশি হতো তা হলে ম্যাচটা অন্যরকমই হতো। তবে, পরের ম্যাচ থেকে লড়াইয়ে ফিরবে ভারত।’ বলেন তিনি। বুধবার মোহালিতে অনুষ্ঠিত হবে তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে।

অবশ্য অভিজ্ঞ ধোনির পারফর্মেন্সেরও প্রশংসা শোনা যায় রোহিতের কণ্ঠে, ‘এই ধরনের পরিস্থিতিতে কী করণীয় তা ধোনি ভালই জানে। ওর মতো কেউ সব সময়ই একটা ফারাক গড়ে দেয়।’ ধর্মশালার পিচ নিয়েও বেশ খানিকটা বিরক্ত তিনি। তবে প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা যে একটা মরণ কামড় দিতে পারে সিরিজ শুরুর আগেই সেটি বলেছিলেন ভারতের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক, ‘শ্রীলঙ্কায় গিয়েও আমরা কয়েকবার চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছিলাম। কিন্তু সেই চ্যালেঞ্জের মোকাবেলা করেই সফল হয়েছিলাম। এখানেও তেমনই চ্যালেঞ্জের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। ওদের যে আমরা হারিয়ে এসেছি, তা মাথায় রেখে না নামাই ভাল। বরং প্রথম বল থেকে শেষ বল পর্যন্ত ফোকাস বজায় রাখা উচিত।’ প্রথম ম্যাচে সেটিই সত্যি হয়েছে। নতুন দায়িত্ব নিয়ে রোহিত বলছেন, ‘অধিনায়কত্ব আমার কাছে তো আর নতুন নয়। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সকেও নেতৃত্ব দিয়েছি। আইপিএলের চেয়ে এই ক্রিকেটটা অন্যরকম হলেও নেতৃত্বের মূল প্রক্রিয়া আর নিয়মগুলো এখানে একই। এই ফরমেটে ক্রিকেটারদের মানসিকতা ও চাপ অবশ্য পুরো অন্যরকম থাকে। কিন্তু ক্রিকেটের মূল বিশয়গুলো একই।’

ওয়ানডেতে শ্রীলঙ্কার সাম্প্রতিক পারফর্মেন্স মোটেই ভাল নয়। এই বছরে তাদের জয় ও হারের পরিসংখ্যান যেখানে ৪-২৬, পরপর তিনবার যেখানে তারা ০-৫ হেরে এসেছে, সেখানে ভারত এক নম্বর হওয়ার লক্ষ্যে এই সিরিজে নামে। লড়াইটা কেমন? এর জবাবে রোহিত বলেন, ‘নতুন সিরিজ মানেই নতুন চ্যালেঞ্জ। আর যে চ্যালেঞ্জই আসুক, দল হিসেবে তার মোকাবেলা করতেই হবে। কতগুলো ছোট ছোট ব্যাপারই বড় কাজে লাগে। আমাদের এই ছোট বিষয়গুলোর ওপরই নজর রাখতে হবে। এটা ঠিকমতো করে আমরা তার ফল বরাবরই পেয়ে এসেছি।’ এই সিরিজে শ্রীলঙ্কাকে কোন ম্যাচ জিততে না দিলে ভারত আইসিসি ওয়ান ডে র‌্যাঙ্কিংয়ে এক নম্বরে উঠে যেত। কিন্তু তার জন্য সেই পারফর্মেন্স দেখাতে হবে, যা বিরাট কোহালির দল দেখিয়ে এসেছে। অথচ মোড়লার যে প্রথম ম্যাচেই যে এমন লজ্জাজনক হারে হোঁচট খেল।

সবচেয়ে বড় কাজ হলো চার নম্বর জায়গাটা সফল ভাবে পূরণ করা। দীনেশ কার্তিক, মনিষ পাে , শ্রেয়াস ইয়ারদের মধ্যে কে এই জায়গায় মানিয়ে নিতে পারবেন, সেটা বড় প্রশ্ন। তবে বিরাটের তিন নম্বর জায়গাটা হয়তো অজিঙ্ক রাহানেকেই নিতে দেখা যাবে। কেদার যাদবকে এই জায়গায় পরখ করার সুযোগ থাকলেও হ্যামস্ট্রিং চোটের জন্য তিনি এই সিরিজ থেকে ছিটকে গেছেন। সিরিজ শুরুর আগ মুহূর্তে জানা গেল সেই খবর। তার জায়গায় দলে নেয়া হয় তরুণ ওয়াশিংটন সুন্দরকে। যদিও প্রথম ম্যাচে দীনেশ কার্তিককে গুরুত্বপূর্ণ চার নম্বরে নামানো হয়েছিল। সবচেয়ে বেশি ১৮ বল খেলে রানে আউট হয়ে ভারতীয় রেকর্ড গড়েছেন তিনি। তবে রোহিত বলছেন, ‘শ্রেয়াস, মনিষ, দীনেশরা টানা বেশি ম্যাচ খেলার সুযোগ পায়নি। আমাদের মিডল অর্ডারে লড়াইটা যথেষ্ট। তাই যারা মাঠে নামার অপেক্ষা করে আছে, সুযোগ পেলেই তাদের তা কাজে লাগাতেই হবে। আশা করছি, প্রথম ম্যাচের ভুল শুধুরে মোহালিতে ঘুড়ে দাঁড়াতে পারব।’

রোহিত যাই বলুন, ধর্মশালায় অমন হার কিছুতেই মানতে পারছেন না ভারতীয় সমর্থকরা। বিশ্লেষক থেকে শুরু করে দেশটির সাবেক তারকারাও উষ্মা প্রকাশ করেছেন।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: