১৮ জানুয়ারী ২০১৮,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

প্র্রেমের টানে বাউফলে ইন্দোনেশীয় তরুণী


প্র্রেমের টানে বাউফলে ইন্দোনেশীয় তরুণী

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাউফল, ৪ ডিসেম্বর ॥ ফেসবুকে পরিচয়ের পর প্রেমের টানে সুদূর ইন্দোনেশিয়া থেকে পটুয়াখালীর বাউফলের এক অজপাড়া গাঁয়ে চলে এসেছেন নিকি উল ফিয়ার নামের এক তরুণী। তাকে এক নজর দেখতে শত শত উৎসুক গ্রামবাসী প্রেমিক ইমরানের বাড়িতে ভিড় করছেন।

জানা গেছে, দাসপাড়া ইউনিয়নের দাসপাড়া গ্রামের পুরনো বাবুর্চি বাড়ির দেলোয়ার হোসেনের পুত্র ও পটুয়াখালী সরকারী কলেজের উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র মোঃ ইমরান হোসেনের সঙ্গে এক বছর আগে ফেসবুকের মাধ্যমে ইন্দোনেশিয়ার মুসলিম তরুণী নিকি উল ফিয়ার পরিচয় হয়। নিকি উল ফিয়া ইন্দোনেশিয়ার সুরা বায়া বিভাগের জাওয়া গ্রামের ইউ লি আন থোর মেয়ে। ওই তরুণী স্নাতকোত্তর ডিগ্রী নিয়ে ইন্দোনেশিয়ার একটি বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করছেন। তার বাবাও একজন চাকরিজীবী। নিকি উল ফিয়ার ৩ ভাই ও দুই বোন রয়েছে।

প্রেমিক ইমরান বলেন, আমার সঙ্গে নিকি উলের ফেসবুকে পরিচয় হয়। এরপর নিকি উল আমার দেশ ও আমার পরিবার সম্পর্কে জানতে চায়। এক পর্যায়ে নিকির সঙ্গে আমার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। আর এই প্রেমের টানেই নিকি ১ ডিসেম্বর ইন্দোনেশিয়া থেকে বিমানযোগে ঢাকায় আসে। সেখান থেকে আমি তাকে রবিবার আমার গ্রামের বাড়ি বাউফলের দাসপাড়ায় নিয়ে আসি।

বাংলা ভাষা না জানলেও নিকি ভাঙ্গা ভাঙ্গা ইংরেজিতে সাংবাদিকদের জানান, তিনি ইমরানের প্রতি গভীর ভালবাসার টানেই বাংলাদেশে এসেছেন। তিনি তার সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে চান। বিষয়টি তিনি তার মা বাবাকে জানিয়েই এসেছেন। তিনি এ দেশের মানুষের আতিথেয়তা ও ভালবাসায় মুগ্ধ। ইমরানের বাবা দেলোয়ার হোসেন বলেন, এখানে এসে নিকি উল ফিয়া তার বাবা মায়ের সঙ্গে কথা বলেছে। এখন বিয়ের সব কিছুই নির্ভর করছে নিকি উল ফিয়ার ইচ্ছার ওপর। সোমবার এ ঘটনাটি ছড়িয়ে পড়লে সকাল থেকে শত শত মানুষ নিকি উলকে এক নজর দেখতে প্রেমিক ইমরানের বাড়িতে ভিড় করছেন।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: