১৩ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

পাথরঘাটায় পাখি শিকারিরা বেপরোয়া


পাথরঘাটায় পাখি শিকারিরা বেপরোয়া

সংবাদদাতা,পাথরঘাটা,বরগুনা ॥ বরগুনার পাথরঘাটায় পাখী শিকারিরা দিন দিন বেপরোয়া হয়ে ওঠছে।প্রতিদিন পাথরঘাটা বিষখালী নদীর চরে বিষ টোপ দিয়ে শিকারিরা শত শত বক পাখি শিকার করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বন বিভাগ পাখি শিকারিদের আটক করার জন্য অভিযান চালিয়ে ৪২টি বক পাখি ও ২ কেজি বকের মাংস উদ্ধার করেছে। গতকাল সোমবার সকাল ৭টার দিকে পাথরঘাটা পৌর শহরের উত্তরণ আবাসন সংলগ্ন বন বিভাগের সৃজিত জঙ্গলের মধ্যে বক ও বকের মাংস গুলো উদ্ধার করা হয়। পাথরঘাটা বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা সোলায়মান হাওলাদার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

পাথরঘাটা বন বিভাগের সদর বিট অফিসার মোঃ হুমায়ুন কবির তালুকদার জানান, বিভিন্ন সময় পাখি শিকারের ঘটনা বিভিন্ন জনের মাধ্যমে আমাদের নিকট অভিযোগ আসছে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পাথরঘাটা বিশখালী নদীর চরে অভিযান চালাই। ঘটনা তদন্তের পর সত্যতা পেয়ে শিকারি চক্রগুলো ধরার জন্য আমরা আপ্রান চেষ্টা চালাই। এসময় কিছু শিকারি চক্র চর থেকে বক শিকার করে জঙ্গলের মধ্যে বসে জবাই করছে। আমরা তাদের ধাওয়া করলে শিকারিরা দৌড়ে পালিয়ে যায়। এ সময় ঘটনা স্থল থেকে ৪২টি জবাই করা বক পাখি ও ২কেজি বকের মাংস উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি বলেন, বিশখালী নদীর চর থেকে বিষ টোপ দিয়ে বক গুলো ধরা হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় অনেকে জানান, ২নং ওয়ার্ডের শাহাব উদ্দিনের ছেলে জাহাঙ্গীরসহ ৪/৫ জনে প্রতিদিনই আবাসন সংলগ্ন জঙ্গল থেকে বক, ডাহুক, ঘুঘু পাখি শিকার করে বাজারে বিক্রি করছে। আমরা প্রতিবাদ করতে গেলে তারা বিভিন্ন ভাবে আমাদেরকে ভয়ভীতি দেখায়। সোমবার সকালে শিকারিরা বিষ টোপ দিয়ে শতাধীক বক ও ডাহুক শিকার করে। বন বিভাগ অভিযান চালিয়ে আনেক গুলো বক উদ্ধার করলেও জীবিত পাখি গুলোকে ছেড়ে দিয়ে শিকারিরা দৌড়ে পালিয়ে গেছে। এ ব্যাপারে পাথরঘাটা সদর বিট অফিসার জানিয়েছেন,জাহাঙ্গীরসহ কয়েকজনকে আসামী করে বন্য প্রানী সংরক্ষন আইনে একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে। বক গুলো শুকিয়ে আলামত হিসাবে রাখা হয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: