১২ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

এবারও পরীক্ষার্থী কমেছে প্রাথমিক সমাপনীতে


এবারও পরীক্ষার্থী কমেছে প্রাথমিক সমাপনীতে

অনলাইন রিপোর্টার ॥ প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষাতে ৩০ লাখ ৯৬ হাজার ৭৫ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এবার কমেছে প্রায় ৪ শতাংশ।

পঞ্চমের সমাপনীতে টানা দ্বিতীয় বছরের মত পরীক্ষার্থী কমল, যাকে ‘ভুয়া শিক্ষার্থীর তালিকা তৈরি বন্ধ’ হওয়ার ফল হিসেবে দেখছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার।

বুধবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আগে যখন শতভাগ শিক্ষার্থী উপবৃত্তির পেত না, তখন ভুয়া তালিকা তৈরি করে সরকারের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা নিয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ সব শিক্ষার্থীকে বৃত্তি পাইয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করত।

“এখন আমরা শহরে, বন্দরে, নগরে, মহানগরে শতভাগ বৃত্তি দিচ্ছি। কোনো জায়গা উপবৃত্তির বাইরে নেই। কম্পিউটারাইজড পদ্ধতিতে, অনলাইন ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে এখন যে কাজগুলো করা হচ্ছে, তার ফলে যেসজ জায়গায় ল্যাপসগুলো ছিল, সেটা ক্লিয়ার করতে পেরেছি।”

তবে টানা দুই বছর কেন পরীক্ষার্থী কমল তা ‘গবেষণার’ বিষয় বলে মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

“আমি পরিসংখ্যানবিদ না। তবে ক্লাসে যা থাকবে তার থেকে বেশি করে দেখানোর কোনো সুযোগ নাই।”

দেশের সাত হাজার ২৬৭টি এবং বিদেশের ১২টি কেন্দ্রে আগামী ১৯ নভেম্বর থেকে শুরু হবে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের এ সমাপনী পরীক্ষা, চলবে ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত।

এবার ২৮ লাখ চার হাজার ৫০৯ জন ক্ষুদে শিক্ষার্থী প্রাথমিক সমাপনী এবং দুই লাখ ৯১ হাজার ৫৬৬ জন ইবতেদায়ী পরীক্ষা দেবে।

এ পরীক্ষায় গত বছর মোট ৩২ লাখ ৩০ হাজার ২৮৮ জন অংশ নিয়েছিল। সে হিসেবে এবার পরীক্ষার্থী কমেছে এক লাখ ৩৪ হাজার ২১৩ জন। ২০১৫ সালে ৩২ লাখ ৫৪ হাজার ৫১৪ জন পঞ্চমের সমাপনীতে বসেছিল।

সংবাদ সম্মেলনে ফিজার বলেন, “এবার ছাত্রদের থেকে এক লাখ ৮৯ হাজার ৮০১ জন বেশি ছাত্রী সমাপনীতে অংশ নেবে। এটা আশাব্যঞ্জক যে মেয়েরা প্রতিটি ক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে।”

প্রাথমিক সমাপনীতে এবার দুই হাজার ৯৫৩ জন এবং ইবতেদায়ীতে ৩৭৯ জন ‘বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন’ পরীক্ষার্থী অংশ নেবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, এই শিক্ষার্থীদের অতিরিক্ত ২০ মিনিট সময় দেওয়া হবে।

অন্যদের মধ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব মোহাম্মদ আসিফ-উজ-জামান, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. আবু হেনা মোস্তফা কামাল এবং গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

প্রাথমিক সমাপনীর সূচি

১৯ নভেম্বর ইংরেজি, ২০ নভেম্বর বাংলা, ২১ নভেম্বর বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, ২২ নভেম্বর প্রাথমিক বিজ্ঞান, ২৩ নভেম্বর ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা এবং ২৬ নভেম্বর গণিত।

ইবতেদায়ী সমাপনীর সূচি

১৯ নভেম্বর ইংরেজি, ২০ নভেম্বর বাংলা, ২১ নভেম্বর বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এবং বিজ্ঞান, ২২ নভেম্বর আরবি, ২৩ নভেম্বর কুরআন ও তাজবিদ এবং ২৬ নভেম্বর গণিত।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: