১৫ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৪ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

পাথরঘাটায় তরুণী ধষর্ন ও হত্যা ॥ ৪ ছাত্রলীগ নেতা বহিস্কার গ্রেফতার ৫


পাথরঘাটায় তরুণী ধষর্ন ও হত্যা ॥ ৪ ছাত্রলীগ নেতা বহিস্কার গ্রেফতার ৫

সংবাদদাতা, পাথরঘাটা, বরগুনা ॥ বরগুনায় অজ্ঞাতপরিচয় এক তরুণীকে গণধর্ষণ শেষে হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে পাথরঘাটা কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদকসহ চার নেতাকে সংগঠন থেকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে ছাত্রলীগ।

সোমবার বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জুবায়ের আদনান অনিক জানান, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এক চিঠির মাধ্যমে তাদের বহিষ্কার করেন।

বহিষ্কৃতরা হলেন, পাথরঘাটা কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রুহি আনাল দানিয়াল, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন ছোট্ট, সাংগঠনিক সম্পাদক মাহিদুল ইসলাম রায়হান ও উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক মো. মাহমুদ।

এদিকে, এর আগে ধর্ষন ও হত্যার অভিযোগে বরগুনার পাথরঘাটায় ৪ ছাত্রলীগ নেতাসহ ৫ জন কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ওই কলেজের নৈশপ্রহরী জাহাঙ্গীরকে গত শুক্রবার রাতে ডিবি পুলিশ আটক করে। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার এবং রবিবার পর্যাক্রমে ৪ ছাত্রলীগ নেতাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন,কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি রুহি আনান দানিয়াল(২২),সাধারন সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন ছোট্ট(২১),সাংগঠনিক সম্পাদক মাহিদুল ইসলাম রায়হান (২০), উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক মো.মাহমুদ (১৯)এবং নৈশপ্রহরী জাহাঙ্গীর হেসেন(৪৪)।

বরগুনা পুলিশ সুপার বিজয় বসাক সাংবাদিকদের জানান, গত ১০ আগষ্ট বৃহস্পতিবার পাথরঘাটা ডিগ্রি কলেজের পশ্চিম পার্শ্বের একটি পুকুর থেকে অজ্ঞাত এক তরুণীর গলিত মৃতদেহ উদ্ধার করে পাথরঘাটা থানাপুলিশ। ধর্ষনপূর্বক ওই হত্যাকান্ডের ঘটনাটির সাথে জড়িতদের খুজে বের করতে ডিবি পুলিশ বিভিন্নভাবে অনুসন্ধান চালাতে থাকে। ঘটনার ধারাবাহিকতায় প্রথমে ওই কলেজের নৈশপ্রহরী জাহাঙ্গীরকে আটক করে ডিবি পুলিশের একটি ব্রাঞ্চ। শনিবার জাহাঙ্গীরকে পুলিশ পাথরঘাটা ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে হাজির করে ওই আদালতে প্রথমে সে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দী দেন। এরপরে পুলিশের হাতে আটক হয় ছাত্রলীগ নেতা মাহমুদ ও মাহিদুল ইসলাম রায়হান। তাদেরকে রবিবার বিকালে পাথরঘাটা আদালতে হাজির করা হয়। এই দুই ছাত্রনেতার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী তৃতীয়দফায় গ্রেফতার করা হয় কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি রুহি আনান দানিয়াল ও সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন ছোট্টকে। পুলিশ ওই হতভাগ্য তরুণীর পরিচয় এখনও নিশ্চত করতে পারেনি। ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে দেয়া স্বীকারোক্তিতে রায়হান ও মাহমুদ হত্যা এবং লাশ গুম করার ঘটনায় জড়িত থাকার কথা বলেছে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছে পুলিশ।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: