১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৭ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

আদমদীঘিতে বাবাকে পুড়িয়ে হত্যা ॥ মা দগ্ধ, ছেলে আটক


নিজস্ব সংবাদদাতা, সান্তাহার, ১০ নবেম্বর ॥ বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার প্রত্যন্ত পল্লী কুশাবাড়ী মন্ডলপাড়ায় বৃহস্পতিবার রাতে শয়নঘরে ছেলের লাগানো আগুনে পুড়ে মারা গেছে বাবা হামিদুল ইসলাম(৫৩)। আর মা হাফসা বিবি (৪৫)। দগ্ধ হয়ে হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছে। এ ঘটনায় পুলিশ নিহতের ছেলে রহিদুলকে (৩০) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছেন। পুলিশ নিহত হামিদুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার আগাপুর গ্রামের হামিদুল ইসলাম আদমদীঘি উপজেলার কুশাবাড়ি গ্রামের ময়েজ উদ্দীনের মেয়েকে বিয়ে করে শ্বশুড়বাড়িতে বসবাস করে আসছে। হামিদুল ইসলামের ছেলে রহিদুল ইসলামকে প্রায় ৫ বছর পূর্বে একই এলাকার গজারিয়া গ্রামের আব্দুর রহিমের মেয়ে মর্জিনা বেগমের সঙ্গে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে রহিদুলের স্ত্রীর সঙ্গে বনিবনা না হওয়ায় ৪ মাস পূর্বে রহিদুল তার স্ত্রী মর্জিনাকে মৌখিকভাবে তালাক প্রদান করেন। এর পর স্ত্রীকে পুনরায় সংসারে ফিরে নিতে কয়েক দফা বৈঠক বসে। কিন্তু রহিদুলের বাবা হামিদুল ইসলাম তাতে রাজি হয়নি। এর এক পর্যায়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে রহিদুল বাজার থেকে ডাব এনে রাতের খাবার শেষে তার বাবা-মাকে খাওয়ায়।

পরে রহিদুল তার পাশের ঘরে ঘুমাতে যায়। রাত ১ টার দিকে নিহত হামিদুলের স্ত্রীর চিৎকার শুনতে পেয়ে প্রতিবেশীরা ঘটনাস্থলে আসে। তারা হামিদুলকে আগুনে পুড়ে মারা যাওয়া এবং তার স্ত্রী হাফসা বিবিকে দগ্ধ অবস্থায় ছটফট করতে দেখতে পায়। এ সময় ছেলে রহিদুল বাড়িতে ছিল না। বাবার মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টা পর সে ঘটনাস্থলে পৌঁছে। আদমদীঘি থানার অফিসার ইনচার্জ আবু সায়িদ মোঃ ওয়াহেদুজ্জামান নিহত হামিদুলের ছেলে রহিদুলকে আটকের কথা নিশ্চিত করেন।