১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

বগুড়ায় সাবেক নিক্সন মার্কেটে শীতের কাপড় বেচাকেনা


স্টাফ রিপোর্টার, বগুড়া অফিস ॥ আগে নাম ছিল নিক্সন মার্কেট। জনপ্রিয়তাও পেয়েছিল। স্বল্প আয়ের মানুষের পুরনো কাপড়ের বাজার। হকাররা আগে বসত রাস্তার ধারে। কখনও কোন খোলা জায়গায়। এক সময় কাপড়ের হকাররা জড়ো হয়ে বানাল টিন শেডে বেড়ার ঝুপড়ি ঘর। ধীরে ধীরে টিন শেডে পাকা ঘর। হালে ঘরগুলো ঘিঞ্জিতে রূপ নিয়েছে। মার্কিন মুল্লুকে নিক্সনের পর কয়েকজন প্রেসিডেন্ট এসেছেন। তাদের নামে মার্কেটের নাম হয়নি। নিক্সন সাহেবের আমলে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য গাঁইটের পর গাঁইটে পুরনো কাপড়ের মহাআগমন শুরু হয়। নামও হলো নিক্সন মার্কেট। আজও পুরনোদের মুখে এই নাম শোনা যায়। নিক্সন নাম সাবেক হয়ে বর্তমানে এ মার্কেটের পরিচিতি হকার্স মার্কেট।

নগরীর স্টেশন রোডের ধারে অনেকটা জায়গা জুড়ে ঘিঞ্জির মতো বসেছে হকার্স মার্কেট। সারা বছর সকাল থেকে রাত অবধি চলে বেচাকেনা। গাঁইট বেঁধে আসে পুরনো কাপড়। এখন সেখানে এমন কাপড় নেই যা মেলে না। পুরনো নতুন সব কাপড়ই মেলে। দামে সাশ্রয়ী। কি নেই সেখানে! কটন সুতা, উল সুতা, পুরনো সোয়েটার, বাহারি জ্যাকেট, জিনসের নানা ধরনের প্যান্ট, মেয়েদের সালোয়ার কামিজ, কার্ডিগান, শাল, চাদর, কোট প্যান্ট, নানা ধরনে বোতাম, টাই, হাতমোজা, গরম টুপি, মাফলার, মাংকি টুপি, হিজাব, ওড়নাসহ নানা কিছু। শিশু নারী পুরুষ সকলের কাপড় মেলে। পুরনো কাপড় কেনার পর তা সেটিং বা ফিটিং করার জন্য দর্জিরাও বসেছে। কেউ উন্মুক্ত স্থানে। কেউ ঘরের ভেতরে। টেইলার্সের মেশিনের চাকা ঘরর ঘরর খচাং খচাং শব্দে ঘোরে সমান তালে। কাপড় ইস্ত্রি করার জন্য দোকান বসেছে। শীত মৌসুমের আগের এই সময়টায় শীত বস্ত্রের আগাম বেচাকেনা শুরু হয়েছে। দোকানিরা বলছেন গত বছর বেচাকেনা খুব একটা জমে ওঠেনি। শীত ছিল কম। তবে এবার কি হবে বলা যায় না। দিন কয়েক আগে শীত নামায় ধারণা করা হয়েছিল এবার বেচাকেনা বাড়বে। ফের গরম পড়েছে। স্বল্প আয়ের রোজগেরে মানুষ শীতের আগে গরম কাপড় কিনে রাখছে। দামও কম। উচ্চ মধ্যবিত্তরাও এই মার্কেটে যাচ্ছেন। সাশ্রয়ী দামে ভাল কাপড় মিললে কে না চায় কিনতে। যারা এই মার্কেটে গিয়ে একপ্রান্ত থেকে আরেকপ্রান্ত ঢুঁ দেয় তারা অনেক সময় ভাল জিনিস পায়। এমনও শোনা যায় গাঁইটের ভাল কাপড়গুলো লন্ড্রি থেকে ধোলাই করার পর নতুন প্যাকেটজাত করে একটু বেশি দামে বিক্রি হয়। কে আর খোঁজ রাখে।