২৩ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

রোহিঙ্গা প্রত্যাবসানে বাংলাদেশ-মিয়ানমার যৌথ ভাবে কাজ করবে ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী


রোহিঙ্গা প্রত্যাবসানে বাংলাদেশ-মিয়ানমার যৌথ ভাবে কাজ করবে ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব সংবাদদাতা, শেরপুর ॥ বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের সমসংখ্যক প্রতিনিধির যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের প্রস্তাবনার মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এমপি। তিনি বৃহস্পতিবার দুপুরে শেরপুরের নালিতাবাড়ী শহরের আড়াইআনী পুলিশ ফাঁড়ির ভিত্তিফলক উন্মোচন ও থানার নতুন ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ওই কথা বলেন।

ওইসময় স্থানীয় সংসদ সদস্য, কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা ১২ সদস্যের দল মিয়ানমারে গিয়েছিলাম। মিয়ানমারের সাথে ১০ দফা চুক্তি হয়েছে, ওই চুক্তি অনুযায়ী আগামী ৩০ নবেম্বরের মধ্যে একটি জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ তৈরি করা হবে। সেই ওয়ার্কিং গ্রুপই সিদ্ধান্ত নেবে, কিভাবে কখন রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হবে।

এছাড়া তাদের কিভাবে উন্নয়ন হবে সেটা নিয়েও ওয়ার্কিং গ্রুপ কাজ করবে। তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যু আমাদের কাছে একটা চ্যালেঞ্জ। রোহিঙ্গাদের দুঃখ-দুর্দশা আমরা সহ্য করতে পারিনি, তাই তাদের আমাদের এখানে জায়গা দিয়েছি। টেকনাফ ও উখিয়ার মোট জনগোষ্ঠীর চেয়ে ৩ গুণ বেশি রোহিঙ্গা এসে জায়গা নিয়েছে। কাজেই আমরা নানা ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের কারণে টেকনাফ ও উখিয়ার সামাজিকভাবে বিপর্যস্ত অবস্থা তৈরি হয়েছে। পাহাড় ও বনভূমি ধ্বংস হচ্ছে। তবু রোহিঙ্গারা যাতে শান্তিতে থাকতে পারে, সেজন্য এ দেশের শান্তিপ্রিয় মানুষ, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও সেনাবাহিনী দিন-রাত কাজ করছে। এ ছাড়া রোহিঙ্গাদের যাতে নানা প্রলোভনে প্রলোভিত করেও অন্য জায়গায় নিতে না পারে, সে জন্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলো নজরদারি করছে সেখানে।

মন্ত্রী বলেন, আমাদের মূল লক্ষ্য হলো বাংলাদেশকে নিরাপদ ও বাসযোগ্য রাখা, জনগণের জানমালের নিরাপত্তা বিধান করা। এ জন্য প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা পুলিশের জনবল বৃদ্ধি করছেন এবং পুলিশের আধুনিক আবাসস্থল ও উন্নত যানবাহনের ব্যবস্থা করছেন। এর ধারাবাহিকতায় নালিতাবাড়ীতে নতুন পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপন, নতুন থানা ভবন ও ফায়ার সার্ভিস ভবন নির্মাণ করা হয়েছে।

পরে মন্ত্রীদ্বয় নালিতাবাড়ী ফায়ার সার্ভিস ভবন উদ্বোধন করেন এবং পরে নালিতাবাড়ী উপজেলা পরিষদের মুক্তমঞ্চে বিজিবি, আনসার, থানা ভবন এবং নালিতাবাড়ী উপজেলার সকল ইউনিয়নের আনসার-ভিডিপি সদস্য, ইমাম-মোয়াজ্জিন, সেবায়েত, পুরোহিত, ধাত্রী ও বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রথম থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত প্রত্যেক শ্রেণির সেরা ২০ শিক্ষার্থীর মাঝে মোট ৪ হাজার ৫৮৪টি সোলার বাতি বিতরণ করেন।

ওইময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শেরপুর-৩ (শ্রীবরদী-ঝিনাইগাতী) আসনের সংসদ সদস্য প্রকৌশলী একেএম ফজলুল হক চাঁন, ময়মনসিংহের বিভাগীয় কমিশনার জি.এম সালেহ উদ্দিন, রেঞ্জ ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি, অতিরিক্ত ডিআইজি ড. আক্কাছ উদ্দিন ভূঁইয়া, ২৭-বিজিবির (ময়মনসিংহ) সিও লেফটেন্যান্ট কর্ণেল আনিসুর রহমান, জেলা প্রশাসক ড. মল্লিক আনোয়ার হোসেন, পুলিশ সুপার রফিকুল হাসান গণি, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর রুমান, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ছানুয়ার হোসেন ছানু, নালিতাবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম মোখলেসুর রহমান রিপন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিয়াউল হক মাস্টার, সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হকসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন ও পুলিশের কর্মকর্তা ও দলীয় নেতৃবৃন্দ।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: