২৪ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

তোয়ালে খুলে অসভ্যতা, গেইলের অস্বীকার


তোয়ালে খুলে অসভ্যতা, গেইলের অস্বীকার

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ নারীঘটিত বিতর্ক আর ক্রিস গেইল যেন একে অন্যের পরিপূরক। কখনও মদের বোতল হাতে নারীবেষ্টিত ছবিতে তোলপাড়, কখনও আবার লাইভ অনুষ্ঠানে টিভি উপস্থাপিকাকে অশ্লীল প্রস্তাব দেয়া; মাঠ ও মাঠের বাইরে সমান আলোচনায় ক্যারিবিয়ান ব্যাটিং-দৈত্য। তেমনি অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ২০১৫ বিশ্বকাপের অফিসিয়াল নারী ম্যাসাজ থেরাপিস্টের সামনে তোয়ালে খুলে হয়রানির অভিযোগ তার বিরুদ্ধে। অভিযোগ আনা স্থানীয় একাধিক সংবাদ মাধ্যমের কাছে নাকি বিশ্বাসযোগ্য যথেষ্ট প্রমাণ রয়েছে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে আদালতে মানহানির মামলা ঠুকে দিয়েছে গেইল। রবিবার তারই শুনানিতে ধুন্ধুমার উইলোবাজ জানিয়েছেন, সম্মানহানির এই ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে শেষ পর্যন্ত লড়ে যাবেন তিনি। আগে কয়েকটি বিতর্কের জন্ম দিলেও এই ঘটনা পুরোপুরি অস্বীকার করেছেন আধুনিক সময়ের অন্যতম আলোচিত-সমালোচিত এ ক্রিকেটার।

ঘটনা ২০১৫ বিশ্বকাপের একটি ম্যাচের। সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডের ড্রেসিং রুম তিনি নাকি লিয়ান্নে রাসেল নামের একজন নারী ম্যাসাজ থেরাপিস্টের সামনে তোয়ালে খুলে ফেলেছিলেন। দেখিয়েছিলেন শরীরের গোপনাঙ্গ! চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে এই ব্যাপারটি নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া গ্রুপের বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যম যেমন সিডনি মর্নিং হেরাল্ড, দ্য এজ এবং দ্য ক্যানবেরা টাইমসে ধারাবাহিকভাবে প্রতিবেদন ছাপা হয়। যদিও এমন অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করছেন গেইল। ক্যারিবিয়ান এই ক্রিকেটার দাবি করছেন, এমন ঘটনাই ঘটেনি। বরং তার সুনাম নষ্ট করতেই এমন বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করছে অস্ট্রেলিয়ার ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া গ্রুপ। গেইল এতটাই ক্ষেপেছেন যে, অস্ট্রেলিয়ার ওই মিডিয়া গ্রুপের নামে নিউসাউথ ওয়েলসের একটি আদালতে মানহানির মামলাও ঠুকে দিয়েছেন। পাশাপাশি জানিয়েছেন, ব্যাপারটি নিয়ে তিনি শেষ পর্যন্ত লড়ে যাবেন। ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া অবশ্য বলেছে, তাদের হাতে যথেষ্ট তথ্য-প্রমাণ রয়েছে।

রবিবার গেইলের করা সেই মানহানি মামলার শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। শুনানিতে গেইলের পক্ষের কৌঁসুলি ব্রুস ম্যাকক্লিনটক বলেছেন, তার মক্কেলের বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযোগ পুরোপুরি মিথ্যা। এর মাধ্যমে তারা গেইলকে অসম্মান করেছে। তাকে ধ্বংস করে দেয়ার পাঁয়তারা করছে। একই সঙ্গে গেইলের সুনাম নষ্ট করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে তারা। এই অভিযোগ সম্পর্কে বলতে গিয়ে দেশের জার্সি গায়ে ১০৩টি টেস্ট, ২৭৩টি ওয়ানডে ও ৫২টি টি-২০ খেলা গেইল নিজেও কিছুটা আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন, ‘আমি এ জীবনে যত বাজে ঘটনার মুখোমুখি হয়েছি, এই অভিযোগটি হচ্ছে সবচেয়ে ভয়াবহ। তবে আমি দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, মিথ্যা এই অভিযোগ থেকে নিজেকে মুক্ত করবই।’ এর আগে অস্ট্রেলিয়ার ঘরোয়া টি-২০ বিগ ব্যাশের এক ম্যাচ শেষে সাক্ষাতকার দেয়ার সময় অস্ট্রেলিয়ার এক নারী সাংবাদিক মেলানি ম্যাকলফলিনকে ডেটিংয়ের প্রস্তাব দিয়ে বিপাকে পড়েছিলেন গেইল।

গেইল বলেছিলেন, ‘আমি নিজেই তোমার কাছে সাক্ষাতকার দিতে আসতে চেয়েছিলাম। তোমার চোখ দু’টি খুবই সুন্দর। আশা করি, আমরা খেলায় জিতে যাব। এরপর আমরা একসঙ্গে ড্রিঙ্ক করতেও যেতে পারি। আমার কথায় লজ্জা পেও না বেবি।’ দুষ্টুমি করে এমন কা- করলেও অখেলোয়াড়সুলভ আচরণের জন্য তাকে ১০ হাজার অস্ট্রেলিয়ান ডলার জরিমানা করা হয়।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: