১৮ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৩ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

আজ আসছেন সুষমা স্বরাজ


আজ আসছেন সুষমা স্বরাজ

কূটনৈতিক রিপোর্টার ॥ যৌথ পরামর্শক কমিশনের বৈঠকে অংশ নিতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ আজ রবিবার দুই দিনের সফরে ঢাকায় আসছেন। সুষমা স্বরাজের ঢাকা সফরকালে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি নিয়েও আলোচনা তুলবে বাংলাদেশ। এছাড়া ভারতের অর্থায়নে বাস্তবায়িত ১৫ প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন তিনি। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র এসব তথ্য জানায়।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে চতুর্থ যৌথ পরামর্শক কমিশনের বৈঠকে অংশ নিতে ঢাকায় আসছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। উভয় দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পরামর্শক কমিশনের বৈঠকের নেতৃত্ব দেবেন। সুষমা স্বরাজ আজ রবিবার দুপুর ১টা ৫৫ মিনিটে একটি বিশেষ বিমানে ঢাকায় আসবেন। ঢাকার কুর্মিটোলায় বঙ্গবন্ধু বিমানঘাঁটিতে তার বিশেষ বিমান অবতরণ করবে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী তাকে স্বাগত জানাবেন। বিকেল সাড়ে চারটায় দুই দেশের মধ্যে যৌথ কমিশনের বৈঠকে অংশ নেবেন সুষমা স্বরাজ। এ বৈঠকে বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। এছাড়া সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাত করবেন তিনি। আগামীকাল সোমবার সকালে ভারতের অর্থায়নে বাস্তবায়িত ১৫ প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন। ভারতীয় হাইকমিশনে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেও অংশ নেবেন তিনি। সোমবার দুপুরে তিনি ঢাকা ত্যাগ করবেন।

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের ঢাকা সফর সামনে রেখে ইতোমধ্যেই পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক হয়েছে। এসব বৈঠকে সফরের আলোচ্যসূচীও নির্ধারণ করা হয়। দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা, বাণিজ্য, নিরাপত্তা, অভিন্ন নদীর পানিপ্রবাহ, আন্তঃযোগাযোগ, পর্যটন ইত্যাদি বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, বাংলাদেশের পক্ষ থেকে আলোচনায় রোহিঙ্গা ইস্যুটি তোলা হবে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারতের আরও জোরালো সমর্থন চাইবে বাংলাদেশ।

গত এক মাসের মধ্যে দ্বিতীয়বারের মতো ভারতের কোন শীর্ষ মন্ত্রী বাংলাদেশ সফরে আসছেন। এর আগে গত ৩ অক্টোবর ঢাকায় আসেন ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। সুষমার সফর এমন সময়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে যখন লাখ লাখ রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে নির্যাতনের শিকার হয়ে জীবন বাঁচাতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসছে। ফলে তার সফরে রোহিঙ্গা ইস্যু প্রাধান্য পাবে। সফরে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর পারস্পারিক সফরে নেয়া বিভিন্ন সিদ্ধান্তের বাস্তবায়ন নিয়ে পর্যালোচনা করবে ভারত-বাংলাদেশ যৌথ কমিশন।

ঢাকার ভারতীয় হাইকমিশন জানিয়েছে, সুষমা স্বরাজ সোমবার সকালে ভারতীয় হাইকমিশনের নতুন চ্যান্সারি ভবন উদ্বোধন করবেন। সে সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীও উপস্থিত থাকবেন। সে সময় ভারতের অর্থায়নে বাস্তবায়িত ১৫ প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন তিনি।

গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দেশটির সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাবিরোধী দমন-পীড়ন শুরুর পর ৫ সেপ্টেম্বর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মিয়ানমার সফর করেন। তখন দুই দেশের যৌথ বিবৃতিতে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে কোন মন্তব্য না থাকলেও পরে ভারত একটি বিবৃতি দেয়। একই সঙ্গে গত ২৯ সেপ্টেম্বর ভারত জাতিসংঘে মানবাধিকার কমিশনে একটি বিবৃতি পেশ করে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে যৌথ পরামর্শক কমিশনের সভা একটি নিয়মিত বৈঠক। এটি দুই দেশের মধ্যে সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়ে থাকে। তবে এ বৈঠকে চলমান বিষয়াবলীও প্রাধান্য পেয়ে থাকে। সে কারণেই রোহিঙ্গা বিষয়টি আলোচনায় প্রাধান্য পাবে। কেননা এটি এখন বাংলাদেশের একটি জাতীয় সঙ্কট হয়ে উঠেছে। আর এ সঙ্কট সমাধানে প্রতিবেশী দেশগুলোর পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতা চেয়েছে বাংলাদেশ। রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে ভারতেরও উদ্বেগ রয়েছে। এছাড়া ভারত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ত্রাণ সহায়তা অব্যাহত রেখেছে।

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ঢাকা সফর সামনে রেখে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হক ইতোমধ্যেই দিল্লী সফর করে এসেছেন। দিল্লীতে গত ৫ অক্টোবর ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ড. এস জয়শঙ্করের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ঢাকা সফর নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। একই সঙ্গে এ সফরের সময় আলোচনায় কী কী বিষয় প্রাধান্য পাবে, সেটা নিয়েও আলোচনা করেছেন দুই পররাষ্ট্র সচিব।

গত এপ্রিল মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত সফর করেন। ওই সময় দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে যেসব সমঝোতা স্মারক ও চুক্তি সই হয়েছে, তার অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা করবেন দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। একই সঙ্গে সহযোগিতার নতুন নতুন বিষয় নিয়েও আলোচনা করবেন তারা।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে দিল্লীতে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে তৃতীয় যৌথ কমিশনের বৈঠক হয়েছিল। ওই বৈঠকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী অংশ নিয়েছিলেন।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: